Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১, ১৪ মাঘ ১৪২৭, ১৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

রাবি ছাত্রীকে অপহরণচেষ্টা আটক ২

রাবি সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের (রাবি) এক ছাত্রীকে অপহরণের চেষ্টার অভিযোগে শিক্ষার্থীসহ দুজনকে আটক করেছে মতিহার থানা পুলিশ। গত বুধবার বিশ^বিদ্যালয় বধ্যভূমি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রাতে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বাদী হয়ে মতিহার থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭/৩০ ধারায় মামলা করেন। পরে দুজনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদৎ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী রায়হান চৌধুরী ও তার দুলাভাই রাশিকুল ইসলাম ওরফে পিন্টু । রায়হান বাগমারা উপজেলার মহব্বতপুর এলাকার গোলাম মোস্তফার ছেলে। ভুক্তভোগী ছাত্রীও জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী ছাত্রী জানান, বুধবার বেলা ১১টায় হল থেকে রিকশায় বিভাগে যাচ্ছিলাম। দ্বিতীয় বিজ্ঞান ভবনের সামনে যেতেই রায়হান জোরপূর্বক রিকশায় ওঠেন। পরে রিকশাচালককে বধ্যভূমিতে নিয়ে যেতে বলেন। বধ্যভূমিতে যাওয়ার পর তিনি ওই ছাত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। রাজি না হওয়ায় রায়হান নিজের শরীরে কলম দিয়ে আঘাত করতে থাকেন। ছাত্রী ফোন করে বিষয়টি রায়হানের বাবাকে জানালে তিনি অফিসে রয়েছেন বলে ফোন কেটে দেন। কিছুক্ষণ পরে রায়হানের দুলাভাই এসে মীমাংসার কথা বলে দুজনকে মোটরসাইকেলে করে নিয়ে যেতে চান। ওই ছাত্রী যেতে অস্বীকৃতি জানালে রায়হান তাকে মারধর করে জোরপূর্বক গাড়িতে তুলতে চান। এ সময় ছাত্রীটি সাহায্যের জন্য চিৎকার করলে এক পথচারী বিষয়টি দেখতে পেয়ে মতিহার থানা পুলিশকে জানায়। পরে পুলিশ গিয়ে রায়হানসহ তার দুলাভাইকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
রায়হানের সঙ্গে ভুক্তভোগী ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রেমের সম্পর্ক ছিল না। আমি তার নিকট থেকে বিভাগের নোট নিয়েছিলাম সেই সুবাদে বড় ভাই হিসেবে মনে করি বলে জানান তিনি।

বিভাগের সভাপতির প্রফেসর শাহরিয়ার জামান বলেন, রায়হানের সঙ্গে মেয়েটির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পরে মেয়েটির বাবা আমার কাছে এসেছিলেন। মেয়েকে দেখেশুনে রাখতে বলেছেন। অবশ্য এর পরেও রায়হানের সঙ্গে মেয়েটি চলাফেরা করছিল বলে জানতে পেরেছি। সর্বশেষ মেয়ের বাবা ছেলেটির সঙ্গে দেখা করে কথাও বলেছে।
এ বিষয়ে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন বলেন, অপহরণকালে দুজনকে আটক করে মতিহার থানা পুলিশ। পরে আদালতের মাধ্যেমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ