Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

এস-৪০০ ও মার্কিন অবরোধ : মোদি-এরদোগান গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ জুলাই, ২০১৯, ১২:১৩ পিএম

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যিপ এরদোগানের মধ্যে অনুষ্ঠিত একটি দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে এস-৪০০ বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চুক্তি এবং কাউন্টারিং আমেরিকাস অ্যঅডভারসারিজ থ্রু স্যাক্টশন্স অ্যাক্টের (সিএএটিএসএ) আওতাধীন মার্কিন অবরোধ মোকাবিলা নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।
ভারত ও তুরস্ক উভয়েই যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনছে, তবে তারা রাশিয়ার কাছ থেকে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম কেনার জন্য মার্কিন অবরোধের হুমকির মুখে রয়েছে। ভারত জানিয়েছে, তারা তাদের নিজস্ব জাতীয় স্বার্থ অনুসরণ করছে, তুরস্কও এস-৪০০ চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে এগিয়ে যাবে বলে জানিয়েছে।

ভারতের পররাষ্ট্র দফতরের সরকারি মুখপাত্র রাভিশ কুমার জানিয়েছে, মোদি ও এরদোগানের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, প্রতিরক্ষা, সন্ত্রাসদমন, আইটি ও বেসামরিক বিমান চলাচল নিয়ে আলোচনা হয়েছে।
তিনি বলেন, দুই নেতা বেড়া নির্মাণ, বাণিজ্যের সুযোগ অনুসন্ধান, যৌথ অর্থনৈতিক কমিটি গঠন ও জনগণের পর্যায়ে যোগাযোগ বাড়ানোর জন্য ফ্লাইট বাড়ানোর মতো বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন।
প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে এক টুইটবার্তায় বলা হয়, ওসাকায় মতবিনিময় অব্যাহত রয়েছে। জি২০ শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের সাথে ফলপ্রসূ বৈঠক হয়েছে। উভয় নেতা ভারত ও তুরস্কের মধ্যে জোরালো অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা নিয়ে আলোচনা করেছেন।
অবশ্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, তিনিও শনিবার এরদোগানের সাথে সাক্ষাত করেছেন, এস-৪০০ কেনা নিয়ে তুরস্কের ওপর অবরোধ আরোপের ব্যাপারে অনেক বেশি সতর্ক।


 
জিজ্ঞাসা করা হলে ট্রাম্প বলেন, তুরস্কের প্রেসিডেন্টকে আমেরিকার প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র কেনার অনুমতি না দেয়ার কারণে আমরা জটিল অবস্থায় আছি। তিনি অন্যান্য ক্ষেপণাস্ত্র কেনার (এস-২০০ ও এস-৪০০) সময় প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্রও কিনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু অন্যান্য ক্ষেপণাস্ত্র কেনার আগে পর্যন্ত ওমাবা প্রশাসন তাকে ওই অস্ত্র কিনতে দেয়া হয়নি। ফলে তিনি অন্য ক্ষেপণাস্ত্র (এস-৪০০) কিনলেন। এবং তারপর হঠাৎ করে তারা (মার্কিন কংগ্রেস) বলল, ঠিক আছে, এখন আপনি আমাদের ক্ষেপণাস্ত্র কিনতে পারেন। এভাবে ব্যবসা হয় না। এটা ভালো নয়, এটা ভালো নয়।
ট্রাম্প বলেন, তারা ভিন্ন সমাধান খুঁজছেন। তিনি বলেন, এটি একটি সমস্যা, এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। আমরা ভিন্ন সমাধান চাইছি।
তিনি আরো বলেন, তুরস্ক ন্যাটোর সদস্য। আমি মনে করি না যে তার (এরদোগান) সাথে ন্যায়সঙ্গত আচরণ করা হয়েছে।
দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস/সাউথ এশিয়ান মনিটর



 

Show all comments
  • ash ১ জুলাই, ২০১৯, ৪:১৩ পিএম says : 0
    DONT BELIEVE THAT ..................... MODI !
    Total Reply(0) Reply
  • kuli ২ জুলাই, ২০১৯, ৫:৪৪ পিএম says : 0
    Modi use facial wash and fair and lovely cream.Thats why he is as white as Erdogan.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন