Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

‘কোনো ওসি হয়রানি করলে আমাকে জানান’

সিলেট ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৬ জুন, ২০১৯, ১২:১৩ এএম

সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেছেন, জেলার সবক’টি থানা হবে অসহায় ও ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের আশ্রয়স্থল। সবক’টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ব্যাত্যয় ঘটলে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এখন থেকে কোন মানুষ যদি থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে যান, পুলিশ ভ্যারিফিকেশন সার্টিফিকেট চান তবে হয়রানিতে পড়তে হবে না। যদি কোন কর্মকর্তা হয়রানি করেন, সরাসরি অভিযোগ করবেন। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। আমি আবারও বলছি, থানাগুলো হবে অসহায় ও ক্ষতিগ্রস্থদের নিরাপদ ঠিকানা। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট নগরীতে অবস্থিত তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন।

নবাগত এই পুলিশ সুপার আরও বলেন, দেশের অর্থনীতির সাথে প্রবাসীরা সরাসরি জড়িত। আমি নিশ্চয়তা দিচ্ছি সিলেট জেলাতে এখন থেকে তাদের স্বার্থ রক্ষায় পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবে। প্রবাসীরা সরাসরি আমার কাছে টেলিফোনে, মোবাইল ফোনে বা যে কোন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ জানাতে পারবেন। আমরা তা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করবো।

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন জানান, পুলিশ জনগণের বন্ধু। তারা চায় মানুষ নির্বিঘেœ বসবাস করুক। তারপরও সমাজে অপরাধ থেমে নেই। সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ, ভোলাগঞ্জসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কপথে গাড়ি থামিয়ে ডাকাতি কঠোরভাবে দমন করবে পুলিশ। বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর, বিশ্বনাথ, ফেঞ্চুগঞ্জসহ বিভিন্ন প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকাতে ডাকাতি বন্ধে সংশ্লিষ্ট থানাগুলোকে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। চিহ্নিত ডাকাতদের দ্রæত আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। গ্রামে-গঞ্জে মানুষের সেবা প্রাপ্তিকে সহজ করে দিতে জেলা পুলিশ শিগগিরই বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু করবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ