Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৮ কার্তিক ১৪২৬, ২৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

সগিরা মোর্শেদ হত্যা

ত্রিশ বছর পর আবার মামলা চালু

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জুন, ২০১৯, ১২:৩৭ এএম

৩০ বছর আগে রাজধানীর ভিকারুন্নিসা স্কুলের সামনে গুলিতে নিহত হন গৃহিনী সগিরা মোর্শেদ। হাইকোর্টের স্থগিতাদেশে বন্ধ ছিলো মামলাটির বিচার প্রক্রিয়া। সেই স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। গতকাল বুধবার বিচারপতি এম.ইনায়েতুর রহিম এবং বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এ আদেশের পাশাপাশি ৬০ দিনের মধ্যে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)কে মামলার অধিকতর তদন্ত সম্পন্ন করার নির্দেশ দেয়া হয়। তদন্ত শেষে ৯০ দিনের মধ্যে বিচার কাজ শেষ করারও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সগিরা মোর্শেদের পরিবারের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন। সরকারপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ডেপুটি এটর্নিজেনারেল ফরহাদ আহমেদ।
মামলার নথি থেকে জানাযায়, সগিরা মোর্শেদ সালাম ১৯৮৯ সালে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে মেয়েকে আনতে যান। তখন বিকেল ৫টা। সিদ্ধেশ্বরী রোডে পৌঁছামাত্র মোটরসাইকেল আরোহী ছিনতাইকারীরা তার হাতের স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। আতœরক্ষার্থে তিনি দৌড় দিলে পেছন থেকে গুলি করা হয়। হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিনি। এ ঘটনায় মামলা করেন তার স্বামী আব্দুস সালাম চৌধুরী। এ মামলায় মিন্টু ওরফে মন্টু ওরফে মরণের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয় পুলিশ। ১৯৯১ সালের ১৭ জানুয়ারি আসামি মন্টুর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতের বিচারক আবু বকর সিদ্দীক। সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয় ৭ জনের। সাক্ষ্যে মারুফ রেজা নামে এক ব্যক্তির নাম আসায় অধিকতর তদন্তের আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। আবেদনের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিভিশন মামলা (১০৪২/১৯৯১) করেন মারুফ রেজা। তিনি তৎকালিন স্বরাষ্টমন্ত্রীর ভাগ্নে। ১৯৯১ সালের ২ জুলাই ওই তদন্তের আদেশ ও বিচারকাজ ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে আদেশ কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে। ১৯৯২ সালের ২৭ আগস্ট ওই রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত মামলার বিচারকাজ স্থগিত থাকবে মর্মে আরেকটি আদেশ দেয়। ৩০ বছরেও রুলের নিষ্পত্তি না হওয়ায় আটকে থাকে সগিরা মোর্শেদ সালাম হত্যার বিচার কাজ। গতকালের আদেশে মামলাটি আবারো চালু হলো।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন