Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী

রয়েল চিটার ডেভেলপমেন্টর মূলহোতাসহ ৫ জন গ্রেফতার

চাকরির নামে প্রতারণা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ মে, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

অভিনব কায়দায় উচ্চ পদে চাকরি দেওয়ার নমে প্রতরণা করে শত শত কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া চক্রের মূলহোতাসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গত শনিবার রাতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে র‌্যাব-৪ এর একটি দল তাদেকে গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারকৃতরা হলো- মূলহোতা কুমিল্লার মোঃ বারেক সরকার ওরফে হাজী বারেক (৬৩), যশোরের মোঃ হাবিবুর রহমান (২৪), কুমিল্লার মোঃ জাকির হোসেন (৫৮), ভোলার মোঃ আক্তারুজ্জামান (২৮) ও বরিশালের মোঃ শাহরিয়ার তাসিম (১৯)। তারা সবাই ‘রয়েল চিটার ডেভেলপমেন্ট-(আরসিডি)’ নামে কথিত মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির নামে প্রতারণা করতো। এর আগে গত ২ মার্চ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে একই চক্রের ২২ জনকে গ্রেফতার করেছিল র‌্যাব।
র‌্যাব-৪ এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাজেদুল ইসলাম সজল বলেন, ২ মার্চের অভিযানে চক্রের ২২ সদস্যকে গ্রেফতার করা হলেও চক্রের মূলহোতা বারেক সরকার ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল। পরবর্তীতে গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদ ও ঘটনার ধারাবাহিক তদন্তে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত শনিবার রাতে দারুস সালাম এলকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় চক্রের মূলহোতা বারেকসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে বারেক হাজীর কাছ থেকে ১টি বিদেশী পিস্তল, ১টি ম্যাগাজিন ও ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।
র‌্যাব জানায়, চক্রটি গত ১৫ বছর ধরে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবী এবং ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে বিভিন্ন কোম্পানিতে উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগের প্রলোভন দেখিয়ে আসছে। তারা টার্গেটকৃত ব্যক্তিকে দামি গাড়িতে করে তাদেরই কোন অফিসে নিয়ে যেত। পরে চক্রের একটি বিশেষায়িত দলের সাথে যোগাযোগ করে উচ্চ বেতনের চাকরিতে নিয়োগ দিত। এরপর একই প্রতিষ্ঠানে অথবা সহযোগী কোনো প্রতিষ্ঠানের শেয়ারহোল্ডার হওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করে প্রতারণার ফাঁদে ফেলা হতো। এভাবে তাদের প্রতারণার শিকার হয়ে অবসরকালীনপ্রাাপ্ত টাকা ও ব্যবসায়ীরা তাদের টাকা বিনিয়োগ করার কয়েক দিনের মধ্যেই চক্রটি অফিসসহ অন্যত্র উধাও হয়ে যেত। এছাড়া চক্রের মূলহোতা বারেক দীর্ঘ ৪৩ বছর ধরে এভাবে প্রতারণা করে শত শত কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ গড়েছে। এবারই প্রথম সে গ্রেফতার হয়। র‌্যাব জানায়, গ্রেফতার চক্রের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় এক বা একাধিক প্রতারণার মামলা রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা তাদের সংগঠন ও প্রতারণার কৌশল সম্পর্কে অনেক তথ্য দিয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ