Inqilab Logo

শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮, ২০ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সরকারবিরোধী প্রার্থীদের মাঝে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা

প্রকাশের সময় : ৪ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

উখিয়া (কক্সবাজার) উপজেলা সংবাদদাতা

কক্সবাজারের উখিয়ার ৫টি ইউনিয়নের নির্বাচন আজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে নির্বাচনী যাবতীয় প্রচার-প্রচারণা শেষ হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে আদৌ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে কিনা এ নিয়ে প্রার্থীদের মাঝে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। তবে স্থানীয় প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ উপজেলার নির্বাচনী কর্মকর্তা জোর দিয়ে বলছেন, এ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে যে কোনো মূল্যে ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ২৪৬ জন সাধারণ সদস্য পদপ্রার্থী, ৬৭ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য প্রার্থী ও ২৮ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী। এর মধ্যে পালংখালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের শাহাদাৎ হোসেন জুয়েল (নৌকা), হেলাল উদ্দিন (ধানের শীষ), এম. গফুর উদ্দিন চৌধুরী (ঘোড়া), আলী আহমদ (আনারস) প্রতীক নিয়ে ও হাফেজ শাহ আলম (মোটরসাইকেল) প্রতীক পেয়েছেন। এ ইউনিয়নে মোট ১৬ হাজার ৪২৩ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ৮ হাজার ২৭৯ জন ও মহিলা ৮ হাজার ১৪৪ জন। রাজাপালং ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী নৌকা ও বিএনপি একক প্রার্থী তারেক মাহমুদ রাজিব চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। এ ইউনিয়নে মোট ৩৩ হাজার ৬৩৪ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১৭ হাজার ২৩৮ জন ও মহিলা ১৬ হাজার ৩৯৬ জন। জালিয়াপালং ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের এস এম ছৈয়দ আলম (নৌকা), নুরুল আমিন (ধানের শীষ), বিদ্রোহী প্রার্থী মিজানুর রহমান (আনারস) প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। এ ইউনিয়নে মোট ২৫ হাজার ৪২৬ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১২ হাজার ৭৪৪ জন ও মহিলা ১২ হাজার ৬৮২ জন। হলদিয়াপালং ইউনিয়নে এস এম শামসুল হক (ধানের শীষ), মো. শাহ আলম (নৌকা), আমিনুল হক আমিন (আনারস), মাহাবুল আলম চৌধুরী (ঘোড়া) প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। এ ইউনিয়নে মোট ২৭ হাজার ৪১১ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১৩ হাজার ৯৬১ জন ও মহিলা ১৩ হাজর ৪৫০ জন। রতœাপালং ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী নুরুল হুদা (নৌকা), বিএনপির প্রার্থী নুরুল কবির চৌধুরী (ধানের শীষ), আব্বাস উদ্দিন (আনারস), খায়রুল আলম চৌধুরী (ঘোড়া) প্রতীক পেয়েছেন। এ ইউনিয়নে মোট ১৫ হাজার ১২২ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ৭ হাজার ৬৫২ জন ও মহিলা ৭ হাজার ৪২১ জন। টানটান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে প্রার্থীরা ঘরে ঘরে, গ্রামগঞ্জে, পাড়া-মহল্লায় গণসংযোগের মাধ্যমে তাদের শেষ মুহূর্তের নির্বাচনী প্রচারণা শেষ করেছেন। তবে এ উপজেলার পালংখালী, রাজাপালং ইউনিয়নে ঘটে যাওয়া বিচ্ছিন্ন ঘটনা নিয়ে ভোটারদের মধ্যে দেখা দিয়েছে উদ্বেগ। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম জানান, নির্বাচন সম্পন্ন করার জন্য ১০০৩ জন প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তাদেরকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ ও সম্পন্ন করার যাবতীয় নিয়মনীতি সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দিয়ে ভোট গ্রহণের আনুষঙ্গিক প্রক্রিয়াদি সম্পন্ন করে তাদের বিভিন্ন কেন্দ্রে প্রেরণ করা হয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হাবিবুর রহমান জানান, নির্বাচন চলাকালীন ও নির্বাচন পরবর্তী সহিংস ঘটনা প্রতিরোধ করে স্বাভাবিক পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, নির্বাচন চলাকালীন ও পরে এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নয়নের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাঈন উদ্দিন জানান, উপজেলা পরিষদের কন্ট্রোল রুম থেকে নির্বাচনের যাবতীয় খবরাখবর সংগ্রহ ও এলাকায় অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে উপজেলা পরিষদের সব কর্মকর্তাকে নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্বাচনী আচরণবিধিসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে আনসার, পুলিশ, বিজিবি মোতায়েন রাখা হবে। ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনসহ অনিয়ম, অনৈতিক কর্মকা- প্রতিরোধে তাৎক্ষণিক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সরকারবিরোধী প্রার্থীদের মাঝে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা
আরও পড়ুন