Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ২২ জুলাই ২০১৯, ০৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৮ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

ফুটন্ত ফুল সায়মাকে ধর্ষণের পর খুন

বাবার কাঁধে লাশ, মায়ের বুকফাটা আর্তনাদ, আটক ৬

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৭ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ছোট্ট সোনামনি সায়মার নিষ্পাপ শরীরে বর্বরতার ছাপ এঁেক দিল নৃশংস ধর্ষক। কেবল ধর্ষণ করেই থেমে থাকেনি মানুষরূপী সেই নরপশু। গলায় রশি পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে শিশুটিকে। পুরো শরীরে ছিল ক্ষত। মুখে রক্ত ও আঘাতের চিহ্ন জানান দিচ্ছে বর্বরতা। এমন ঘৃণ্য ঘটনা ঘটেছে রাজধানীর ওয়ারীর বনগ্রামে। নিহত সামিয়া আফরিন সায়মা ওয়ারী সিলভারডেল স্কুলের নার্সারির শিক্ষার্থী। লাশ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় ৬ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, প্রাথমিকভাবে তার (সায়মা) শরীরে ধর্ষণের আলামত মিলেছে। ধর্ষণের পর তাকে গলায় রশি পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়েছে। শিশুটির শরীরে ক্ষত চিহ্ন, মুখে রক্ত ও আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। ওয়ারী থানার ওসি আজিজুর রহমান দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় সন্দেহজনক ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। শিশুটিকে ধর্ষণের পরই হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় আরো তদন্ত চলছে। গতকাল শনিবার সকালে শিশুটির বাবা আব্দুস সালাম বাদী হয়ে ওয়ারী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেছেন। এ মামলায় ভবন মালিকসহ ৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। মামলায় আসামি অজ্ঞাত রাখা হয়েছে।

পারিবারিক ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আব্দুস সালামের ২ মেয়ে ও ২ ছেলে। শিশু সামিয়া সবার ছোট। আব্দুস সালাম পরিবার নিয়ে ওয়ারীর বনগ্রাম মসজিদ রোডের ১৬৯ নম্বর বহুতল ভবনের ৬ষ্ঠ তলায় থাকেন। গত শুক্রবার মাগরিবের নামাজের সময় সামিয়া নিখোঁজ হয়। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পর ওই ভবনের ৯ম তলার একটি ফাকা ফ্ল্যাটে তার লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। পরে থানায় খবর দেয়া হলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে। এরপর খবর পেয়ে সিআইডির একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে হত্যার প্রাথমিক তদন্ত শুরু করেছে।

সায়মার বাবা আব্দুস সালাম সাংবাদিকদের বলেন, বাবা হয়ে মেয়ের লাশ কাটাছেড়া করতে দেখতে হচ্ছে। নিজের কাঁধে কন্যার লাশ উঠাতে হবে কখনোই ভাবিনি। এ ভার সহ্য করার নয়। আমার দুই মেয়ে ও দুই ছেলে। বড় ছেলে দেশের বাইরে থাকে। বড় মেয়ে ইউনিভার্সিটি থেকে বাড়িতে আসার পর সায়মাকে পড়তে বসায়। গত শুক্রবার আসরের পর পড়াশোনা শেষ করে মাগরিবের নামাজের সময় খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয় সায়মা।
তিনি বলেন, এ হত্যাকান্ড কোনো বাবাই সহ্য করতে পারবেন না। আমারও খুব কষ্ট হচ্ছে। হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে সব অভিভাবক ও গণমাধ্যমের ভূমিকা দরকার। আর কোনো শিশুর যেন এমন ঘটনার শিকার হতে না হয়।

সায়মাদের বাসার বিপরীত পাশের ফ্ল্যাটে স্ত্রী ও দুই ছেলেকে নিয়ে থাকেন মনির হোসেন। তিনি বলেন, সায়মা আমার বড় ছেলে তামিমের সঙ্গে খেলাধুলা করত। ঘটনার দিন সন্ধ্যায়ও সায়মা এসেছিল। কিন্তু ছেলে তামিম ছিল ৮ম তলার পারভেজ ভাইয়ের বাসায়। ওখানে তার মেয়ের সাথে খেলছিল। ভাবি অসুস্থ থাকায় সায়মাকে পরে আসতে বলি। সায়মা বাসা থেকে বেরিয়ে লিফটেও উঠেছিল। কিন্তু আর নামেনি। এর পৌনে এক ঘণ্টা পর জানতে পারি সায়মাকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা এক সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

এদিকে, এক বছর ধরে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ এক উপ-সচিবের বিরুদ্ধে। নারায়ণগঞ্জে ধর্ষণের পর কিশোরীকে বিক্রির ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া বরিশালের গৌরনদী ৬ বছরের এক শিশু, ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রী, রাজৈরে তৃতীয় শ্রেণির মাদরাসাছাত্রী, ভ‚রুঙ্গামারীতে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ও পাবনায় এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। চট্টগ্রামে কোরিয়ান ইপিজেডের কিশোরী শ্রমিককে গণধর্ষণের ঘটনায় দুই আসামিসহ বিভিন্ন স্থানে আটক ৬।

ঢাকা : ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে প্রায় এক বছর ধরে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ করে আসছিলেন উপ-সচিব এ. কে. এম. রেজাউল করিম রতন। এ ঘটনার মামলায় চার্জশিট প্রকাশের পর তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে জন প্রশাসন মন্ত্রণালয়।

জানা যায়, ২০১৭ সালে মোহাম্মদপুর সরকারি কলেজে প্রিন্সিপাল থাকা অবস্থায় এক ছাত্রীকে নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে কৌশলে কোমল পানীয় খাইয়ে অচেতন করে ধর্ষণ করেন রতন। এসময় ধর্ষণের ভিডিও ধারন করেন তিনি। পরে ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টানা একবছর ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন রেজাউল করিম রতন। ২০১৮ সালে পদন্নতি পেয়ে সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব হন তিনি।

নারায়ণগঞ্জ : চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে যৌন ব্যবসায় বাধ্য করায় হেলেনা বেগম নামে এক নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার ৯ দিন পর অভিযোগ পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ। অভিাযানে ঢাকার উত্তর মুগদা মদিনাবাগের একটি বাসা থেকে ভুক্তভোগী ওই কিশোরীকে উদ্ধারসহ ওই নারীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার হেলেনা বেগম পিরোজপুর জেলার মঠবাড়ীয়ার উত্তর মিঠাখালী গ্রামের তাহের মৃধার মেয়ে এবং বাবুল সরদারের স্ত্রী।

অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা মনির হোসেন জামাল বরগুনার নলটোনা ইউনিয়ন পরিষদের উলা পদ্মা (বাবুগঞ্জ) গ্রামের ইউসুফের ছেলে। তিনি এখনও পলাতক। কিশোরীর পরিবার ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওই কিশোরী চাকরির উদ্দেশ্যে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে অবস্থিত আদমজী ইপিজেড এলাকায় যায়। সেখানে বেলা ১১টায় মনির চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে তাকে ঢাকার উত্তর মুগদা মদিনাবাগ এলাকার আব্দুল জব্বারের ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে হেলেনা বেগমের সহযোগিতায় মনির হোসেন জামাল তাকে ধর্ষণ করে। পরে হেলেনা বেগম ও মনিরের যোগসাজসে বিভিন্ন সময় ওই কিশোরীকে যৌন ব্যবসা করতে বাধ্য করে।

ভ‚রুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) : ভ‚রুঙ্গামারীতে চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে বেলাল উদ্দিন (৪৮) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে উপজেলার নলেয়া গুচ্ছ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রাত সাড়ে ৮টার দিকে প্রতিবেশী মামার বাড়ি থেকে ফিরছিল। এ সময় পথে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা প্রতিবেশী বেলাল উদ্দিন গামছা দিয়ে মেয়েটির মুখ বেধে পাট ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। পরে আত্মীয় স্বজনরা শিশুর বাড়ি ফেরা বিলম্ব হওয়ায় খোঁজাখুজি করতে থাকে। এক পর্যায়ে তারা পাট ক্ষেত থেকে অজ্ঞান অবস্থায় শিশুকে উদ্ধার করে।

বরিশাল : বরিশালের গৌরনদী উপজেলার টরকীরচর এলাকায় ৬ বছরের এক শিশুকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে নির্যাতনের শিকার শিশুটির মা বাদী হয়ে প্রতিবেশী পান্নু মোল্লার ছেলে আজিজুল হককে (১৯) আসামি করে গৌরনদী থানায় মামলা করেন। এর আগে বৃহস্পতিবার দুপরে ধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। ঘটনা জানাজানি হলে অভিযুক্ত আজিজুল হক শুক্রবার বিকেলে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

ঠাকুরগাঁও : স্কুলে পরীক্ষা দিয়ে বাড়িতে ফেরার সময় দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের পর ওই স্কুলছাত্রীকে মারধর করে অজ্ঞান অবস্থায় স্কুলছাত্রীর বাড়িতে ফেলে রেখে গেছে ধর্ষক সুজন আলী (২০) ও সহযোগীরা এবং ঘটনাটি প্রকাশ করলে মেরে ফেলবে বলে ভয়ভীতিও দেখিয়েছে তারা।
অজ্ঞান অবস্থায় স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়েছেন তার পরিবারের লোকজন। মেয়েটি বর্তমানে সেখানে অসুস্থ অবস্থায় মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এ ঘটনায় ধর্ষক সুজন আলীকে গ্রেফতার করতে ব্যর্থ হয়ে ধর্ষকের মা জরিমন বেগম (৪৭) ও বোন ইয়াসমিন আক্তারকে আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশ।

রাজৈর (মাদারীপুর) : মাদারীপুরের রাজৈরে তৃতীয় শ্রেণির মাদরাসাছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষক নূর হোসেন মৃধাকে (৪৭) আসামি করে গতকাল শনিবার রাজৈর থানায় মামলা দায়ের করেছে ধর্ষিতা শিশুর পিতা। ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ পাওয়ার পরই ধর্ষক নুর হোসেন মৃধা বাড়ি-ঘরে তালা দিয়ে সপরিবারে পালিয়ে গেছে। এ ঘটনার পরসহকারী পুলিশ সুপার আবির হোসেন ও ওসি মো. শাহজাহান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ জানায়, ধর্ষক এখনো গ্রেপ্তার হয়নি। তবে খুব তাড়াতাড়ি ধর্ষককে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।

পাবনা : প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে পাবনায় এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে রাজশাহীর এক কিশোরী (১৬)। পাবনার বেড়া উপজেলার আমিনপুর থানার চর-বোয়ালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ এ ঘটনায় কথিত প্রেমিক রিজন সরদার (২০) ও তার বন্ধু আব্দুল মমিনকে (২৪) গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার রিজন সরদার সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার রশিদপুর গ্রামের মৃত আকতার সরদারের ছেলে এবং আব্দুল মমিন পাবনার বেড়া উপজেলার আমিনপুর থানার চরবোয়ালিয়া গ্রামের লোকমান হোসেনের ছেলে। গতকাল শনিবার দুপুরে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামে কোরিয়ান ইপিজেডের কিশোরী শ্রমিককে গণধর্ষণের ঘটনায় দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে আনোয়ারা থানা পুলিশ। গতকাল শনিবার (৬ জুলাই) ভোরে সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার দুইজন ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানান মাহবুব মিলকী। গতকাল দুপুরে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।



 

Show all comments
  • Jony Rahman ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০০ এএম says : 0
    Sorry i can't read this news no judgement only crossfire
    Total Reply(0) Reply
  • Mosarraf Hossain ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০০ এএম says : 0
    অন্যায়ের একটা সীমা থাকা উচিত। এদের প্রচলিত আইনের অধীনে বিচার না করে সরাসরি ক্রস ফায়ার করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply
  • শফিক রহমান ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 1
    নরপিচাশদের অভিশাপ দিচ্ছি - তাদের মাতারা কন্যারা ভগ্নিরা যেন এমন অবস্থায় পতিত হয়
    Total Reply(0) Reply
  • মোহাম্মদ নুরুল আজম ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    এই দেশটা আমার না,,
    Total Reply(0) Reply
  • Masuk Masuk ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    আটক নয় ব্রাশ ফায়ার চাই
    Total Reply(0) Reply
  • Nirob Prodhan ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    সময় এসেছে আইন বদলাবার, বর্তমান প্রেক্ষিতে এতো দূর্বল "আইন" নিয়ে নর পাষণ্ডদের রোধকরা আর সম্ভব নয়।
    Total Reply(0) Reply
  • নিকলো ম্যাকিয়াভেলি ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    নো আটক, তাদের মুক্তি চাই। এর পর ব্রাশফায়ার...
    Total Reply(0) Reply
  • Younus Hasan ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    কোরআনের আইন চাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Farooq Farooq Farooq Farooq ৭ জুলাই, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    দেশ দংশন হয়েছে। ।দেশের বিতর পেজবুক ইউতুব ভারতের চেনেল খারাপ বিডিও ছাড়ে।।এইসব দেখতে অপকর্ম করে।।। আর পুলিশ ছাএলিগ যুবলীগ ও রাজনীতি আইনের শাশন না থাকা দিন দিন বাড়ছে। এখন দরকার জনগণের পতিরোদ ।।না হলে গুম খুন দর্শন এইগুলি বাড়বে।।পুলিশ সরাসরি সব অপকর্ম সাথে জড়িয়ে পড়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • আকাশ ৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:২২ পিএম says : 0
    চোখে পানি চলে অাসলো
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Jan ৭ জুলাই, ২০১৯, ৫:১২ এএম says : 0
    Come down guys . This is happening in country But that’s does not justify what’s happening. We need to educate both girls and guys: educate guys m Guys more more than girls . We need to find a Way to keep the girls safe
    Total Reply(0) Reply
  • Gaz aman ৭ জুলাই, ২০১৯, ৫:৩০ এএম says : 0
    Aita ......r desh, ai khanay kiti kuti manus name ..... thakay, jaykhany vlo manus ar number khub e small.
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Samiul Alam ৭ জুলাই, ২০১৯, ৭:৪৮ পিএম says : 0
    অন্যায়ের একটা সীমা থাকা উচিত। এদের প্রচলিত আইনের অধীনে বিচার না করে সরাসরি ক্রস ফায়ার করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধর্ষণ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ