Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬, ২৪ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

বেতনের ৪ শতাংশ কর্তন বন্ধে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ জুলাই, ২০১৯, ৬:০০ পিএম

বেসরকারী শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট ও অবসর সুবিধা বোর্ডে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন থেকে অতিরিক্ত ৪ কর্তন বন্ধে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি। একইসাথে আসন্ন ঈদুল আযহার পূর্বেই সরকারি নিয়মে ঈদ বোনাস প্রদানসহ প্রতিষ্ঠানের আয় ফেরত নিয়ে অবিলম্বে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবি জানিয়েছে শিক্ষক সংগঠনটি। গত শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন থেকে এসব দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রায় ৫ লাখ এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন বৈষম্য দূরীকরণে এবং শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণে ঘোষিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে কোন প্রকার ঘোষণা না থাকায় শিক্ষক সমাজে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

তারা বলেন, শিক্ষকদের সাথে কোন প্রকার আলোচনা ছাড়াই শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট ও অবসর সুবিধা বোর্ডে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ কর্তন শুরু হয়েছে। কর্তনের এ টাকার কোন হিসাব শিক্ষক সমাজ জানেনা। এ কর্তন অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। সামনে ঈদুল আযহা, বর্তমানে শিক্ষকরা ২৫ শতাংশ ঈদ বোনাস পান, যা দিয়ে তারা ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পারেন না। তাই ২৫ শতাংশের পরিবর্তে সরকারি নিয়মে ঈদ বোনাস প্রদান করতে হবে। শিক্ষক নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমানে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীগণ শতভাগ বেতন সরকারিভাবে পেলেও তাদের রয়েছে আকাশ ছোঁয়া বেতন বৈষম্য। এক হাজার টাকা বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা ভাতা ৫০০ টাকা, সারাজীবনে একটিমাত্র টাইস্কেল তাও বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। তাই এই বেতন বৈষম্য দূর করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আয় রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ফেরত নিয়ে অবিলম্বে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন তারা।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলাম রনি। এতে বক্তব্য রাখেন- এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ সমন্বয় কমিটির নির্বাহী সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মোঃ দেলোয়ার হোসেন মিয়া, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সাঈদুল হোসেন সাহেদ, সিনিয়র সহ-সভাপতি গাজী মামুন আল জাকীর, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব মোঃ আবুল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যক্ষ মোস্তফা জামান রানা, মোঃ হান্নান সরদার, সহকারী মহাসচিব মনসুর ইকবাল, মইনুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান প্রমূখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মহাসচিব মোঃ মেজবাহুল ইসলাম প্রিন্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন