Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬, ২১ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

দেশে সংকটাপন্ন পরিস্থিতি বিরাজ করছে

নাগরিক নিরাপত্তা জোটের সংবাদ সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৬ মে, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

দেশে বর্তমানে সংকটাপন্ন পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে নাগরিক নিরাপত্তা জোট। বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে গঠিত এই জোট গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন। ‘আইনের শাসন, নিরাপত্তা, জবাবদিহিতা ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার’ দাবিতে এই সংবাদ সম্মেলনে জোটের নেতারা বলেন, সরকার জনগণের নিরাপত্তা ও ন্যায়বিচার প্রদানে সাংবিধানিকভাবে দায়বদ্ধ। অথচ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে সরকার ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন সংস্থা জনগণের মানবাধিকার ও নাগরিক অধিকার সুরক্ষায় ব্যর্থ হচ্ছে বা দায়িত্ব এড়িয়ে যাচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ড. হামিদা হোসেন, খুশী কবির, শীপা হাফিজা, শাহীন আনাম, জিয়া তারিক আলী, ড. ইফতেখারুজ্জামান, শামসুল হুদা, জাকির হোসেন, শরীফ জামিল সহ নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ। সম্মেলনে বর্তমান পরিস্থিতির উপরে একটি লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন শামসুল হুদা।
এতে বলা হয় সাম্প্রতিক সময়ে দেশে প্রতিনিয়ত নানা অন্যায়, অবিচার, বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড, গুম, নির্যাতন, মত প্রকাশ ও মুক্ত চিন্তার অধিকারের ওপর আঘাত, নারী ও শিশু নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণের মতো জঘন্য মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। রাষ্ট্রে আইনের শাসন ও জবাবদিহিতার অভাব, ক্ষমতার অপব্যবহার, ন্যায়বিচার প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা, বিচারের দীর্ঘসূত্রতা নাগরিকের মানবাধিকার লঙ্ঘনকে আরো বেশি সংকটাপন্ন করে তুলছে।
বিশিষ্ট ব্যক্তিরা তাদের বক্তব্যে বলেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠায় রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্টানগুলি স্বাধীনভাবে কাজ করতে না দিলে এবং গণতন্ত্রকে সুসংহত করতে না পারলে কোন উন্নয়নই দীর্ঘস্থায়ী হয় না। বর্তমান পরিস্থিতিতে সমাজে অন্যায়, অরাজকতা ও বিশৃংখলা বিরাজমান, সর্বোপরি জনগণের মধ্যকার নিরাপত্তাহীনতা একটি ভয়ের সংস্কৃতি সৃষ্টি করেছে, যা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। তারা বলেন টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জন বাংলাদেশ দৃঢপ্রতিজ্ঞ হলেও এপরিস্থিতি চলমান থাকলে বাংলাদেশ এলক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পিছিয়ে পড়বে। তারা প্রাতিষ্টানিক দলীয়করণ বন্ধেও সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে বলেন।
এতে আরো বলা হয় এপ্রিল পর্যন্ত চার মাসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১১৮ জন নাগরিক নিহত হয়েছেন। একই সময়ে নারী ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৩৫৪টি আর শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ২৩৪টি। ১৪৪ শিশু খুন হয়েছে। অন্তত ছয়জনের গুম হওয়ার অভিযোগ আছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের পরিস্থিতি মহামারি আকার ধারণ করেছে। তাই নাগরিকের নিরাপত্তায় প্রয়োজন বৃহৎ ঐক্য।
টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, প্রধানমন্ত্রী অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, কিন্তু তা হচ্ছে না। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কারণে মুক্তচিন্তা ও বাক স্বাধীনতা ব্যাহত হচ্ছে। মানুষ উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করতে পারছে না। কোনো জবাবদিহি নেই। দলীয়করণ বন্ধ করে সব প্রতিষ্ঠান ঢেলে সাজাতে হবে।
মানবাধিকার কর্মী হামিদা হোসেন বলেন, রাষ্ট্র ও জনগণের মধ্যে সম্পর্ক থাকা দরকার। কিন্তু সেটা তো দেখা যাচ্ছে না। মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না সরকার, আদালতের নির্দেশনাও মানা হচ্ছে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন