Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

জাপানে পিতৃত্বকালীন ছুটি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ জুন, ২০১৯, ৯:২০ পিএম

তরুণ পিতাদের ছুটি নেয়ার সমর্থনে নানা পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করা কোম্পানিগুলোকে পুরস্কৃত করার মত প্রণোদনা দিয়ে পুরুষ কর্মীদের পিতৃত্বকালীন ছুটি নিতে উৎসাহিত করছে জাপান সরকার। কোম্পানিগুলো ইতিমধ্যেই এ ধরণের উদ্যোগ এগিয়ে নেয়া শুরু করেছে। যেমন, জাপানের একটি প্রধান ব্যাংক চলতি মাস থেকে এমন একটি কর্মসূচি শুরু করেছে যাতে সন্তান জন্মানোর সময় সংশ্লিষ্ট পুরুষ কর্মীদের প্রায় এক মাসের ছুটি নিতে আহ্বান জানানো হয়েছে। তবে, এই ব্যবস্থার সুবিধা পুরুষ কর্মীরা নিবেন কিনা, সেটি এখনও অস্পষ্ট থেকে যাওয়ায় এমন আহ্বানও উচ্চারিত হচ্ছে যাতে পিতৃত্বকালীন ছুটিকে আবশ্যকীয় করে দেয়া হয়।

কাজ ও জীবনের ভারসাম্য বিষয়ক বিশেষজ্ঞ হোসেই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তামিয়ে মাতসুউরা বলেন যে পুরুষদের পিতৃত্বকালীন ছুটি নিতে বাধ্য করা হলে তা এ সম্পর্কিত কিছু সমস্যা দূরীকরণে সহায়ক হবে, যা কতগুলো বিশেষ উদ্বেগ থেকে পুরুষ কর্মীদের পিতৃত্বকালীন ছুটি নিতে নিরুৎসাহিত করে থাকে। মূলত, কর্মক্ষেত্রে সমস্যার উদ্ভব হওয়া, কাজের মানের পর্যালোচনায় নেতিবাচক প্রভাব পড়া এবং অফিসের বস বা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অগ্রহণযোগ্য হয়ে পড়া এর অন্তর্ভুক্ত। মাতসুউরার মতে, সক্রিয়ভাবে পিতৃত্বকালীন ছুটির পদক্ষেপ নেয়া কোম্পানিগুলোর মাঝে তারা দেখতে পেয়েছেন যে শিশুদের পরিচর্যার অভিজ্ঞতা অর্জনের পরই কেবল পিতৃত্বকালীন ছুটি নেয়ার জন্য অনুরোধ করা শুরু করেন সংশ্লিষ্ট পুরুষ কর্মীরা। মাতসুউরা বলেন, পিতৃত্বকালীন ছুটিকে বাধ্যতামূলক করার চূড়ান্ত লক্ষ্য হল জাপানের জন্মহারকে পুনরুদ্ধারের পাশাপাশি সমাজে সক্রিয় অংশগ্রহণকারী নারীর সংখ্যা আরও বাড়াতে সহায়তা করা। তবে পিতৃত্বকালীন ছুটি মূলত একজন কর্মীর নিজস্ব অধিকার। তাই এটি নেয়া বাধ্যতামূলক করা হলে তা কারও ব্যক্তিগত জীবনে হস্তক্ষেপ বলেও বিবেচনা করা হতে পারে। মাতসুউরা আরও বলেন, সংশ্লিষ্ট কোম্পানিগুলোর উচিত হবে, এক্ষেত্রে, পুরো প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের কাজ ও জীবনের ভারসাম্যের সংস্কার এবং বদলী কর্মী খুঁজে নেয়া'সহ কর্মীদের এই ব্যবস্থা সম্পর্কে জ্ঞান প্রদানের মত মধ্য থেকে দীর্ঘ মেয়াদী পদক্ষেপের ব্যবস্থা নেয়া, যাতে লোকজন নিজেদের পরিবারের পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে স্বেচ্ছায় এই ছুটি নিতে পারে।
সূত্র: এনএইচকে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাপান

২১ মে, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ