Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

সুন্দর মৃত্যুর জন্য

মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ ফাহাদ | প্রকাশের সময় : ২৬ জুন, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

জীবনের সময়টুকুই একজন মানুষের ইহকালীন মূলধন। যদি তা আখেরাতের কল্যাণের ক্ষেত্রে কাজে লাগানো হয় তবেই ব্যবসা সফল হবে। আর যদি তা বিনষ্ট করা হয় গুনাহ ও পাপাচারে এবং এ অবস্থায় আল্লাহর সাথে বান্দার সাক্ষাৎ হয় তাহলে সে হবে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত। তাই বুদ্ধিমান সে-ই, যে নিজের হিসাব নেয়, আল্লাহ তার কাছ থেকে হিসাব নেয়ার আগে এবং গুনাহ ও পাপাচার থেকে দূরে থাকে তা তাকে ধ্বংসের পথে নেয়ার আগেই।
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. বলেন, ‘ঈমানদার ব্যক্তি গুনাহকে এমন মনে করে, যেন সে কোনো পাহাড়ের নিচে বসে আছে। আর যে কোনো মুহূর্তে পাহাড়টি তার ওপর ধ্বসে পড়তে পারে।’(সহীহ বুখারী ১১/৮৯)। পক্ষান্তরে অনেক মানুষ এমনও আছে, যারা বেপরোয়াভাবে পাপাচারে লিপ্ত থাকে। সে চিন্তাই করে না, কার অবাধ্যতায় সে লিপ্ত! একপর্যায়ে তার শেষ সময়টি এসে যায় এবং তার মৃত্যু হয়-আল্লাহ হেফাজত করুন-অশুভ মৃত্যু!

হযরত আনাস ইবনে মালিক রা. বলেন, তোমরা এমন অনেক কাজে লিপ্ত হও, যা তোমাদের দৃষ্টিতে চুলের চেয়ে তুচ্ছ। অথচ আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর যুগে এগুলোকেই আমরা সংহারক কর্ম বলে গণ্য করতাম। (সহীহ বুখারী ১১/২৮৩)। স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা সুন্দর মৃত্যুর জন্য সতর্ক করেছেন।

তিনি ইরশাদ করেছেন, (তরজমা) হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহকে যথার্থভাবে ভয় করো এবং তোমরা আত্মসমর্পণকারী না হয়ে কোনো অবস্থায়ই মৃত্যুবরণ করো না। (সূরা আল ইমরান (৩) : ১০২)। অন্যত্র ইরশাদ করেছেন, (তরজমা) তোমার মৃত্যু উপস্থিত হওয়া পর্যন্ত তুমি তোমার প্রতিপালকের ইবাদত করো। (সূরা হিজর (১৫) : ৯৯)। সুতরাং তাকওয়া ও ইবাদতের নির্দেশ মৃত্যু অবধি বলবৎ থাকবে, যেন শুভ অবস্থায় মৃত্যু লাভ হয়।
আমল ও ভয় : হাদিস শরীফে একথাও বলা হয়েছে যে, কিছু মানুষ জীবনভর ইবাদত করে এবং গুনাহ থেকে বেঁচে থাকে। কিন্তু মৃত্যুর নিকটবর্তী সময়ে পাপাচারে লিপ্ত হয়। ফলে তার মৃত্যু হয় অশুভ অবস্থায়। আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ব্যক্তি জান্নাতীদের আমল করতে থাকে, এমনকি তার মাঝে ও জান্নাতের মাঝে শুধু এক হাত দূরত্ব অবশিষ্ট থাকে। এমন সময় তার তাকদীর অগ্রগামী হয় এবং সে জাহান্নামীদের আমলে লিপ্ত হয়ে যায়। অবশেষে তার ঠিকানা হয় জাহান্নাম। (সহীহ বুখারী ১১/৪১৭; সহীহ মুসলিম, হাদীস : ২৬৪৩)।

সাহল ইবনে সাদ রা. থেকে বর্ণিত হাদিসে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সঙ্গে এক যুদ্ধে জনৈক ব্যক্তি এত বীরত্বের সাথে লড়াই করছিল যে, সাহাবায়ে কেরাম তা দেখে বিস্ময় বোধ করলেন এবং বললেন, আজ (যুদ্ধের ময়দানে) সে আমাদের যতটা উপকার করেছে আর কেউ তা করতে পারেনি।

আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, সে তো জাহান্নামী। জনৈক সাহাবী আরজ করলেন, সে যদি জাহান্নামী হয় তাহলে আমাদের মধ্যে আর কে জান্নাতী হবে? একজন বললেন, আমি তার সাথে থাকব এবং দেখব, সে কী করে। তার বর্ণনা- লোকটি লড়াইয়ের একপর্যায়ে মারাত্মকভাবে আহত হলো এবং কষ্ট থেকে মুক্তির জন্য তলোয়ারের অগ্রভাগ বুকে ঠেকিয়ে তার ওপর ঝাঁপ দিলো এবং আত্মহত্যা করল।
এ দৃশ্য দেখে ঐ ব্যক্তি আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট ফিরে এলেন এবং বলতে লাগলেন, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, নিশ্চয়ই আপনি আল্লাহর রাসূল। আল্লাহর রাসূল জিজ্ঞাসা করলেন, কী হয়েছে? তিনি তখন পূর্ণ ঘটনা সবিস্তারে বর্ণনা করলেন।

তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, নিশ্চয়ই মানুষ এমন আমল করে, যা মানুষের দৃষ্টিতে জান্নাতীদের আমল, কিন্তু (আল্লাহর কাছে) সে জাহান্নামীদের অন্তর্ভুক্ত। আবার কেউ এমন আমল করে, আপাতদৃষ্টিতে যা জাহান্নামীদের আমল, কিন্তু (আল্লাহর কাছে) সে জান্নাতীদের অন্তর্ভুক্ত।



 

Show all comments
  • MK Moni ২৬ জুন, ২০১৯, ২:০২ এএম says : 0
    মৃত্যু অনিবার্য সত্য। অমোঘ-অপরিবর্তনীয় এ বিধান থেকে কেউ রেহাই পায় না। মানুষের কর্ম ও আমল হিসেবে মৃত্যু বিভিন্ন রকমের হয়। কারো হয় সুন্দর ও সুখানন্দে। কারো হয় নিদারুণ খারাপ ও কুৎসিতভাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • তবিবুর রহমান ২৬ জুন, ২০১৯, ২:০২ এএম says : 0
    প্রত্যেকেই শুভ পরিণাম প্রত্যাশা করে। একজন মুমিনের পরম প্রত্যাশিত বস্তু হলো ইমানের সঙ্গে মৃত্যুর সৌভাগ্য লাভ করা।
    Total Reply(0) Reply
  • শহিদুল খান জেএসজি ২৬ জুন, ২০১৯, ২:০৩ এএম says : 0
    কোনো মুমিনের শেষ পরিণাম ভালো হওয়ার আলামত হলো, মৃত্যুর আগেই সে যাবতীয় পাপ থেকে তাওবা করে নিজেকে শুধরে নেওয়া। ভালো কাজ ও আল্লাহর আনুগত্যের প্রতি ক্রমেই ধাবিত হওয়া। আমলি জিন্দেগিতে তার মৃত্যু হওয়া।
    Total Reply(0) Reply
  • Monir mamun ২৬ জুন, ২০১৯, ২:০৩ এএম says : 0
    আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, ‘ঈমানদার ব্যক্তি গুনাহকে এমন মনে করেন, যেন তিনি কোনো পাহাড়ের নিচে বসে আছেন। আর যেকোনো মুহূর্তে পাহাড়টি তার ওপর ধসে পড়তে পারে।’ (বুখারি, হাদিস নং: ১১/৮৯)
    Total Reply(0) Reply
  • Mustafizur Rahman ২৬ জুন, ২০১৯, ২:০৩ এএম says : 0
    খাঁটি মুমিন মৃত্যুর আগে জান্নাতের সুসংবাদ পেতে থাকে। ফলে তাঁর চেহারায় আনন্দের দীপ্তি প্রকাশিত হয়। আল্লাহ বলেন, “যারা বলে, ‘আমাদের প্রতিপালক আল্লাহ’, অতঃপর (ইমানের ওপর) অবিচলিত থাকে (মৃত্যুর সময়), তাদের কাছে ফেরেশতা অবতীর্ণ হয়ে বলতে থাকে, ‘তোমরা ভীত হয়ো না, চিন্তিত হয়ো না। এবং তোমাদের যে জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে তার জন্য আনন্দিত হও।’ ’’ (সুরা হা-মিম আসসিজদা, আয়াত, ৩০)
    Total Reply(0) Reply
  • Jamal Uddin Robel ২৬ জুন, ২০১৯, ৯:৪৩ এএম says : 0
    thanks a lot for this beautiful writing
    Total Reply(0) Reply
  • asad ২৬ জুন, ২০১৯, ১২:০৮ পিএম says : 0
    alhamdunlillah
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইসলাম

১৮ জুলাই, ২০১৯
১৬ জুলাই, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন