Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় কবির জন্মদিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় শ্রদ্ধা

আবদুল মোমিন | প্রকাশের সময় : ২৬ মে, ২০১৯, ১০:১০ এএম

গতকাল ১১ জ্যৈষ্ঠ, শনিবার। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অন্যতম প্রাণপুরুষ, আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মদিন। বাঙালির আবেগ, অনুভূতিতে জড়িয়ে থাকা চির বিদ্রোহী এ কবির ১২০তম জন্তজয়ন্তী আজ। জন্মদিনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন অনেকেই৷ কেউ কেউ বিদ্রোহী কবির পঙক্তি উল্লেখ করে আবার কেউ নিজের লেখা কবিতার মাধ্যমে তাকে স্মরণ করেছেন।

জন্মদিনে জাতীয় কবিকে শ্রদ্ধা জানিয়ে মনির হাসান লিখেছেন, ‘‘ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সাম্য শান্তি প্রতিষ্ঠায় চির বিদ্রোহের আরেক নাম--কাজী নজরুল ইসলাম।উনি ছিলেন অখন্ড ভারতীয় উপমহাদেশের অসামন্য প্রতিভাধর মহান আদর্শিক কবি।একেবারে আক্ষরিক অর্থে বিশ্ব ইতিহাসে মানবতা প্রতিষ্ঠায় এমন দৃষ্টান্ত বিরল।’’

বিদ্রোহী কবির বিখ্যাত পঙক্তির উল্লেখ করে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিস্ট ও গবেষক মেহেদী হাসান পলাশ। ফেসবুকে তিনি লিখেছেন,

‘‘আনোয়ার! আনোয়ার!
সব যদি সুম্সাম, তুমি কেন কাঁদো আর?
দুনিয়াতে মুসলিম আজ পোষা জানোয়ার!
আনোয়ার! আনোয়ার!
বেইমান মোরা, নাই জান আধ-খানও আর।
কোথা খোঁজো মুস্লিম? –শুধু বুনো জানোয়ার!
যে বলে সে মুস্লিম– জিভ্ ধরে টানো তার !
বেইমান জানে শুধু জানটা বাঁচানো সার!
আনোয়ার ! ধিক্কার!
কাঁধে ঝুলি ভিক্ষার–
তল্ওয়ারে শুরু যার স্বাধীনতা শিক্ষার!
যারা ছিল দুর্দম আজ তারা দিক্দার!
আনোয়ার! ধিক্কার!’’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মকবুল হোসাইন লিখেছেন, “আমি চিরতরে দূরে চলে যাবো, তবু আমারে দিব না ভুলিতে’।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২০তম জন্মদিনে মাস্টারদা’ সূর্য সেন হল পরিবারের পক্ষ থেকে কবির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।’’

বিদ্রোহী কবির জন্মদিনে শ্রদ্ধা জানিয়ে মোবারক হোসাইন জয় লিখেছেন,
‘‘বিশ্বাস করুন আমি কবি হতে আসি নি,
আমি নেতা হতে আসি নি!
আমি প্রেম দিতে এসেছিলাম,,
প্রেম পেতে এসেছিলাম!!
সেই প্রেম পেলাম না বলে,
প্রেমহীন নিরস পৃথিবী থেকে নিভৃতে বিদায় নিলাম!!’’

‘‘জৈষ্ঠ্যের খরতাপ নিয়ে তুমি আবির্ভূত হয়েছো বাংলা সাহিত্যে। তোমার এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশরী আর এক হাতে রণতূর্য। তোমার প্রেম ও বিরহের গানে নিয়ত দোলায়িত বাঙ্গালীর হৃদয়। শৃঙ্খলিত জীবনের সকল অপমান অবহেলার বিরুদ্ধে তোমার দ্রোহ সমাজকে করেছে সূচিশুভ্র। তুমি গেয়ে গেছো বিশ্ব মানবতার জয়গান। প্রেমে ও সংগ্রামে তুমি আমাদের বন্ধু-চিরায়িত। দুখু মিয়া, তোমার জন্মদিনে আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধা’’ লিখেছেন লুতফর রহমান অরোঙ্গো।

মো. রাজু আহমেদ ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে/মোর মুখ হাসে মোর চোখ হাসে মোর টগবগিয়ে খুন হাসে/আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে।’ জন্মদিনে,বিনম্র শ্রদ্ধা দ্রোহের কবি...।’’

‘‘কাজী নজরুল ইসলাম সারাজীবন স্রোতের বিপরীতে চলেছিলেন। আমি তার কাছে থেকে নিয়ত সেই শিক্ষাটাই নেই- আসানসোলের রুটির কারিগর থেকে যাত্রাদলের নবীন সদস্য, বিশ্বযুদ্ধের সৈনিক, কারাবন্দী বিপ্লবী, কাকাবাবু মোজাফ্ফর আহমেদের অনুগামী, আন্তর্জাতিকের অনুবাদক, ভয়ন্কর রোমান্টিক, মেজাজী কাজী নজরুল- শুভ জন্মদিন।’’ লিখেছেন মেরাজুল ইসলাম মিরাজ।

কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৩০৬ বঙ্গাব্দে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে। বাবার নাম কাজী ফকির আহমেদ, মা জাহেদা খাতুন। দরিদ্র পরিবারে জন্মের পর দুঃখ-দারিদ্র্য ছিল তাঁর নিত্যসঙ্গী। তাঁর ডাকনাম ছিল দুখু মিয়া।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সোশ্যাল মিডিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ