Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯, ০২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৩ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

বরিস প্রধানমন্ত্রী হলে টোরি দল থেকে পদত্যাগ করব

যুক্তরাজ্যের মুসলিম নেতার ঘোষণা

দ্য গার্ডিয়ান | প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০১৯, ১২:০৮ এএম

যুক্তরাজ্যের কনজারভেটিভ মুসলিম ফোরামের চেয়ারম্যান এডলফ হিটলার ও বরিস জনসনের মধ্যে তুলনা টেনে বলেছেন, বহু ভয়ঙ্কর মানুষ আছেন যারা জনপ্রিয়। তিনি বলেন, যদি সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন কনজারভেটিভ দলের নেতা নির্বাচিত হন তাহলে তিনি টোরি পার্টি ত্যাগ করবেন। কনজারভেটিভ দলের দীর্ঘদিনের সদস্য মোহাম্মদ আমিন দলের নেতৃত্ব লাভের পথে এগিয়ে থাকা বরিস জনসনকে একজন ভাঁড় বলে আখ্যায়িত করেন। জনসন যেভাবে নিজের স্বার্থে নিকাব ও হিজাব পরা মুসলিম মহিলাদের উপহাস করেছেন, আমিন তার সমালোচনা করেন।

তিনি বিবিসি রেডিও ৪-এর টুডে অনুষ্ঠানে বলেন, তার মত লোককে যে দলের নেতা করা হয় সে দলের সদস্য থাকতে আমি প্রস্তুত নই। তা করা হলে ৩৬ বছরের দল থেকে আমি পদত্যাগ করব।

দলের সদস্যদের মধ্যে জনসনের জনপ্রিয়তা বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, বহ ভয়ঙ্কর লোক আছেন যারা জনপ্রিয় হয়েছেন। জনপ্রিয়তা কোনো পরীক্ষা নয়। পরীক্ষা হচ্ছে মানুষটি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য নৈতিকভাবে যথেষ্ট যোগ্য কিনা। আমার বিশ্বাস, তিনি এ পরীক্ষায় ব্যর্থ হবেন।

জনসনের জনপ্রিয়তাকে মোহাম্মদ আমিন নাজি স্বৈরশাসক হিটলারের সঙ্গে তুলনা করে বলেন, বহু জার্মান মনে করে যে হিটলার তাদের জন্য সঠিক ব্যক্তি ছিলেন। এই তুলনাকে দুঃখজনক বলে আখ্যায়িত করে মোহাম্মদ আমিন বলেন, আমি এটা বলছি না যে বরিস জনসন লোকজনকে গ্যাস চেম্বারে পাঠাতে চান। সুস্পষ্ট কথা তিনি তা করবেন না। তিনি একজন ভাঁড়। কিন্তু আমি যতটা জানি, সত্যের জন্য তার উদ্বেগ যথেষ্ট নয়। তাই তিনি নেতৃত্ব দিলে আমি আর সে দলে থাকতে পারি না।

মোহাম্মদ আমিন আরো বলেন, আমাদের রাজনীতিকরা, আমাদের প্রধানমন্ত্রী সাধু হবেন এটা আমরা প্রত্যাশা করি না। কিন্তু আমরা তাদের কাছে মৌলিক পর্যায়ের নৈতিকতা ও সততা আশা করি। কনজারভেটিভ পার্টির নেতা নির্বাচনের সকল প্রার্থীর মধ্যে বরিস জনসন একমাত্র ব্যক্তি যিনি এই পরীক্ষায় ব্যর্থ হবেন।

তিনি দাবি করেন, লন্ডনের দুই বারের মেয়র গত বছরের আগস্টে বোরকা পরিহিতা নারীদের লেটার বক্স ও ব্যাংক ডাকাতদের সাথে তুলনা করে তাদের ঝুঁকির মুখে ফেলে দেন।

তিনি বলেন, বরিস জনসন ঠিকই জানতেন এর কি প্রভাব পড়বে। এটা নিকাব ও বোরকা পরা মুসলমান নারীদের রাস্তায় মৌখিক অপমান, নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে শারীরিক হামলার শিকার করে, কোনো কোনো স্থানে লোকজন তা ছিঁড়ে ফেলার চেষ্টা করে। তিনি তার নিজের স্বার্থসিদ্ধির জন্য নিকাব ও বোরকা পরিহিতা মুসলমান নারীদের সাথে উপহাসের পথ বেছে নেন।

জনসনের সমর্থক সাবেক আন্তর্জাতিক উন্নয়নমন্ত্রী প্রীতি প্যাটেল বলেন, আমিনের কিছু মন্তব্য বিষয়ে যুক্তি দেখান যে যেভাবে বলা হচ্ছে জনসন সেভাবে মুসলমান নারীদের সাথে উপহাস করেননি। তিনি আমিনকে জনসনের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত রাগ প্রকাশের জন্য অভিযুক্ত করেন।

প্রীতি বলেন, আমাদের দলের একজন সদস্য যে এভাবে উপলব্ধি করেন তা জেনে আমি দুঃখিত, আমি তা সমর্থন করি না। জনসন নারী-পুরুষের সমতায় বিশ্বাস করেন। নারী স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন ও তা রক্ষা করবেন।

যেসব কাউন্সিলর ইসলাম বিরোধী মন্তব্য করেছিলেন তাদের সাসপেন্ড করার জন্য কনজারভেটিভরা চাপের মুখে ছিলেন। গত মাসে আমিন বলেন, মুসলিম বিরোধী বিদ্বেষ প্রচারের ক্ষেত্রে দলের শৃঙ্খলামূলক প্রক্রিয়ায় তিনি আস্থা হারিয়েছেন।



 

Show all comments
  • md.samshuddin ১৬ জুন, ২০১৯, ১:৪০ এএম says : 0
    সাব্বাস, এই না হলো মুসলিম নেতা।
    Total Reply(0) Reply
  • Mirza Anik Hasan ১৬ জুন, ২০১৯, ১:৪২ এএম says : 0
    বরিসের মত এই রকম একজন ভয়ঙ্কর মুসলিম বিদ্বেষী ব্যক্তি ব্রিটিনের মতো জায়গায় শীর্ষ নেতৃত্বে আসলে ব্রিটেনের দীর্ঘদিনের সম্প্রীতি হুমকির মুখে পড়বে।
    Total Reply(0) Reply
  • Sahriar Kibria ১৬ জুন, ২০১৯, ১:৪৩ এএম says : 0
    বরিসকে যেভাবেই হোক নেতা নির্বাচিত হওয়া থেকে ফেঠাতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • গুলাম ১৬ জুন, ২০১৯, ১:৪৪ এএম says : 0
    মুসলিমদের এই রকমই হওয়া উচিত। মুসলিম কখনও দুর্বল ও ভীতু হতে পারে না।
    Total Reply(0) Reply
  • সাখাওয়াত হোসেন উজ্জ্বল ১৬ জুন, ২০১৯, ১:৪৪ এএম says : 0
    বরিসকে সকল মুসলমানদের বয়কট করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন