Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬, ১২ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

ফেভারিটরা মাঠে নামছে আজ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ মে, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

বিশ্বকাপ শুরুর আগে শেষবারের মত ঝালিয়ে নিতে গতকাল থেকে শুরু হয়েছে দলগুলোর মধ্যে প্রস্তুতি ম্যাচ। প্রতিটা দল দুটি করে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে। প্রস্তুতি ম্যাচে কাল মুখোমুখি হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা-শ্রীলঙ্কা এবং পাকিস্তান-আফগানিস্তান। নিজেদের প্রথম প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে আজ মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। সাউদাম্পটনের রোজ বোলে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ম্যাচটি শুরু হবে। একই সময় নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেরে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে মাঠে নামবে আসরের অন্যতম ফেভারিট ভারত।
ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া
দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে ইংল্যান্ড। ওয়ানডে ক্রিকেটে বর্তমান এক নম্বর দল তারা। গেল সপ্তাহে নিজেদের মাটিতে পাকিস্তানকে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে নাস্তানাবুদ করে ৪-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নেয় ইয়োইন মরগানের দল। পুরো সিরিজেই পাকিস্তানের উপর আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছে তারা। এমনকি গেল তিন বছর যাবত ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রতাপশালী এক দলে পরিণত হয়েছে ইংল্যান্ড।

তাই এবার দেশের মাটিতে নিজেদের কন্ডিশনে আসন্ন বিশ্বকাপে সেরাটা দিতে উদগ্রীব হয়ে আছে ইংল্যান্ড। এমনটাই বলেন ইংলিশ অধিনায়ক মরগান, ‘বিশ্বকাপে আমরা ভালো পারফরমেন্স করতে চাই। আমাদের এবারের দলটি অনেক বেশি ভারসাম্যপূর্ণ। এই দলটিই গেল তিন বছর ধরে এক সাথে খেলছে। খুব বেশি পরিবর্তন হয়নি। তাই আমাদের বোঝাপড়াও খুব বেশি। মূল লড়াইয়ে নামার আগে দু’টি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ। খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচ দু’টি। নিজেদের আরও ভালোভাবে ঝালিয়ে নেয়ার সুযোগ পাবে সবাই। আমরাও এই সুযোগ কাজে লাগাতে চাই।’ তবে ইংলিশদের জন্য দুঃসংবাদ হয়ে এসেছে মরগানের ইনজুরি। অনুশীলনের সময় গতকাল আঙ্গুলে চোট পেয়েছেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক।

২০১৭ সালের জানুয়ারিতে ওয়ানডে ফরম্যাটে সাফল্য পায় অস্ট্রেলিয়া। এরপর দীর্ঘ দিন কোন দ্বিপক্ষীয় সিরিজ ও টুর্নামেন্টে জয়ের স্বাদ পায়নি অজিরা। কিন্তু বিশ্বকাপের আগ মূর্হুতে হঠাৎ করেই ঘুড়ে দাঁড়িয়েছে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। অ্যারন ফিঞ্চের অধীনে ভারতের মাটিতে ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়েও শেষ তিন ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদেরে করে নেয় অস্ট্রেলিয়া। এরপর সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে তারা পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করে। শেষ দু’টি দ্বিপক্ষীয় সিরিজের পারফরমেন্সে নিজেদের আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এছাড়া বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারীর দায়ে নিষিদ্ধাদেশ কাটিয়ে দলে ফিরেছেন দুই তারকা খেলোয়াড় স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। আসন্ন বিশ্বকাপে শিরোপা ধরে রাখতে তাই বদ্ধ পরিকর বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

এর আগে প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে ভালো করতে চান অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ফিঞ্চ, ‘বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দু’টি ম্যাচ দিয়ে নিজেদের অবস্থা ভালোভাবে বুঝতে পারা যায়। প্রস্তুতিমূলক হলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি আমাদের জন্য বড় পরীক্ষা। দল নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জয়ের লক্ষ্য থাকবে আমাদের।’ ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ ২৭ মে লন্ডনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। একই দিন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া।

নিউজিল্যান্ড-ভারত
ফেভারিটের তকমা নিয়ে বিশ্বকাপের জন্য ইংল্যান্ডের মাটিতে পা রাখে যথাক্রমে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের দ্বিতীয় ও চতুর্থস্থানে থাকা দল ভারত ও নিউজিল্যান্ড।

২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে মাত্র দু’টি দ্বিপক্ষীয় সিরিজ ও একটি টুর্নামেন্ট হেরেছে ভারত। ২০১৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী পাকিস্তানের কাছে হারতে হয়েছিল। এরপর ২০১৮ সালে ইংল্যান্ডের কাছে এবং সর্বশেষ গেল মার্চে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ওয়ানডে সিরিজ হারে ভারত। এরপরও বিশ্বকাপের দ্বাদশ এই আসরে উপমহাদেশের দলটিকে অন্যতম ফেভারিট ভাবা হচ্ছে।

অস্ট্রেলিয়ার কাছে ঐ সিরিজ হারের পর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) অংশ নেয় ভারতীয় ক্রিকেট দলের সকল খেলোয়াড়ই। বিশ্বকাপের আগে ঝালিয়ে নেয়ার মঞ্চ হিসেবে তারা পায় আইপিএল। আইপিএল দলের খেলোয়াড়দের আস্থা বাড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, ‘আইপিএলে প্রত্যক খেলোয়াড়ই নিজেদের সেরা ফর্মে ছিলো। আইপিএলের কারণে দলের সবাই নিজেদের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। ইংল্যান্ডে সবাই ক্রিকেটকে উপভোগ করতে চায়।’

প্রস্তুতিমূলক ম্যাচকে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছেন ভারতের কোচ রবি শাস্ত্রী, ‘মূল লড়াইয়ের আগে দু’টি প্রস্তুতি মূলক ম্যাচ রয়েছে। দু’টি দলই বেশ শক্তিশালী। তাই প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ দু’টিকে হালকাভাবে নেয়ার কোন কারন নেই। দু’টি ম্যাচেই নিজেদের প্রস্তুতি ভালোভাবে সারতে হবে।’
গেল বিশ্বকাপে ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ধরাশায়ী হওয়া নিউজিল্যান্ড এবারো শক্তিশালী দল। চলতি বছর তারা তিনটি ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে। সবগুলোই দেশের মাটিতে। তিন ম্যাচের সিরিজে শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ করতে পারলেও ভারতের কাছে ৪-১ ব্যবধানে হারে কিউইরা। তবে প্রায় তিন মাস ধরে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খেলছে না নিউজিল্যান্ড। সর্বশেষ গেল ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ খেলে ব্ল্যাক ক্যাপস বাহিনী। তবে আইপিএলে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন, মার্টিন গাপটিল, কলিন মুনরো ও ট্রেন্ট বোল্টরা কেলার মধ্যেই ছিলেন।

তবে বিশ্বকাপ মঞ্চের আবহ ভিন্ন। এখানকার কন্ডিশন ও পরিস্থিতি ভিন্ন। তাই মূল লড়াইয়ে নামার আগে দু’টি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে নিজেদের ভালোভাবে ঝালিয়ে নিতে চায় নিউজিল্যান্ড। এমনই ইঙ্গিত দিলেন দলের ওপেনার গাপটিল, ‘আইপিএলে আমরা অনেকেই ভালো খেলেছি। কিন্তু এক সাথে খেলতে পারেনি। জাতীয় দলে সেটি সম্ভব হবে। বিশ্বকাপের আগে দু’টি প্রস্তুতিমূলক আমাদের একত্রিত করার সুযোগ করে দিচ্ছে। আমরা এই সুযোগটা কাজে লাগাতে চাই।’ আঙ্গুলির ইনজুরির কারণে এই আজকের ম্যাচে টম লাথাম খেলতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন দলপতি উইলিয়ামসন।

আগামী ২৮ মে ব্রিস্টলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলবে নিউজিল্যান্ড। একই দিনে কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্সে বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষবারের মত নিজেদের ঝালিয়ে নেবেন কোহলি-ধোনিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন