Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

রাউজানের গ্রামে বিদেশী মসজিদ, ভিতরে ঢুকলেই প্রশান্তি

রাউজান (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১ জুন, ২০১৯, ২:৩৮ পিএম

রাউজানের গ্রামে নতুন আদলে গড়ে তুলা হয়েছে একটি বিদেশী মসজিদ। উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডস্থ গর্জনীয়া এলাকায় এ মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। বিশাল আকারে মফস্বল এলাকায় এ মসজিদটি চোখে পড়ার মত। রাউজান সদর থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার উত্তরে হলদিয়া ভিলেজ সড়কের পাশে গর্জনীয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন জায়গায় মসজিদটি নতুন আঙ্গিকে নির্মাণ করা হয়েছে।
সরেজমিন গিয়ে খবর নিয়ে জানাগেছে, ঐ স্থানের প্রাচীনতম নড়েবড়ে মসজিদটি ভেঙ্গে বিদেশী আদলে করার প্রথম উদ্যোগটি নেন দুবাই প্রবাসি স্থানিয় গর্জনিয়া নিবাসি মরহুম হাজী ইদ্রিস মিয়া মিস্ত্রির মেজ ছেলে আলহাজ্ব মাওলানা ওসমান তালুকদার। ৬০ ফুট দৈর্ঘ ও ৫০ ফুট প্রস্তের বিশাল মসজিদটিতে একসাথে ৬‘শ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। মসজিদের ভিতরে মারবেল পাথর দিয়ে টাইলস, অর্ধশতাধিক বৈদ্যতিক পাঁকা, আধুনিক প্রযুক্তির আলোক বাতি, শিততাপ নিয়ন্ত্রিত দরজা জানালা, বিশাল গম্বুজ,প্রায় ৫০ ফুট উচ্চতার মিনার তৈরি করা হয়েছে। চলতি মাহে রমজান শুরুর কয়েকদিন আগে মসজিদের মুসল্লিদের নামাজের জন্য মসজিদটি উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। ২০১৭ সালে ডিসম্বরের প্রথম সপ্তাহে মসজিদটি বিদেশী আদলে নির্মাণ করার মানষে নির্মাণ কাজের আনুষ্টানিক উদ্বোধন করা হয়।
সূত্র জানান, আবুধাবী প্রবাসি আলহাজ্ব মাওলানা ওসমান তালুকদার মসজিদটি নতুন আদলে নির্মাণে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য এলাকাবাসির সাথে মতবিনিময় করেন বেশ কয়েকবার। এলাকার মুসল্লিদের নিয়ে একটি নির্মাণ কমিটি করে দেওয়া হয়। পরে ওসমান তালুকদার দুবাইতে রাউজান এলাকায় একটি মসজিদের বেশি প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে প্রবাসী আলহাজ্ব মুনির চৌধুরীর সাথে আলাপ আলোচনা করেন আর মুনির চৌধুরী এতে মসজিদ করার পক্ষে সাই দেন। ওসমান তালুকদার, মাওলানা আলী রেজা সহ আরো বেশ কজন প্রবাসী মিলে মুনির চৌধুরীর সাথে বৈঠক করে দিনক্ষন ঠিক করে দেশে এসে মসজিদটির জায়গা পরিদর্শন করেন। এরপর তারা বিদেশী আদলে তৈরী করেন বেশ কয়েকটি আধুনিক নকশা। এলাকার মুসল্লিদের থেকে নেওয়া হয় নকশার মতামত। এরপর পছন্দের নকশাটি দিয়ে মসজিদ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। শুরু হয় কর্মযজ্ঞ। মসজিদটি নির্মাণে আর্থিক সহোযোগিতার দাড়টি উম্মুক্ত রাখা হয় যাতে ছোট বড় গরীব তোয়াঙ্গার সকলে সহযোগিতা করতে পারেন। শুর হয় প্রাচীনতম এ মসজিদটির নতুন শৈলিতে কাজ।
উত্তর চট্টগ্রামের পীরে কামেল, রাউজান হলদিয়া গর্জনীয়া রহমানিয়া ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার প্রতিষ্টাতা হযরত শাহসূফি আলহাজ্ব সৈয়দ আবদুল গফুর মাষ্টার শাহ (রহঃ) স্মৃতি বিজরিত এ মসজিদটিতে তিনি নিজেই ইমামতি করেছেন দীর্ঘকাল। এ মসজিদটি নিয়ে হুজুরের জবানে পাকের বহু কেরামত, বহু ইতিহাস বিরজমান। হারিকেন নিয়ে ইমামতি করা এ বুজুূর্গ ব্যাক্তি বলতেন এ মসজিদে অলিয়ে কেরামগন নামাজ পড়তে আসতেন রাতের বেলায়। এক কথায় এটি একটি বুজুর্গো মসজিদও বটে। বর্তমান হুজুরের সুযোগ্য উত্তরসুরি গর্জনীয়া ফাজিল মাদ্রাসার সাবেক সফল প্রিন্সিপাল আলহাজ্ব আল্লামা শাহজাদা সৈয়দ আহছান হাবিব (মা.জি.আ) এ মসজিদে খতিবের দায়িত্বে নিয়োজিত থেকে মানুষকে হেদায়েত প্রদান করছেন।
এ মসজিদটি নির্মাণে যার বেশি অবদান রাউজান উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান একে এম এহেছানুল হায়দার বাবুলের ছোট ভাই প্রবাসী আলহাজ্ব একে এম মুনির চৌধুরীর। মুনির চৌধুরী, মাওলানা ওসমান তালুকদার, মাওলানা আলী রেজা সহ অনেকে মসজিদটি নির্মাণে প্রবাস থেকে আর্থিক যোগান দিয়েছেন। তাদের এ আর্থিক অনুদান না হলে বিশাল একটি মসজিদ এখানে নির্মাণ করা আদৌ হত কিনা প্রশ্ন থেকে যায়?
স্থানিয় মুসল্লিদের মতে বিশাল এ মসজিদটি রক্ষনা-বেক্ষন সহ প্রতিনিয়ত পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে কমপক্ষে দুজন কর্মচারী নিয়োগ দিতে হবে। প্রতিদিন মসজিদ পরিস্কার পরিচ্চন্ন করা না-হলে মসজিদের সৌন্দর্য-বর্ধন কমে যাবে। মসজিদ কমিটির সেক্রেটারী জাহাঙ্গীর সিকদার বলেন, সমগ্র রাউজান এলাকায় এ ধরনের আধুনিক পদ্ধতি ও বিদেশী আদলে মসজিদ নির্মাণ হয়নি।তবে কথা হচ্ছে মসজিদের খোরাক হচ্ছে মুসল্লি।
এদিকে একতালা বিশিষ্ট মসজিদটি নির্মানে অর্ধশতাদিক রাজমিস্ত্রি রাত-দিন কাজ করেছেন দীর্ঘ দের বছর। তাদের কাজ তদারকি করেছেন ব্যাংকার মকসদুল করিম ও একজন ইঞ্জিনিয়ার।সব মিলিয়ে নতুন মসজিদের ভিতরে ডুকে নামাজ আদায় করলে মুসল্লিদের মনে প্রশান্তি আসবেই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চট্রগ্রাম


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ