Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

বোমার পেছনে উপর মহলের নীল নকশা রয়েছে -রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ জুন, ২০১৯, ৫:৫২ পিএম

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) প্রশাসনিক ভবনে পেট্রোল বোমা পাওয়ার নেপথ্যে উপরের মহলের নীল নকশা রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, বিএসএমএমইউতে যেখানে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার বেষ্টনী তৈরি করা হয়েছে, সেখানে পেট্রোল বোমা গেল কেমন করে? এখানে যদি উপরের মহলের পৃষ্ঠপোষকতা না থাকে বা কোনো ধরনের একটা নীলনকশা না থাকে, তাহলে এটা হওয়ার কথা নয়। এটা জনগণই আশঙ্কা করছে। শুক্রবার (৭ জুন) দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার বিএসএমএমইউ’র প্রশাসনিক ভবনের তৃতীয় তলায় রেজিস্ট্রারের রুমের সামনে থেকে একটি পেট্রোল বোমা উদ্ধার করে শাহবাগ থানা পুলিশ। ওই হাসপাতালের কেবিন ব্লকেই কারাবন্দি অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, যখন খবরটি এসছে এরপর থেকে অনেকেই আমাদের বলেছে, ঘটনাটা কী? সবাই চমকে উঠেছে, হতবাক হয়েছেন। কারণ সেখানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আছেন। তিনি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার পাশাপাশি তাকে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, এটা একটা বড় মাস্টার প্ল্যান। সরকার কী উদ্দেশ্য নিয়ে কী করছেন- এটা বলা মুশকিল। আমাদের দেশনেত্রী সুস্থ নন, সুস্থ হওয়ার জন্য হাসপাতালে তার সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা দরকার।

সরকারের বিতর্কিত কর্মকা-ের কারণেই বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হচ্ছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী ফিনল্যান্ডের হেলসিংকীতে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বলেছেন-‘‘বিএনপি’র নেতৃত্বাধীন জোট বিদেশে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে, এগুলো স্থানীয় আওয়ামী নেতাকর্মীদের উপযুক্ত জবাব দেওয়ার জন্য তিনি বলেছেন। বিএনপির এই নেতা প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, যে দেশে মধ্য রাতে নির্বাচন হয়, তার আগে ২০১৪ সালে একতরফা নির্বাচন ও ১৫৩ টি আসনে ক্ষমতাসীনরা বিনা প্রতিদ্ব¦ন্দ¦ীতায় বিজয়ী হয়। তাহলে কি তাতে দেশের ভাবমুর্তি উজ্জ্বল হয়? এধরণের অপকর্মকে কীভাবে মানুষের চোখ থেকে আড়াল করতে পারবেন? দেশ-বিদেশের সবাই জানে ক্ষমতায় মোহাবিষ্ট প্রধানমন্ত্রী কীভাবে বাংলাদেশের সুষ্ঠু নির্বাচনকে নিরুদ্দেশ করে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করেছেন। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হওয়ার কারণে বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দি করেছেন, তাঁকে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত করে দেশব্যাপী গুম-খুন-ক্রসফায়ারের মতো মনুষ্যতহীন প্রাণবিনাশী কর্মকান্ডের সংস্কৃতি চালু করে মানবতার খোলা বাতাস বন্ধ করে দিয়েছেন। এরপরও কি এগুলোকে আপনি অপপ্রচার বলেবেন?

সরকারের সমালোচনা করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিডিআর বিদ্রোহ, সাগর-রুনি হত্যা, ইলিয়াস আলী, সাইফুল ইসলাম হিরু ও চৌধুরী আলমসহ অসংখ্য বিরোধি দলীয় নেতাকর্মী গুম, জিয়া বিমানবন্দরের নাম পরিবর্তন, খালেদা জিয়াকে বাড়ী থেকে উৎচ্ছেদ, শেয়ারবাজার লুট, হলমার্ক ক্যালেঙ্কারি, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভসহ সরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান লুট, সিমান্তে ফেলানী হত্যা, রানাপ্লাজা ট্রাজেডি, রানাপ্লাজায় রেশমা উদ্ধারের নাটক, ব্লাগার হত্যাকা-, সুরঞ্জিতের কালো বিড়াল, পদ্মা সেতু দুর্নীতি, নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুন, নাটোরের বিএনপি উপজেলা চেয়ারম্যান, নরসিংদীর নিজ দলীয় পৌর মেয়র খুন, বিএনপি’র স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য সালাহ উদ্দিন গুম ও ভারতে ফেলে আসা, জালিয়াতির রেকর্ড ভঙ্গ করে স্থানীয় সরকার নির্বাচন, বেগম জিয়ার অফিসের সামনে বালির ট্রাক দিয়ে অবরুদ্ধ করা, দৈনিক আমার দেশ, চ্যানেল-ওয়ান, দিগন্ত টিভি, ইসলামিক টিভি বন্ধ করে দেওয়া, সরকারি দলের নেতাকর্মীদের মাধ্যমে তনু, মিতু, নুসরাত জাহান রাফি, নার্স, ছাত্রী, প্রতিবন্ধিসহ অসংখ্য নারী-শিশু হত্যা, কিশোর শ্রমিক বিশ্বজিৎ হত্যা, নকল ও প্রশ্ন পত্র ফাসের মহোৎসব, একের পর এক জঙ্গি হামলার নাটক, রামপালে বিতর্কিত কয়লা বিদুৎকেন্দ্র, জুম্মার নামাজে সরকারি খুদবা, গোয়েন্দাদের দিয়ে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে দেশ থেকে বিতাড়িত করা, উল্লেখিত ঘটনাগুলি এই সরকারের ব্যর্থতা ও আশ্রয়ে-প্রশ্রয়ে ঘটেছে। এসমস্থ ঘটনার কোনটিও দেশ-বিদেশের মানুষের অজানা নেই।

তিনি বলেন, ঈদের রাতে ভেঙ্গে ফেলা হলো পুরান ঢাকার ‘জাহাজ বাড়ী’। স্থানীয় এমপি হাজী সেলিমের লোকজন দিয়ে হঠাৎ চকবাজারের এই ভবন ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। এই বাড়ীটি একটি হেরিটেজ, শতবর্ষী এই ঐতিহ্যবাহী ভবনটি প্রতœতাত্তিক নিদর্শন। হাইকোটেরও নিষেধাজ্ঞা ছিল তারপরেও আওয়ামী দখলদারির হাত থেকে এই ঐতিহ্যবাহী বাড়ীটি রেহাই পেলনা। ঘরে ফেরা মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ঈদের ঘরমুখি মানুষের ভোগান্তির শেষ ছিলনা। এর ওপর দূর্ঘটনাও হয়েছে অনেক। সড়কমন্ত্রীর সস্তিদায়ক ঈদ যাত্রার ঘোষণা যে সম্পূর্ণ বাকোয়াস ছিল সেটিরই প্রমাণ মিলেছে।

এসময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা আমিনুল ইসলাম প্রমূখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রিজভী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ