Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯, ০১ শ্রাবণ ১৪২৬, ১২ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

ভোলায় চাঁদাবাজি মামলায় জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি পাপন জেলে

ভোলা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ জুন, ২০১৯, ৫:৫৫ পিএম

ভোলা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম চৌধুরী পাপনকে চাঁদাবাজির মামলায় আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে ভোলা থানা পুলিশ। মঙ্গলবার রাত আনুমানিক ১২টা ১৫ মিনিটের দিকে ভোলা সরকারি কলেজের সামনের পাপনের বাড়ির দরজা থেকে তাকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভোলা ছাত্রলীগের নেতারা।
ছাত্রলীগ নেতারা জানান, মঙ্গলবার রাত আনুমানিক ১২ টা ১৫ মিনিটের দিকে পুলিশের ২ টি পিকআপ ভ্যান ও ৬ থেকে ৭ টি মোটর বাইক ভোলা কলেজের সামনে তার বাড়ির দরজা থেকে তাকে আটক করে নিয়ে যায়। ছাত্রলীগ নেতা মুশফিক জানান,কয়েক দিন যাবৎ ভোলায় ছাত্রলীগের দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দল চলে আসছে। এই নিয়ে ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ ছাত্রলীগের কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচিত জেলা কমিটি ভেঙ্গে দিতে কয়েক দিন ধরে বিক্ষোভ সমাবেশ করে আসছেন। গত কালও সদর রোডে মিছিল সমাবেশ করেছে নূতন পদ প্রত্যাশিরা। দলীয় অভ্যন্তরীণ ক্রোন্দল ছাড়া আর কিছুই দেখছেন না তার পরিবার। এদিকে তার মুক্তির জন্য কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতাসহ ভোলার ছাত্রলীগ নেতারাও দাবী জানিয়েছে। তার মুক্তি চেয়েছেন ছাত্রলীগ, যযুবলীগসহ বিভিন্ন সসংগঠন। তবে তার গ্রেফতার নিয়ে সদর মডেল থানার ওসি সগির মিয়া জানান, তার বিরুদ্বে চাঁদাবাজিসহ ৪টি মামলা রয়েছে। তবে তাকে চাঁদাবাজি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তবে তার পরিবার দাবি করেছেন গতকাল রাত পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন মামলা ছিলনা তাকে পুলিশ ধরে নিয়ে চাঁদাবাজি মামলা দিয়ে জেলে পাঠিয়েছে।সে আভ্যন্তরীন কোন্দলের রাজনীতির স্বীকার। কাকতালীয় ব্যাপার হল ভোলা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমেদ শাহীন ও বর্তমান সভাপতি পাপন উভয়ই এক সাথে একই কারাগারে অবস্থান করছেন। এ নিয়ে ভোলার মানুষের মাঝে চলছে টক অব আলোচনা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ছাত্রলীগ সভাপতি
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ