Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ সফর ১৪৪১ হিজরী

দেশে চরম স্বৈরতান্ত্রিক ব্যবস্থা বিরাজ করছে

স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে আ স ম রব

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জুন, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জেএসডি’র সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, দেশে আজ চরম স্বৈরতান্ত্রিক ব্যবস্থা বিরাজ করছে। মানুষের মৌলিক গণতান্ত্রিক অধিকার, ভোটাধিকার সবই কেড়ে নেয়া হয়েছে। গতকাল দলের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

আ স ম রব বলেন, স্বৈরতন্ত্র অবসানের জন্য সরকারবিরোধী স্বাধীনতার পক্ষের সকল দল ও শ্রেণী-পেশার অদলীয় সংগঠনসমূহকে নিয়ে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। দলের নেতা শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপনের শান্তিনগরের বাসভবনে আ স ম আবদুর রবের সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন, দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, এম এ গোফরান, মিসেস তানিয়া রব ও শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন প্রমুখ।

সভার প্রস্তাবে বলা হয়, ৩০ ডিসেম্বরের ভোট ২৯ ডিসেম্বর রাতে ডাকাতি করে সংসদ গঠন করা হয়েছে। এর পরবর্তী উপজেলা নির্বাচনেও সংঘটিত হয়েছে একই ধরনের ভোট ডাকাতি। গুম-খুন, লুট-পাট, দখলবাজি, নারী ও শিশুধর্ষণ চরম আকার ধারণ করেছে। কৃষি উন্নয়নের কথা বলে তাদের আটশত টাকা মনে খরচ করে উৎপাদিত ধান ফড়িয়াদের কাছে সাড়ে চারশ’ টাকায় বিক্রি করতে বাধ্য করা হয়েছে। অথচ এই ধানই বর্তমানে সরকার ফড়িয়াদের কাছ থেকে ১ হাজার ৪০ টাকা মণ কেনার উদ্যোগ নিয়েছে। দলীয় আনুগত্য ছাড়া কারো চাকরি হচ্ছে না বললেই চলে। দেশের জিডিপি ক্রমাগত বাড়ছে বলা হলেও বেকারত্বের হার দিন দিন বেড়েই চলছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার এ ধরনের আচরণের বিরুদ্ধে যাতে আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে উঠতে না পারে তার জন্য তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ হাজার হাজার রাজনৈতিক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাবন্দী করে রাখা হয়েছে।
বর্তমান এ স্বৈরতান্ত্রিক অবস্থার অবসানের জন্য স্বাধীনতার পক্ষের সরকারবিরোধী সকল রাজনৈতিক দল, অদলীয় সংগঠন ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার জনগণকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এর সাথে যুক্ত করে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। বেগম খালেদা জিয়াসহ সকল রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের মুক্তি, গণতান্ত্রিক ও ভোটাধিকার নিশ্চিতকরণ এবং গুম-খুন, লুট-পাট, ধর্ষণসহ সকল অগণতান্ত্রিক ও অমানবিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে গড়ে তুলতে হবে সর্বব্যাপী আন্দোলন।
নেতৃবৃন্দ বলেন, সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ-এর কথা মোতাবেক স্বাধীনতার রূপকার সিরাজুল আলম খানকে নিয়ে লেখা বই যদি কল্প-কাহিনী ও ইতিহাস বিকৃতি হয় তাহলে তোফায়েল আহমেদও একটি কল্পিত চরিত্র ও বিকৃত ব্যক্তিত্ব। উনি অতীতে বহু বক্তৃতায় বলেছেন, ৬৯, ৭০ এ আমি ছিলাম তোতা পাখি। সিরাজুল আলম খান সারা দিন এস এম হলের ক্যান্টিনে আমাকে যা শেখাতেন সমাবেশে যেয়ে আমি তোতা পাখির মতো তাই বলতাম। কারো ভয়ে আজ তোফায়েল আহমেদ-এর মতো লোকের এধরনের বিকৃত চর্চা সাজে না। সভায় এবছরের মধ্যে দলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের লক্ষে বিভিন্ন জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা, পৌরসভা ও শিল্পাঞ্চল ইউনিটের কাউন্সিল অনুষ্ঠান, কমিটি গঠন-পুন:গঠন এবং কেন্দ্রীয় কাউন্সিল প্রস্তুতি কমিটি গঠন ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা চলছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ