Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ সফর ১৪৪১ হিজরী

৬ মাসে ডজন এয়ারক্রাফট হারিয়েছে ভারত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ জুন, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

চলতি বছর ছয় মাসেরও কম সময়ে (১১ জুন ২০১৯ পর্যন্ত) ১২টি এয়ারক্রাফট হারিয়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনী। এই ক্ষতি ইতোমধ্যে ক্ষয়িষ্ণু ভারতীয় বিমানবাহিনীর বহরের ওপর আরো চাপ সৃষ্টি করেছে। এয়ারক্রাফট ধ্বংসের তালিকায় সর্বশেষ যুক্ত হয়েছে একটি এএন-৩২ সামরিক পরিবহন বিমান। এছাড়া মিগ-২৭, মিগ-২১ বিসান, জাগুয়ার ও মিরেজ ২০০০ এর পাশাপাশি এমআই ১৭ হেলিকপ্টার ও দুটি হক বিমানও ধ্বংস হয়েছে।

ফেব্রুয়ারি ছিলো ভারতীয় বিমানবাহিনীর জন্য সবচেয়ে ভয়ঙ্কর মাস। ২৭ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানীরা ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে গুলি করে উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানের মিগ-২১ বিসানকে ভূপাতিত করে। একই দিন কাশ্মিরের বুদগামে নিজেদের ক্ষেপণাস্ত্রে ঘায়েল হয় আরেকটি এমআই-১৭ হেলিকপ্টার। এতে ৬ বিমান সেনার সবাই নিহত হয়। এর আগে ২৮ জানুয়ারি উত্তর প্রদেশের কুশিনগরে আইএএফের একটি জাগুয়ার জঙ্গিবিমান বিধ্বস্ত হয়। প্রশিক্ষণ মিশনে গোরাকপুর বিমান ঘাঁটি থেকে উড্ডয়নের পরপরই বিস্ফোরণে আগুনের গোলায় পরিণত হয় জাগুয়ার। তবে পাইলট নিরাপদে বেরিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

ফেব্রুয়ারি মাসে বেঙ্গালুরুতে এরো ইন্ডিয়া প্রদর্শনী শুরুর একদিন আগে আইএএফের দুটি হক প্রশিক্ষণ বিমান মুখোমুখি সংঘর্ষে ধ্বংস হয়। এতে এক পাইলটের মৃত্যু হয়।

ফেব্রুয়ারিতে আরো একটি মিরেজ ২০০০ ও একটি মিগ-২৭ বিধ্বস্ত হয়। পরীক্ষামূলক উড্ডয়নকালে বেঙ্গালুরুর ইয়েমলুর এয়ারপোর্টে বিধ্বস্ত হয় মিরেজ। এতে এক পাইলট নিহত হয়। আর প্রশিক্ষণ মিশনে থাকা মিগ-২৭ বিধ্বস্ত হয় রাজস্তানের পোখরান রেঞ্জের কাছে।

মার্চে জোধপুর থেকে রুটিন মিশনে উড্ডয়নের পর একটি মিগ ২৭ জঙ্গিবিমান সিরোহির শেওগঞ্জের কাছে গদানায় বিধ্বস্ত হয়।

সর্বশেষ নিখোঁজ হওয়ার আট দিন পর ১১ জুনএন-৩২ বিমানটির ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়া গেছে। ৩ জুন আসামের জোরহাট ঘাঁটি থেকে উড্ডয়নের পর এটি রাডারের পর্দা থেকে হারিয়ে গিয়েছিলো। বিমানটি লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের কাছে অরুণাচলের এডভান্সড ল্যান্ডিং গ্রাউন্ড মেচুকা যাচ্ছিল। অরুণাচল প্রদেশের লিপোতে এর ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়া গেছে। সূত্র : এসএএম।



 

Show all comments
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১৩ জুন, ২০১৯, ১:২০ এএম says : 0
    ভারতের বিমান বাহিনী চেনাবাহীনি কোনো কাজের নয় ওদেরকে পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হোক। ওরা পাকিস্তানের মোকাবেলায় যেন বাহাদুর ইঁদুর। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

১৭ অক্টোবর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন