Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ২৪ জুলাই ২০১৯, ০৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

মার্কিন অভিযোগ নাকচ ইরানের

ওমান উপসাগরে দুটি তেলবাহী ট্যাঙ্কারে বিস্ফোরণের ঘটনা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ জুন, ২০১৯, ১২:০৯ এএম

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও ওমান উপসাগরে দুটি তেলবাহী ট্যাঙ্কারে বিস্ফোরণের জন্য ইরানকে দায়ী করেছেন। বৃহস্পতিবার কোকুয়া কারেজেস ও ফ্রন্ট আলটেয়ার নামের নৌযানদুটিতে ‘বিস্ফোরণের পর’ আগুন ধরে গেলে ইরানি উদ্ধারকারী দল ট্যাঙ্কার দুটির ৪৪ ক্রুকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়। সংযুক্ত আরব আমিরাতের পানি সীমায় চারটি ট্যাঙ্কারে ‘অন্তর্ঘাতমূলক হামলার’ একমাস পর এ ঘটনা ঘটলো। ওই ঘটনার জন্যও ওয়াশিংটন তেহরানকে দায় দিয়েছিল। শুক্রবার মার্কিন সামরিক বাহিনী তাদের অবস্থানের সপক্ষে একটি ভিডিও ফুটেজও প্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। ভিডিওতে বিস্ফোরণের ৮ ঘণ্টা পর ‘ইরানি রেভ্যুলেশনারি গার্ডের সদস্যদের একটি ট্যাঙ্কার থেকে অবিস্ফোরিত মাইন সরাতে দেখা যাচ্ছে’ বলেও দাবি তাদের। ‘অবিস্ফোরিত মাইনসহ’ ওই জাপানি নৌযানটির আগের ছবিও প্রকাশ করেছেন মার্কিন কর্মকর্তারা। তেহরানই ট্যাঙ্কারে হামলা চালানোর পর তাদের অবিস্ফোরিত মাইনগুলো খুলে নিয়েছে বলে ছবিও ও ভিডিওতে ইঙ্গিত করেছেন তারা। বৃহস্পতিবারের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত অপর ট্যাঙ্কারটি নরওয়ের। অপর দিকে ইরান তাদের বিরুদ্ধে আনীত ওমান উপসাগরে ট্যাঙ্কারে হামলার অভিযোগ ‘সুস্পষ্টভাবে প্রত্যাখ্যান’ করার কথা জানিয়েছে। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ইরান মিশন ওয়াশিংটনের অভিযোগের ‘কড়া নিন্দা’ জানায়। এর কয়েক ঘণ্টা পরই মার্কিন সেন্ট্রাল কমান্ড ওই ছবি ও ভিডিও ছাড়ে। ভিডিও বিষয়ে তেহরানের তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি। মে-তে সংযুক্ত আরব আমিরাতে হামলার অভিযোগও প্রত্যাখ্যান করেছিল ইরান। শিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটিকে যুক্তরাষ্ট্র দায়ী করলেও আরব আমিরাত তাদের তদন্ত প্রতিবেদনে সুনির্দিষ্ট কোনো দেশের দিকে আঙুল তোলেনি। বৃহস্পতিবারের ঘটনার পর বিশ্ববাজারে তেলের দাম ৪ শতাংশের মতো বেড়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। “যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যায়ন বলছে ইসলামিক প্রজাতন্ত্র ইরানই এ হামলার জন্য দায়ী। যেসব অস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে, হামলায় যে ধরণের বিশেষজ্ঞ প্রয়োজন, সম্প্রতি বিভিন্ন নৌযানে একইরকম হামলার ধরণ এবং ওই অঞ্চলে এ ধরনের সংবেদনশীল হামলার জন্য যে সম্পদ ও দক্ষতা প্রয়োজন তাতে পারদর্শী কোনো ছদ্মবেশি গোষ্ঠী ক্রিয়াশীল না থাকা- এসব তথ্যের ভিত্তিতে এ মূল্যায়ন করা হয়েছে,” ওয়াশিংটনে সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন মাইক পম্পেও। বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ওমান উপসাগরে হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করেছেন। কিন্তু তেহরানের উচ্চ পর্যায়ের এক কর্মকর্তা বলেছেন, এই হামলার সঙ্গে ইরানের কোনও সংযোগ নেই। এই বিষয়ে ইরানের সরকারি সংবাদ ইরনা জানায়, স্থানীয় সময় সকাল আটটা ৫০ মিনিটে দক্ষিণ ইরানের ২২ নটিক্যাল মাইল দূরে ফ্রন্ট আলতেয়ারে হামলা হয়। জাহাজে আগুন ধরে গেলে ২৩ জন নাবিক পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়েন। পাশ দিয়ে যাওয়া আরেকটি জাহাজ তাদের উদ্ধার করে। জাহাজটিতে হামলার পর তিনটি বিস্ফোরণ হয়। এক ঘণ্টা পর সিঙ্গাপুরের মালিকানাধীন ‘কোকুকা কারেজিয়াস’ নামের আরেকটি জাহাজে আগুন লাগে। জাহাজটির ২১ জন নাবিক পানিতে লাফ দেন। পরে তাদের উদ্ধার করা হয় বলে জানায় সংবাদ সংস্থাটি। এর আগে গত ১২ মে সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে ওমান উপসাগরে চারটি তেলবাহী জাহাজে হামলা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বল্টন হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করেন। রয়টার্স, বিবিসি, ইরনা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইরান

১০ জুলাই, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ