Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

বজ্রপাতে নিহত ৮

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ জুন, ২০১৯, ১২:০৭ এএম

দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে গতকাল কলেজছাত্রসহ ৮ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে পাবনার বেড়া ও ভাঙ্গুড়ায় পৃথক তিনটি স্থানে তরুণীসহ পাঁচ, নেত্রকোনায় এক যুবক, হবিগঞ্জে এক কলেজছাত্র ও নাটোরের এক বৃদ্ধা।
পাবনা : পাবনার বেড়া ও ভাঙ্গুড়ায় পৃথক তিনটি স্থানে বজ্রপাতে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা সবাই মাঠে কাজ করতে গিয়েছিলেন। নিহতরা হলেন- বেড়া উপজেলার নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নের আগবাকশোয়া গ্রামের জিনাত প্রামাণিকের ছেলে মান্নান প্রামাণিক (৫৮), হবিবর প্রামাণিকের ছেলে সালাম প্রামাণিক (৫০), মনসের সেখের ছেলে আনসার সেখ (৬০), চর বোরামারা গ্রামের তমসের ব্যাপারীর মেয়ে নাছিমা খাতুন (১৩) ও ভাঙ্গুড়া উপজেলার ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের নৌবাড়িয়া গ্রামের হারান আলীর ছেলে শামীম আহমেদ (৩৫)।
বেড়ার বোরামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ফেরদৌস তপন জানান, চর বোরামারা গ্রামে তমসের ব্যাপারীর মেয়ে নাছিমা খাতুন বাড়ির পাশের মাঠে পরিবারের অন্যদের সঙ্গে বাদাম তুলতে গিয়ে বজ্রপাতে আহত হয়। আহত অবস্থায় তাকে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত নাছিমা খাতুন নতুন ভারেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।
নতুন ভারেঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন জানান, আগবাকশোয়া গ্রামের তিন কৃষক বাড়ির পাশের মাঠ থেকে গরুর জন্য ঘাস কেটে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় পথে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তারা মারা যান।একই দিনে একই এলাকার চারজনের অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
এদিকে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের নৌবাড়িয়া গ্রামের মাঠে বজ্রপাতে শামীম আহমেদ (৩৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, শামীম গরুকে ঘাস খাওয়াতে দুপুরে গ্রামের মাঠে গিয়েছিলেন। বজ্রপাতে তিনি মারাত্মকভাবে আহত হন। পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
নেত্রকোনা : নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে ডোবার পানিতে ঠেলা জাল দিয়ে মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে এক যুবক নিহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার সকালে উপজেলা সদরের লক্ষীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত যুবক রফিকুল ইসলাম (৩০) ওই গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে।খালিয়াজুরী থানা পুলিশের ওসি এটিএম মাহমুদুল হক জানান, বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান ওই যুবক। লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যু মামলা হবে।
হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায় মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে সুজন মিয়া নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল ৬টার দিকে উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের আলিনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কলেজছাত্র সুজন আলিনগর (মেম্বার বাড়ি) গ্রামের সফিক মিয়ার ছেলে। সে গাজীপুর হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের এইএসসির ছাত্র ছিল। স্থানীয়রা জানায়, ভোরে বৃষ্টির মধ্যে শখের বসে বাড়ির পাশের জমিতে মাছ ধরতে যায় সুজন। তখন হঠাৎ বজ্রপাতে আহত হলে তাকে সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
একই সময় উপজেলার দেওরগাছ ইউনিয়নের চন্ডীছড়া চা বাগানের বেলাবিল এলাকায় কানা লাল মুন্ডার গোয়াল ঘরে বজ্রপাতে একটি মহিষ ও একটি গরু মারা যায়। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাসুদুল ইসলাম বলেন, সুজনের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হবে।
নাটোর : নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার মোল্লাবাজার এলাকায় বজ্রপাতে সুবিলি বেগম (৬০) নামে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার (১৪ জুন) দুপুরের দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সুবিলি ওই এলাকার মৃত নাসির উদ্দিনের স্ত্রী। নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবু বলেন, সুবিলি বেগম বাড়ির পাশে মাঠে ছাগল চড়াচ্ছিলেন। দুপুরের দিকে হঠাৎ ঝড়-বৃষ্টি শুরু হলে ছাগলসহ তিনি একটি আম গাছের নিচে আশ্রয় নেন। এসময় বজ্রপাত হলে দু’টি ছাগলসহ তিনি ঘটনাস্থলে মারা যান। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) অবহিত করা হয়েছে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বজ্রপাত


আরও
আরও পড়ুন