Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০১৯, ০৩ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

অনিয়মে ভিজিএফ চাল বিতরণ বন্ধ

পটিয়া (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০১৯, ১২:১০ এএম

চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার ছনহরা ইউনিয়নে হতদরিদ্র মানুষের সহায়তা প্রকল্প (ভিজিএফ) চাল বিতরণে অনিয়মের কারণে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে।

গত শুক্রবার উপজেলার ছনহরা ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে এই ঘটনা ঘটে। গতকাল শনিবার পর্যন্ত চাল বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়নি। ফলে হত দরিদ্রদের জন্য দেয়া সরকারি ভিজিএফ’র চাল পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ দৌলতী তার পছন্দসই এবং আর্থিক অবস্থা ভাল এমন ধরনের লোকজনের তালিকা দিয়ে এই চাল বিতরণ করতে চাইলে দরিদ্র লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় লোকজন ও যুবলীগ কর্মীরা চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসানকে জানালে ঘটনাস্থলে পুলিশ ও ইউএনও উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

জানা যায়, গত ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ত্রান ও দুর্যোগ মন্ত্রনালয় থেকে পটিয়া উপজেলার ১৭ ইউনিয়নের জন্য চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। ঈদের আগে উপজেলার প্রায় সব ইউনিয়নে চাল বিতরণ হলেও ছনহরা ইউনিয়নে চাল বিতরণ করা হয়নি। মূলত নামের তালিকা সমন্বয় করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ নির্দেশ দিয়েছেন। ঈদের আগে গরীব লোকের এসব চাল বিতরণ করার কথা থাকলেও চেয়ারম্যান ইচ্ছাকৃতভাবে এ চাল বিতরণ করেনি। স্থানীয় লোকজন চাল না পেয়ে উত্তেজিত হয়ে বিক্ষোভ শুরু করলে পুলিশ গিয়ে চেয়ারম্যান মেম্বারদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়। এই বিষয়ে পটিয়ার এমপি সামশুল হক চৌধুরীর উন্নয়ন সমন্বয়কারী আলমগীর খালেদ বলেন, চাল বিতরণে কিছু অনিয়মের অভিযোগ উঠায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ দৌলতী জানান সমন্বয় করে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ সত্য নয়।

পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান জানিয়েছেন নামের তালিকা সমন্বয় না করায় স্থানীয় লোকের ক্ষোভের কারণে চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন