Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬, ২১ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

বিএনপির সময় আমদানির চেয়ে রফতানি বেশি হয়েছে

আমীর খসরু

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ মে, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে আমদানির চেয়ে রফতানি বেশি হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, যে দেশের কৃষক তার ফসলের দাম পাবে না সে দেশে উন্নয়ন কখনো হবে না। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন আমদানির চেয়ে রফতানি বেশি হয়েছে। কিন্তু আজ কৃষক তার ফসলের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে ফসলে আগুন দিচ্ছে। উৎপাদন খরচ না পাওয়ায় কৃষকের মাঝে এখন হাহাকার দেখা যাচ্ছে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের উদ্যোগে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। 

বাংলাদেশে কৃষির উন্নয়নে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের অবদানকে স্মরণ করে আমীর খসরু বলেন, আজকে দেশের কৃষিতে যে উন্নয়ন হয়েছে তা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের হাত ধরে হয়েছে। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান প্রত্যন্ত গ্রামে গিয়ে কৃষকের কথা শুনেছেন, তাদের সঙ্গে মাটি কেটেছেন। বাংলাদেশের বিপর্যস্ত অর্থনীতির পরিবর্তন ঘটিয়েছেন। কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য বড় ধরনের আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে দলীয় নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়ে বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, আইনি প্রক্রিয়ায় তার মুক্তি সম্ভব নয়। আন্দোলন ছাড়া মুক্তি হবে না।
তিনি বলেন, সরকারের যে মনোভাব তাতে আন্দোলন সংগ্রাম ছাড়া বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব না। বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে হলে আমাদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ছাড়া বেগম জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব নয়।
নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, যে যেখানে যেভাবে আছেন প্রস্তুত থাকুন। ডাক আসবেই। যখন ডাক দেবে সেই ডাকে সাড়া দিয়ে সবাইকে রাজপথে নেমে আসতে হবে। সময়ের ডাকে সাড়া দিলে দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবেই। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া জেলখানায়, গণতন্ত্র জেলখানায়, স্বাধীনতার ঘোষকের সন্তান সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বড় ছেলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে আজ বিদেশে থাকতে হচ্ছে। সেজন্য বলবো- লড়াই ছাড়া কোনও পথ নাই। সংগ্রাম ছাড়া কোনও পথ নাই। লড়াই-সংগ্রামই এখন দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা ও বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার একমাত্র পথ।
বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ৭২ থেকে ৭৫, এই অন্ধকার সময়ে সকল দল, সকল সংবাদপত্র বাতিল করা হয়েছিলো। গণতন্ত্র কবরস্থ করা হয়েছিলো। সেই অন্ধকার থেকে দেশ ও জাতিকে আলোর পথে এনে আলোকিত বাংলাদেশের জন্ম দিয়েছিলেন শহীদ জিয়াউর রহমান। জাতি তাঁর কাছে চিরঋণী। সেই শহীদ জিয়াউর রহমানের দল বিএনপি যখন মাঠে নামবে আবার কৃষক তার অধিকার ফিরে পাবে। ফসলের ন্যায্যমূল্য ফিরে পাবে। শ্রমিক তার সঠিক মজুরি ফিরে পাবে।
আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে আরও উপস্থিত ছিলেন- চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আব্দুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কৃষক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক তকদির হোসেন মোহাম্মাদ জসিম, নাজিম উদ্দিন মাস্টার, জামাল উদ্দিন খান মিলন, সদস্য সচিব কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, ঢাকা মহানগরের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নাসির হায়দার, সেলিম হোসেন, আলীম হোসেন, মাইনুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক মিন্টু, মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, খলিলুর রহমান ইব্রাহিম, আলমগীর হোসেন, কে এম রব্রিুল ইসলাম রিপন ও এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমূখ।



 

Show all comments
  • shaukaut ২৪ মে, ২০১৯, ৩:৫৯ এএম says : 0
    zi ar karonei bangali shara bisshe muguri diteche jodi amader jatir pita beche thakto tajole bangladesh kobe nagad bissher ucho shan dokhol korteparto eta janto shara bissho.jatir pitar karone ag bangali digno jati.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিএনপি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ