Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১, ০৯ মাঘ ১৪২৭, ০৯ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

প্রধান বিচারপতি থাকতেই ন্যায়বিচার পাইনি, এখন কীভাবে আশা করি

বেনার নিউজকে সিনহা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১১:০০ এএম

বর্তমানে বাংলাদেশে ন্যায়বিচার আশা করা যায় না বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। ঢাকায় তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা হওয়ার একদিন পর ওই মামলা সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে গত বৃহস্পতিবার বেনার নিউজকে তিনি এ কথা বলেন। তার সঙ্গে কথা বলেছেন বেনারের ওয়াশিংটন প্রতিনিধি রনি টলডেন্স।

মামলা প্রসঙ্গে সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা বলেন, এটি অনৈতিক, অন্যায়। তারা আমাকে জনসম্মুখে হেয় প্রতিপন্ন করতে চায়। বেনার নিউজ জানায়, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় ও কিছু পর্যবেক্ষণকে কেন্দ্র করে সরকারের সঙ্গে মতবিরোধ সৃষ্টি হয় এসকে সিনহার। এরই জের ধরে ২০১৭ সালের ১৩ই অক্টোবর প্রথমে ছুটি নিয়ে বিদেশ যান তিনি। পরে সেখান থেকেই প্রেসিডেন্টের কাছে পদত্যাগপত্র পাঠান। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাসিত রয়েছেন তিনি।

তবে বিচারপতি সিনহা গত কয়েকদিন ধরে নিজের ছোট মেয়েকে দেখতে স্ত্রীসহ কানাডায় রয়েছেন। সেখান থেকে টেলিফোনে বেনারের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।
এসকে সিনহা বলেন, দুর্নীতি মামলা হওয়ার সংবাদটি আমার স্ত্রী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেখে। তখন সে বিষয়টি আমাকে জানায়। আমি এখন হাসব না কাঁদব, সেটাই ভাবছি! ফারমার্স ব্যাংকের কিছু কর্মকর্তার যোগসাজশে জালিয়াতির মাধ্যমে চার কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে বিচারপতি সিনহার বিরুদ্ধে এই মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

গত বুধবার সংস্থাটির জেলা সমন্বিত কার্যালয় ঢাকা-১ এ সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে সংস্থাটির পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি করেন। বাংলাদেশে সাবেক কোনো প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে মামলার ঘটনা এটাই প্রথম। টেলিফোনে তাকে জিজ্ঞেস করা হয় যে, তিনি ন্যায়বিচার পাবেন বলে মনে করেন কি না। বেনারের এমন প্রশ্নে সাবেক এই প্রধান বিচারপতি বলেন, যখন আমি কর্মরত প্রধান বিচারপতি ছিলাম, তখনই ন্যায়বিচার পাইনি। এখন কীভাবে ন্যায়বিচার আশা করি?

 



 

Show all comments
  • Yourchoice51 ১৩ জুলাই, ২০১৯, ১১:২২ এএম says : 0
    Gentleman, Did you serve justice when you were at the helm of Bangladesh judiciary system? You're paying for your deeds and will be paying forever.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ন্যায়বিচার

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ