Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০৮ ভাদ্র ১৪২৬, ২১ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছতা চায় সরকার

ঢাবিতে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনারে শিক্ষামন্ত্রী

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ৬ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছতা আনয়নে গুরুত্বারোপ করে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা স্বচ্ছতা চাই। এর বাহিরে ভিন্ন কিছু চাই না। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে শুধুমাত্র নিবন্ধন পরীক্ষা ও এনটিআরসি’র মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে, অন্য কোনো মাধ্যমে নয়। সেখানে পরিপূর্ণ স্বচ্ছতা আনা হয়েছে। বিশ^বিদ্যালয় পর্যায়ে কিভাবে শিক্ষক নিয়োগ হবে, এর জন্য কোনো কমিশন গঠন করা হবে কিনা তা ভাবার সময় এসেছে।

গতকাল বিকেলে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের (ঢাবি) ৯৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ^বিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আয়োজনে ঢাবির টিএসসি মিলনায়তনে ‘প্রসঙ্গ উচ্চশিক্ষা: চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা এখন চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা বলছি। এর ফলে প্রথাগত চাকরির জগত বদলে যাবে। নতুন ধরনের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে, সে কর্মসংস্থানের জন্য এখন থেকেই কারিকুলাম তৈরি করতে হবে। সে জন্য ইন্ডাস্ট্রি এবং অ্যাকাডেমির মধ্যে সমন্বয় করতে হবে। আমরা বিশ^বিদ্যালয়ে আসি জ্ঞান অর্জনের জন্য। পাশাপাশি কর্মসংস্থানের বিষয়টি ফেলে দেয়া যায় না। তাই শিক্ষার্থীদের জ্ঞানার্জন করতে হবে, দক্ষতা বাড়াতে হবে। জ্ঞানার্জন না করে চাকরির কথা ভাবলে তার জায়গা বিশ^বিদ্যালয় নয়।

তিনি মান সম্মত শিক্ষা অর্জনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি সৎ হলাম না আমি পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন হলাম না তাহলে সেই শিক্ষাকে আমি মানসম্মত শিক্ষা বলতে পারব না। এর সাথে কমিউনিকেশন স্কিল, সহ-শিক্ষা কার্যক্রম বাড়াতে হবে। তা হলে পেশাগত জীবনে দক্ষতার সাথে কাজ করতে পারবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আজকে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের লাইব্রেরীর কথা বারবার বলা হচ্ছে। আমি এটুকু বলতে পারি, এবারের বাজেট তো হয়ে গেছে, আগামীবারের বাজেটের আগেই এ বিষয়গুলোকে বাজেটের মধ্যে যতটুকু সম্ভব জায়গা করে দিব। এ সময় তিনি ভোরবেলা ঢাবির লাইব্রেরীর সামনে দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের ব্যাক-প্যাক নিজে এসে দেখার ঘোষণাও দেন।

দীপু মনি বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীরা পরিবারের বিশাল দায়িত্ব মাথায় রেখেই বিসিএসের দিকে ধাবিত হয়। বিসিএসের দিকে ঝোঁকা দোষের কিছুনা। তবে সেটা যেন প্রকৃত জ্ঞান থেকে দুরে সরে না হয়।

সেমিনারে মূখ্য বক্তার বক্তব্যে ঢাবি সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সাদেকা হালিম বলেন, সামাজিক নিরাপত্তার অভাবে আমাদের শিশুরা শিক্ষা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। আমাদের দেশে পরিপূর্ণ ব্রেন ড্রেইন হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা সুযোগ সুবিধার অভাবে বিদেশ গেলে আর ফিরে আসতে চায় না। সবদিকে অবদান রাখার পরও আমাদের বিশ^বিদ্যালয় এখনও স্পেশাল স্ট্যাটাস অর্জন করতে পারে নি। আমাদের বিশ^বিদ্যালয়ে শিক্ষক মূল্যায়ন হয় না। মুল্যায়ন আমরাই করতে দিইনা। করতে দিলে আমাদের রাজনীতি বন্ধ হয়ে যাবে।
এর আগে শিক্ষার্থীরা প্রবন্ধ উপস্থাপনের সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন, লাইব্রেরী, শিক্ষক সংকট, গবেষনা ও গুণগত শিক্ষার অভাবের কথা উল্লেখ করলে সেগুলো পূরণ করার আশ্বাস দেন।

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজোয়ানুল হক চৌধুরী শোভন।



 

Show all comments
  • Nadim ahmed ৬ জুলাই, ২০১৯, ২:২০ এএম says : 0
    Woooow!!! So, no more Chatro League as University teacher!!!
    Total Reply(1) Reply
    • Yourchoice51 ৬ জুলাই, ২০১৯, ৯:৪৭ এএম says : 0
      You're dreaming.....
  • kkio ৬ জুলাই, ২০১৯, ৭:৪৭ এএম says : 0
    Dr. Moni you talk about 4th industrial revolution. Industrialization has downside of destroying nature and environment. True development is the development of our environment i.e., clean water, fresh air, fresh food. Garments industry is polluting our air and water. Also look at our water level underground which has gone down sharply due to industrial usage of water. Bangladesh cannot afford so many garment and foreign industries in its land. Stop such stupid ideas. Bangladesh must not be a global supplier of lather, garments and other anti-environmental products.
    Total Reply(1) Reply
    • Yourchoice51 ৬ জুলাই, ২০১৯, ৯:৫৩ এএম says : 1
      Sounds like you have easy access to lot of money.....you wanna get rid of garment industries....think about employment of your population.

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শিক্ষামন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ