Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০৮ ভাদ্র ১৪২৬, ২১ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

জীবন রাঙাতে সৌন্দর্য্য বাড়াতে বেক্সিমকোর রিয়েল ভিউ

প্রকাশের সময় : ২ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ফারুক হোসাইন : জীবনকে রাঙিয়ে দিতে এবং নগরের সৌন্দর্য্য বাড়াতে দেশে প্রথমবারের মতো চালু হয়েছে ডিরেক্ট-টু-হোম কানেকশন (ডিটিএইচ) রিয়েল ভিউ। তারবিহীন নতুন এই প্রযুক্তি বাংলাদেশের দর্শকদের টিভি দেখার অভিজ্ঞতা বদলে দিয়েছে সম্পূর্ণরূপে। পাশাপাশি তারবিহীন এই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে রাজধানীসহ সারাদেশের সড়কগুলোও যেমন ঝুলন্ত তারমুক্ত হবে তেমনি বাসা বাড়ির নিরাপত্তাও নিশ্চিত হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। সেবাটি প্রদান করছে বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্স লিমিটেড। প্রথম দফায় বেক্সিমকো ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ৩২ জেলায় ডিটিএইচ সেবা প্রদান করছে। চলতি বছরের আগস্টের মধ্যে ট্রেড পার্টনার নেটওয়ার্ক দেশের সকল বিভাগে ছড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্সের প্রধান নির্বাহী দিমিত্রি লেপিস্কি। নতুন এই প্রযুক্তির ফলে শহরের সৌন্দর্য্য ও রঙিন জগতের পরিবর্তন সম্পর্কে রিয়েল ভিউ এর চিফ মার্কেটিং অফিসার আদনান আহমদ বলেন, রিয়েল ভিউ গ্রাহকেরা প্যাকেজের আওতায় ১০৫টি চ্যানেল দেখতে পারবেন ডিজিটাল মানে ঝকঝকে ছবি এবং পরিষ্কার শব্দ। পাঁচটি এইচডি (হাই ডেফিনেশন) চ্যানেলসহ সকল জনপ্রিয় চ্যানেল থাকছে তালিকাতে। এছাড়া অন্যান্য সুবিধা যেমন অনুষ্ঠান রেকর্ড করে রাখা এবং স্মার্ট ইলেকট্রনিক প্রোগ্রাম গাইড ব্যবহার প্রভৃতি উপভোগ করতে পারবেন গ্রাহকেরা। আর এই সংযোগটির জন্য কোন ধরনের তারের ঝামেলাই থাকছে না।
রাজধানীর মূল সড়ক বা গলি পথে ঝুলন্ত তারের জটলা দীর্ঘদিনের। সরকারের সংশ্লিষ্ট দুই প্রতিষ্ঠান বিদ্যুৎ বিভাগ ও টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (বিটিআরসি) গত পাঁচ বছর ধরে দফায় দফায় উদ্যোগ নিয়েই এ বিষয়ে কার্যকর কোন সমাধান করতে পারেনি। শহরের রাস্তাজুড়ে ঝুলে থাকা তারগুলোর বেশিরভাগই ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার এবং ক্যাবল অপারেটরদের। সড়কের বিদ্যুতের পিলারে বট গাছের ঝুরির মতো ঝুলে থাকা তারের কারণে দুর্ঘটনাও ঘটছে নিয়মিত। এছাড়া ডিস সংযোগ সচল বা সমস্যা সমাধানের অজুহাতে বিভিন্ন বাসায় ঢুকে ছিনতাই বা চুরিও নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। রিয়েল ভিউ এই প্রযুক্তির মাধ্যমে একদিকে যেমন স্যাটেলাইট থেকে সরাসরি টেলিভিশন সিগন্যাল গ্রহণের মাধ্যমে গ্রাহকেরা বিভিন্ন চ্যানেল দেখতে পাবেন। অন্যদিকে শহরগুলোর তার জঞ্জালমুক্ত হয়ে বাড়বে সৌন্দর্য্য এবং বাসাবাড়ির নিরাপত্তাও নিশ্চিত হবে বলে জানিয়েছেন রিয়েল ভিউর সাথে সংশ্লিষ্টরা এবং প্রযুক্তিবিদরা।
সম্প্রতি রিয়েল ভিউ এর চিফ মার্কেটিং অফিসার আদনান আহমদ ইনকিলাবকে বলেন, ডিটিএইচ এমন একটি ডিজিটাল টেলিভিশন ডিস্ট্রিবিউশন সেবা যেখানে গ্রাহক সরাসরি স্যাটেলাইট থেকে বাসায় স্থাপিত ডিজিটাল সেট টপ বক্সের মাধ্যমে টিভি সিগন্যাল গ্রহণ করতে পারবে। বর্তমানে প্রচলিত যে কেবলের মাধ্যমে দর্শকরা টিভি দেখে থাকেন সে কেবলের আর প্রয়োজন থাকবে না ডিটিএইচ সেবা গ্রহণ করার পর। আর টিভি দর্শকদের টিভি দেখার অভিজ্ঞতায় আমূল পরিবর্তন আনবে এই সেবা। কারণ রিয়েল ভিউ এর ছবি অ্যানালগ কেবল টিভির ছবির চেয়ে অনেক গুণ ভালো হবে বলেও জানান তিনি। এজন্য একজন গ্রাহককে প্রতিমাসে ৩০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে। গ্রাহকদের সুবিধার কথা চিন্তা করে, বিল পরিশোধের জন্য স্ক্র্যাচ কার্ড, মোবাইল পেমেন্ট (বিকাশ, ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং, আইএফআইসি মোবাইল ব্যাংকিং, শিওরক্যাশ, ইউক্যাশ ইত্যাদি)। এছাড়া ব্যাংক কার্ডের মাধ্যমে বিল পরিশোধের সুযোগ রাখা হয়েছে।
আদনান আহমদ জানান, রিয়েল ভিউ সেবা নিতে একজন গ্রাহকের দরকার পড়বে একটি সেট টপ বক্স এবং ডিশ অ্যান্টেনা। ইন্সটলেশন এবং মূল্য পরিশোধের পরই একজন গ্রাহক ডিটিএইচ সেবা উপভোগ করতে পারবেন। সট-টপ বক্স ও ডিশ অ্যান্টেনার মূল্য ভ্যাটসহ পাঁচ হাজার ১৭৪ টাকা। গ্রাহকদের জন্য সেট-টপ বক্স এ দুই বছরের ওয়ারেন্টি প্রদান করবে রিয়েল ভিউ। রিয়েল ভিউয়ের স্বীকৃত ট্রেড পার্টনারদের ইন্সটলাররা গ্রাহকদের ইন্সটলেশন সুবিধা প্রদান করবে। ইতোমধ্যে দেশের ৩২টি জেলায় ২৫০টির বেশি ট্রেড পার্টনার এই সেবা প্রদানের জন্য কাজ করছে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়। রিয়েল ভিউ এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, ডিশ অ্যান্টেনা স্যাটেলাইটের দিকে তাক করে বাসার দেয়াল, বারান্দা কিংবা ছাদে বসানো যাবে। গ্রাহকরা সহজেই ১৬৪৪২, ০৯৬০৯৯৯৯০০০ এর মাধ্যমে দিনরাত ২৪ ঘণ্টা কাস্টমার কেয়ার সুবিধা পাচ্ছেন এখন থেকেই।
গত ১৪ এপ্রিল থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে এই সেবা চালু করেছে রিয়েল ভিউ। ইতোমধ্যে প্রচুর পরিমাণে সাড়াও পাচ্ছে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়।
এর আগে ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশের সরকার বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্স লিমিটেডকে দেশে ডিটিএইচ সেবা চালুর লাইসেন্স প্রদান করে।



 

Show all comments
  • Nur Hossain ১৮ অক্টোবর, ২০১৭, ৩:২৭ পিএম says : 0
    মাসিক বিলটা কমানোর দরকার।প্রথমেইতো ৫০০০ হাজার খরচ তারপর আবার ৩০০ মাসিক বিল একটু ব্যায়বহুল হয়েযাচ্ছেনা? বিলটা অর্ধেক করলে ভালোহয়।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ