Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

নিরাপত্তার শঙ্কা আছে রোহিঙ্গাদের কারণে

জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জুন, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার আগামী ৫ বছরে দেড় কোটি কর্মসংস্থানের লক্ষ্য নির্ধারণ করা করেছে। রোহিঙ্গারা দেশের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হতে পারে বলে জানান তিনি। গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদে চট্টগ্রাম-১১ আসনের এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী জানান, প্রতিবছর প্রায় ২০ লাখ তরুণ-তরুণী কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে শ্রমবাজারে প্রবেশ করছে। এই বিশাল জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং কাজ। এ জন্য ব্যাপক শিল্পায়নের মাধ্যমে পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য সরকার নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। ২০৩০ সালের মধ্যে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন জেলায় ৮৮টির স্থানীয় নির্বাচন শেষ হয়েছে। অর্থনৈতিক অঞ্চলে ইতোমধ্যে ৩০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ১ কোটি লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। গণফোরামের সংসদ সদস্য মোকাব্বির খানের প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, জাতীয় উন্নয়ন ও সব শিক্ষার্থীর ভবিষ্যতের কথা বিবেচনায় রেখেই সরকার পর্যায়ক্রমে দেশের কওমি মাদরাসা শিক্ষাকে মূল স্রোতধারায় আনতে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে। সরকারের গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম কওমি শিক্ষা মূলধারার শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে সমানতালে এগিয়ে যেতে পারবে। কিশোরগঞ্জ-২ আসনের নূর মোহাম্মদের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দ্রæত প্রত্যাবাসন করা না গেলে বাংলাদেশের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হতে পারে। বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে সরকার কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মিয়ানমারে মৌলিক অধিকার বঞ্চিত এই বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা অধিবাসীরা অসন্তুষ্টিতে ভুগছে। তাদের রয়েছে অনেক অভাব-অভিযোগ। এদের অতি দ্রæত ফেরত পাঠাতে না পারলে আমাদের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

তিনি বলেন, মিয়ানমারের এসব নাগরিক এখানে স্বেচ্ছায় আসেননি। সেদেশের সেনাবাহিনী তাদের জোর করে বাস্তুভিটা থেকে উচ্ছেদ করেছে। নির্মম নির্যাতনের শিকার এসব মানুষের খাদ্য, বাসস্থান ও স্বাস্থ্যসেবাসহ মৌলিক মানবিক সহায়তা অত্যন্ত জরুরি ছিল। এজন্য আমরা তাদের সাময়িকভাবে আশ্রয় দিয়েছি। জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা ও স্থানীয় এনজিও’র সঙ্গে সমন্বয় করে এই বিপুল সংখ্যক নাগরিককে আমরা আশ্রয় ও মানবিক সহায়তা প্রদান করছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাখাইন রাজ্যে যথাযথ সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক মহল মিয়ানমারের ওপর চাপ অব্যাহত রেখেছে। আমরা বারবার বিভিন্ন ফোরামে বলেছি, এসব বাস্তুচ্যুত জনগণকে ফেরত নেয়ার বিষয়টি মিয়ানমার সরকারের ওপর বর্তায় এবং তাদেরকেই উদ্যোগী ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, মিয়ানমার সরকারের অনড় অবস্থানের কারণে দৃশ্যমান কোনও অগ্রগতি হয়নি। উপরন্তু, মিয়ানমার বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মহলে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে এবং বলছে, বাংলাদেশের অসহযোগিতার কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বিলম্ব হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব জনমত ও আন্তর্জাতিক স¤প্রদায় অব্যাহতভাবে আমাদের সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। জাতিসংঘ এ বিষয়ে মানবাধিকার কমিশনে একটি রিপোর্ট পাঠিয়েছে। কিন্তু মিয়ানমার সরকার তাদের এ বিষয়ে কাজ করতে দিচ্ছে না। মিয়ানমারের অসহযোগিতা সত্তে¡ও আমরা দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় দুটি পথই খোলা রেখেছি।



 

Show all comments
  • Mahid Ahmed ২৭ জুন, ২০১৯, ১:০৯ এএম says : 0
    শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রতিটি প্রান্ত, জীবন জীবিকার মানোন্নয়ন হচ্ছে প্রতিটি প্রান্তিক মানুষের।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Motaleb Roni ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১০ এএম says : 0
    এই শঙ্কা কাটানোর জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করুন আমরা আপনার পাশে আছি
    Total Reply(0) Reply
  • Debbrato Kumar ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১০ এএম says : 0
    বিষয়টি নজরে আনার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ
    Total Reply(0) Reply
  • Md Hasan Ullah ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১১ এএম says : 0
    অতি দ্রুত পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Shoukat Rahman ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১১ এএম says : 0
    মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কে ধন্যবাদ এই বিষয়টি নজরে আনার জন্য, অতি দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া উচিত, এটা পরবর্তীতে বাংলাদেশের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়াবে!
    Total Reply(0) Reply
  • Kamal Hossain Kamal ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১১ এএম says : 0
    না পাঠানো গেলে একদিন এরা বাংলা দেশের জন্য হুমকি হয়ে দাড়াবে তাই আমরা ছাই যত দ্রুত পিরত পাঠানো যায় ততই ভালো।
    Total Reply(0) Reply
  • Manik Uddin ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১২ এএম says : 0
    মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সত্যি কথাই বলেছেন। অবশ্যই অতি দ্রুত তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। তা না হলে যেন বাংলাদেশ নিরাপদে থাকবে না।
    Total Reply(0) Reply
  • Tanvir Amin ২৭ জুন, ২০১৯, ২:১২ এএম says : 0
    মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আগে আমাদের NGO গুলো কে বিষয় টা বোঝাতে হবে এবং কূটনৈতিক তৎপরতা আরো বাড়াতে হবে । তা না হলে রোহিঙ্গাদের কখনো এদেশে থেকে ফেরানো যাবেনা।
    Total Reply(0) Reply
  • ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২৭ জুন, ২০১৯, ৩:৩৯ এএম says : 0
    মাননীয় প্রধান মন্ত্রী বার্মার সামরিক জান্থার ভয়ংকর গনহত্যা জীবন্ত অগ্নিদগ্ধ নারী শিশু বৃদ্ধা মহিলা ক্ষত বিক্ষত রক্তাক্ত অসহায় দের আপনার মহান মানবতাবাদী সিদ্ধান্তে এরা বাংলাদেশে স্হান পেয়েছেন। আপনি মানবতার মহান আদশ্য ধারন করাই সারাবিশ্বের মানুষ আপনাকে মহা সম্মানিত করেছেন। বিশ্ব মানবতার মা। এই বিরল আন্তর্জাতিক সম্মান পৃথিবীর কোন রাষ্ট্র প্রধান পেয়েছেন কিনা জানিনা আমি সেদিন থেকে শত শত বার আপনাকে মমতাময়ী মা ডেকে নিজকে সম্মানিত মনে করছি। আপনার মত বিশাল সম্মানিত ব্যাক্তিত্বকে মা সম্ভোধন করার মত বালি পরিমান যোগ্যতা নেই। মা জননী প্রতিটি মানুষের রিজিক মহান আল্লাহ কতৃক নিদ্ধারীত। বাংলাদেশের মাঠিতে যতদিন রিজিক থাকবে ওরা থাকবে। একমাত্র জোর কুটনৈতিক তৎপরতা আপনার চিন সফরে বার্মার উপর চাপ সৃষ্টির যতরকমের কৌশল প্রয়োগ করতে হবে। মা শেষ কথা বার্মা সরকারের কৌশলে ওদের সামাজিক শিক্ষা সহ সকল ধরনের শিক্ষা থেকে বঞ্চিত করেছেন। ওদেরকে রাষ্টিয় শৃংখলা ব্যপারে গভীর পরিকল্পনা করতে হবে। আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের জবাব কুটনৈতিক ভাবে দিতে হবে। মা সব চাইতে বড় নিরাপত্তার মালিকতো আল্লাহ রাব্বুল আল আমিন। আপনাকে দিঘাযূ সুস্বাস্হ কামনা করছি।
    Total Reply(0) Reply
  • ash ২৭ জুন, ২০১৯, ৯:১১ এএম says : 0
    AUSTRALIA R MOTO REFUGE DER JAIL ER MOTO AMON KONO JAYGAY RAKHUN ! TADER KE OBOSHO E FREELY GURA FIRA KORTE DEWA WCHITH NOY
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রধানমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ