Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

তদন্ত শেষ করতে হবে ২৮ আগস্টের মধ্যে

এসকে সিনহার বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

চার কোটি টাকা আতœসাৎ ও পাচার মামলায় সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা (এসকে সিনহা)সহ ১১ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার তদন্ত সম্পন্ন করতে হবে আগামি ২৮ আগস্টের মধ্যে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ এ সময়সীমা নির্ধারণ করে দেন। আদেশের আগে আদালত মামলার এজাহার গ্রহণ করেন।

গত ১০ জুলাই দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এসকে সিনহা, বিলুপ্ত ফার্মার্স ব্যাংকর ব্যাবস্থাপনা পরিচালকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে। মামলার এজাহার গ্রহণের জন্য গতকাল মামলার বাদী দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন ওই আদালতে যান। মামলায় ফার্মার্স ব্যাংক থেকে ৪ কোটি টাকার ঋণ সৃষ্টি সেটি পাচারের চেষ্টা, স্থানান্তর, রূপান্তর ও হস্তান্তরের অভিযোগ আনা হয় আসামিদের বিরুদ্ধে।

এতে দন্ডবিধির ৪০৯, ৪২০,১০৯, ১৯৪৭ সনের ২ নং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা এবং ২০১২ সালের মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ৪(২), (৩) ধারায় অভিযোগ আনা হয়। এজাহারভুক্ত অন্য আসামিরা হলেন, সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা, ফার্মাস ব্যাংকের তৎকালিন ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম শামীম, একই ব্যাংকের তৎকালিন সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট গাজী সালাহউদ্দিন, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট স্বপন কুমার রায়, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. জিয়াউদ্দিন আহমেদ, শাফিউদ্দিন আসকারী, ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. লুৎফুল হক, ব্যবসায়ী মো. শাহজাহান, ব্যবসায়ী নিরঞ্জন চন্দ্র সাহা, শ্রীমতি সান্ত্রী রায় (সিমি) এবং শ্রী রঞ্জিত চন্দ্র সাহা। তাদের বিরুদ্ধে পরষ্পর যোগসাজশে তৎকালিন ফার্মার্স ব্যাংকের ( বর্তমান পদ্মা ব্যাংক) গুলশান শাখা থেকে অস্বাভাবিক দ্রæততার সাথে ৪ কোটি টাকা ভুয়া ঋণ সৃষ্টি করে এ টাকা একই দিন পে-অর্ডারের মাধ্যমে এসকে সিনহার ব্যাক্তিগত অ্যাকাউন্টে স্থানান্তরের অভিযোগ আনা হয়েছে। সেই সঙ্গে স্থানান্তরিত অর্থ এসকে সিনহা (১ নং আসামি) তার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে পে-অর্ডারের মাধ্যমে অন্য অ্যাকান্টে স্থানান্তর, হস্তান্তর এবং রূপান্তরের মাধ্যমে অর্থ আতœসাৎ করত: পাচারের প্রচেষ্টায় সংঘবদ্ধভাবে অপরাধ করেছেন-মর্মে উল্লেখ করা হয়।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তদন্ত

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ