Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯, ০২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৩ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

পীরগাছায় কাজ না করেই টাকা উত্তোলনের চেষ্টা!

পীরগাছা (রংপুর) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৫ জুন, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

রংপুরের পীরগাছায় এক শ’ ৭৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিপরীতে ববাদ্দ পাওয়া প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ভুয়া বিল ভাউচার দিয়ে উত্তোলন করে আত্মসাতের পাঁয়তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১৮ জুন এই অর্থ বরাদ্দ দেয়া হলেও ব্যয় দেখিয়ে ৩০ জুনের মধ্যে টাকা উত্তোলনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। ফলে কাজ ছাড়াই ভুয়া বিল-ভাউচার দিয়ে অর্থ উত্তোলন করে লুট-পাটের জন্য মাঠে নেমেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, পীরগাছা উপজেলার এক শ’ ৭৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতিটিতে দুই লাখ টাকা করে সংস্কার কাজের জন্য প্রায় তিন কোটি ৫৬ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় প্রাথমিক বিদ্যালযের চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচী (পিইডিপি-৪)। গত ১৮ জুন উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় বরাদ্দকৃত অর্থের বিপরীতে ৩০ জুনের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করার পত্র পান। কিন্তু ৩০ জুনের মধ্যে স্টিমেট তৈরী ও কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব না হলে টাকা ফেরত যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

এদিকে সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষ এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয়ে রাতা-রাতি প্রতিটি বিদ্যালয়ের বিপরীতে স্টিমেট তৈরী করে ভুয়া বিল ভাউচার জমা নিয়ে অর্থ উত্তোলনের পায়তারা করছেন।

সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তা জানান, ভুয়া বিল ভাউচার দিয়ে প্রতিষ্ঠানের প্রধান, প্রকৌশলী কার্যালয় ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তারা যোগসাজসে ৩০ জুনের আগে টাকা উত্তোলন করে এ বিপুল পরিমান অর্থ আত্মসাত করার পায়তারা করছে।

উপজেলা প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম জানান, ৩০ জুনের মধ্যে স্টিমেট তৈরি ও কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব না হওয়ায় স্টিমেট তৈরী করে বিল ভাউচার জমা নেয়া হচ্ছে। টাকা উত্তোলনের বিষয়টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বলতে পারবেন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রফিক-উজ-জামান বলেন, নির্দিষ্ট সময়ে কাজ করা সম্ভব না হওয়ায় টাকা উত্তোলন করে ব্যক্তিগত একাউন্টে জমা রাখা হবে। পরে কাজ শেষে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধানদের মাঝে বিতরণ করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন