Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী

উড়ছেন উইলিয়ামসন

বয়স বেড়ে গেছে ডু প্লেসিসের!

স্পোর্টস ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২১ জুন, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

লক্ষ্যটা খুব বড় ছিল না। ছিল না রান রেটের চাপও। তবে পরিস্থিতি ছিল বিরুদ্ধ। এক পর্যায়ে আট রানের মধ্যে তিন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চাপে পড়ে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তুললেন কেন উইলিয়ামসন। অসাধারণ এক সেঞ্চুরিতে মাঠ ছাড়লেন বিজয়ীর বেশে। প্রথমবারের মতো জিতলেন বিশ্বকাপে ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

গতপরশু বার্মিহ্যামের এজবাস্টনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের ৪ উইকেটের জয়ের নায়ক দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া উইলিয়ামসন। ১৩৮ বলে ৯ চার ও এক ছক্কায় অপরাজিত থাকেন ১০৬ রানে। ওয়ানডেতে এটি তার দ্বাদশ সেঞ্চুরি, বিশ্বকাপে প্রথম। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এ নিয়ে দ্বাদশবার ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতলেন উইলিয়ামসন। আর বিশ্বকাপের টানা দ্বিতীয় আসরে খেলা ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান ক্রিকেটের সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতায় সপ্তদশ ম্যাচে এসে পুরস্কারটি জিতলেন প্রথমবার।

বোলারদের জন্য যথেষ্ট সহায়তা আছে এমন উইকেটে কিভাবে ইনিংস গড়তে হয়, কিভাবে দলকে এগিয়ে নিতে হয় তার উদাহরণ হয়ে থাকবে উইলিয়ামসনের এই ইনিংস। আর তার নিজের জন্য ম্যাচটি হয়ে থাকবে অসাধারণ এক অর্জনের। অধিনায়ক হিসেবে ছুঁলেন তিন হাজার রানের মাইলফলক। তিন নম্বরে করলেন পাঁচ হাজার রান। অব্যাহত রাখলেন দলের অজেয় যাত্রা। অধিনায়কোচিত ইনিংসে দলকে তুললেন পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে। গত আসরের রানার্সআপদের শেষ চারের পথে এগিয়ে নিলেন আরেক ধাপ।

একদিকে যখন কিউই দলপতি উঠে গেছেন আত্মবিশ্বাসের সপ্তম আকাশে, ঠিক তার উল্টো চিত্র দক্ষিন আফ্রিকা শিবিরে। ম্যাচটা জিতলে তবু আশা উজ্জ্বল হতো। কিন্তু পারেনি প্রোটিয়ারা। এবারের আসরে এটি তাদের চতুর্থ হার। তারা জিতেছে মাত্র এক ম্যাচে। বাকিটি পরিত্যক্ত হয়েছে। ছয় ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার আট নম্বরে তারা। তাদের হাতে রয়েছে আরও তিনটি ম্যাচ। তবে অবিশ্বাস্য কিছু না ঘটলে প্রোটিয়াদের শেষ চারে খেলার সম্ভাবনা একেবারেই নেই। কাগজে-কলমে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলার স্বপ্ন এখনও বেঁচে আছে দলটির। তবে বাস্তবতা বলছে, এবার গ্রুপ পর্বেই থামতে হচ্ছে প্রোটিয়াদের। দলের বেহাল দশার প্রভাব পড়েছে অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসিসের ওপরও।
দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়কের মানসিক অবস্থা এতটাই নিচে পৌঁছে গেছে যে, বয়স পাঁচ বছর বেড়ে যাওয়ার অনুভূতি হচ্ছে তার। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে ডু প্লেসি জানান, ‘আপনারা বুঝতেই পারছেন ড্রেসিং রুমের অবস্থা কেমন। খেলোয়াড়রা কষ্ট পাচ্ছে। মনে হচ্ছে, আমার বয়স পাঁচ বছর বেড়ে গেছে। আমি খুব ক্লান্ত বোধ করছি। আমরা সেরা চেষ্টাটাই করেছিলাম। আর অধিনায়ক হিসেবে এর চেয়ে বেশি কিছু আমি চাইতে পারি না। খেলোয়াড়রা লড়াই করেছে। তারা সেটা দেখিয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা প্রতিপক্ষের মতো ততটা ভালো খেলিনি। এটা দক্ষতার বিষয়, (জয়ের) ক্ষুধা থেকে এটা আসে না। এটার জন্য আমি দলকে দায়ী করতে পারি না।’ দলকে সান্ত¡না দেবেন কি, দক্ষিণ আফ্রিকার এমন বিপর্যয়ে ডু প্লেসিস নিজেই একেবারে কুকড়ে গিয়েছেন, ‘আমাদের ব্যর্থতা ভুলে নতুন করে শুরু করতে হবে। একজন অধিনায়ক হিসেবে আমি আর কী বলতে পারি!’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ