Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার , ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

‘ সরকার খালেদা জিয়াকে মেরে ফেলতে চায়’

কারাগারে অসুস্থ খালেদা জিয়া

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ মে, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার ‘ছলচাতুরি’ করে খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকিয়ে রেখে তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। গতকাল গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, গত বৃহস্পতিবার আপনারা দেখেছেন যে, কীভাবে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে দুইটি মামলায়। যেটার সাথে সাথে জামিন হওয়ার কথা। সেখানে এটর্নিজেনারেল প্রথমে বললো উনি অসুস্থ, পরে বললো যে, উনি আরেকটা কাজে ব্যস্ত। সেখানেও সরকার ছলচাতুরির আশ্রয় নিয়েছে।
বিএনপি মহাসচিব উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসায় সরকার অসহযোগিতা করছে। তারা জনগণের সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় আসে নাই। তাই জনগণের নেত্রীকে কারাগারে রেখে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। খালেদা জিয়া যেন জামিন না পান সেজন্য সরকার নগ্ন হস্তক্ষেপ করছে। সরকার কি খালেদা জিয়াকে কারাগারের মধ্যেই মেরে ফেলতে চায়? মির্জা ফখরুল বলেন, যে মামলায় চেয়ারপার্সনকে সাজা দেয়া হচ্ছে সেই মামলায় তিনি জামিন প্রাপ্য। জামিন পেতে তার আইনগত প্রাপ্যতা রয়েছে। সরকার উদ্দেশ্যমূলকভাবে জামিন আদালতের উপর নগ্ন হস্তক্ষেপ করছে। এ বিষয়টি অমানবিক, মানবাধিকার লংঘন এবং সংবিধানের লংঘন।
তিনি বলেন, আমরা সরকারকে বারবার বলেছি তাকে উন্নত চিকিৎসা দিতে। কিন্তু দেয়া হচ্ছে না। আমরা বলেছি বাইরে চিকিৎসার জন্য সম্পূর্ণ ব্যয় বিএনপি বহন করতে রাজি আছে। তবুও সরকার কোন সাড়া দিচ্ছে না।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসায় খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আরো অবনতি হয়েছে জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তার ডায়াবেটিস অনিয়ন্ত্রিত, সুগার লেভেল ১০ থেকে ১৬ এটা কিছুতেই কমছে না। তিনি পা নাড়াতে পারছেন না। বিছানা থেকে উঠতে আরেকজনের সাহায্য নিতে হচ্ছে। তিনি একা একা বিছানা থেকে উঠতে পারেন না। তার এখন হাঁটাচলা করা দরকার। হাসপাতালে জায়গা সীমিত থাকার কারণে তিনি হাঁটাচলা করতে পারছেন না।
প্রতিহিংসার কারণে বেআইনিভাবে খালেদা জিয়াকে ১৬ মাস সরকার কারাগারে রেখেছে বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-এমপিরা সাজাপ্রাপ্ত হয়েও বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু খালেদা জিয়া জামিনপ্রাপ্ত হলেও তিনি জামিন পাচ্ছেন না। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। কারণ তিনি আইনগত ভাবে এটা প্রাপ্য। অন্যথায় খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যগত যে কোন অবনতি হলে এর দায় সরকারকে বহন করতে হবে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মনিরুল হক চৌধুরী, এম এ কাইয়ুম প্রমুখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: খালেদা জিয়া

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ