Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

বাসমালিকেরা লোভী : ওবায়দুল কাদের

রাজনীতিতে সৌজন্যবোধ বজায় রাখার উদ্যোগ নেবে আ.লীগ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ জুন, ২০১৯, ১২:০৪ এএম | আপডেট : ১২:১১ এএম, ৪ জুন, ২০১৯

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাসমালিকেরা লোভী। তাদের লোভ-লালসার সীমা বহু দূর চলে গেছে। বাসমালিকদের লোভ-লালসা মানসিক প্রবণতায় পরিণত হয়েছে। বহুদিন পর এবারের সড়কপথে ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক হচ্ছে। তবে পরিবহনেও শৃঙ্খলা নেই, সড়কেও শৃঙ্খলা নেই। আমাদের এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে শৃঙ্খলা। ফেরার পথেও যাত্রা যেন শোভন ও নিরাপদ হয় সরকার সে চেষ্টা করছে। শুধু ঈদ নয়, সারা বছর সড়ক এরকম স্বস্তিদায়ক থাকবে। রাজনীতিতে যাতে সামাজিক সম্পর্ক ও সৌজন্যবোধ বজায় থাকে আগামীতে আওয়ামী লীগ সেই উদ্যোগ নেবে বলেও জানান দলটির সাধারণ সম্পাদক কাদের।
গতকাল সোমবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। মন্ত্রী বলেন, সরকারের অনুরোধের পরও অনেক মালিক অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছে। এগুলোর বিরুদ্ধে সরকার বিভিন্ন টার্মিনালে মোবাইলকোর্ট পরিচালনা করছে। এ পর্যন্ত হিমাচল, একুশে, ফতেহ আলী, হানিফ পরিবহনকে জরিমানা করা হয়েছে। কাদের বলেন, এখন ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যেতে মাত্র ৪ ঘণ্টা সময় লাগে পাবলিক পরিবহনে। আর ব্যক্তিগত পরিবহনে গেলে লাগে মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টা। এটা সম্ভব হয়েছে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক চেষ্টার ফলে।
মন্ত্রী বলেন, আমি দুইটি টার্মিনালে গিয়েছি। সেখানে অভিযোগ পেয়েছি। বাস মালিকরা অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছেন। মালিকরা জানান, তারা ঈদে বাস ভরে যাত্রী নিলেও আসতে হয় খালি। এজন্য আমরা বলেছি আপনারা সারা বছর অনেক আয় করেন। ঈদের সময় একটু কম আয় বা লাভ কম করেন। তবে এতে কতটুকু কাজ হবে জানি না। সব কথায় কাজ হলে দেশ সোনার বাংলাদেশ হয়ে যেতো। বিপদে পড়ে জনগণ, বিপদ আমরা সৃষ্টি করি না, বিপদ সৃষ্টি করে প্রভাবশালীরা।
আপনি মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছেন। একটি বইয়ে আপনি লিখেছেন সুযোগ পেলে আপনি রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন আনার চেষ্টা করবেন- এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, গুণগত পরিবর্তন বলতে বুঝি আচরণগত পরিবর্তন। এখানে একটা পরিবর্তন দরকার। আমরা রাজনীতিবিদরা পরস্পরের প্রতি বিদ্বেষপ্রসূত শব্দবোমা নিক্ষেপ করি এটা পরিবেশটাকে নষ্ট করছে।
তিনি বলেন, আমি আমাদের পার্টি, আমাদের সরকার এবং বিরোধী দলের কাছে আহ্বান করতে চাই- আমরা এই বিষয়গুলো অন্তত রাজনীতিতে বিদ্বেষের ভাষাটা শব্দবোমা যে বিষয়টি, যে বিষয়টা পারস্পরিক সম্পর্ককে অবনতির দিকে নিয়ে যায় তা না করি। এখন একটা ওয়ার্কিং আন্ডারস্ট্যান্ডিং গণতন্ত্রে থাকা দরকার। এটা থাকলে অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যায়।
মন্ত্রী বলেন, আমাদের বক্তৃতায় ভাষা যদি একটু নমনীয় করি, অন্তত সৌজন্যবোধ রাজনীতিতে থাকে...। অন্য বিরোধী দলের কারো জানাজায় যাব না এটা হয় না। এসব বিষয়ে যদি পরিবর্তন আনতে পারি, তবে বড় ধরনের চেঞ্জ আমরা করতে পারব।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ওবায়দুল কাদের


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ