Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

কোটি টাকার যন্ত্রাংশ পানির নিচে

কেপিএম কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও অভ্যন্তরীণ কোন্দল

কাপ্তাই (রাঙামাটি) থেকে কবির হোসেন | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

চিপিং এন্ড হ্যান্ডলিং প্লান্ট কাপ্তাই কর্ণফুলী পেপার মিলস লিঃ (কেপিএম)-এর কোটি টাকার যন্ত্রাশং পানির নিচে তলিয়ে গেছে। গত দু’দিনেও কোন কুলকিনারা করতে পাড়েনি।

জানা যায়, প্রশাসনের অবহেলা, অযতœ, গাফিলতি, অনিয়ম, দুর্নীতির ও অভ্যন্তরীণ কোন্দলের ফলে রাতা-রাতি কোটি টাকার যন্ত্রাশং পানির নিচে তলিয়ে গেছে। যার ফলে কেপিএমের আর একটি উৎপাদন শাখা প্রধান চিপিং এন্ড হ্যান্ডলিং প্লান্টটিও অবহেলার কারনে বন্ধ হয়ে গেল। প্রবল বর্ষণে ফিটিং সেকশন ও প্লান্ট বোর্ডে পানি ডুকে চিপিং এন্ড প্লান্ট মেশিন পানির নিচে তলিয়ে যায়। ফিটিং সেকশন, প্লান্ট বোর্ডের ৫টি উন্নতমানের মেশিন, প্লান্টমোটর ৬টি এবং সেকশন ৩টি যন্ত্রাশং রাতা-রাতি পানির নিচে তলিয়ে যায়।

এতে কোটি টাকার যন্ত্রাশং ক্ষতি হয়েছে বলে শ্রমিক/কর্মচারীরা জানান। একটি দায়িত্ব প্রাপ্ত সূত্রে জানা যায়, উধর্বতন কর্মকর্তাকে বারবার উক্ত মেশিনের সমস্যার ব্যাপারে আগাম অবগত করা হলেও তিনি তা কর্ণপাত করেনি।

দায়িত্ব অবহেলা ও অভ্যন্তরীণ চরম কোন্দলের ফলে উক্ত ঘটনাটি ঘটে ঘটেছে। এতে করে মিলের কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে বলে কর্মচারীরামত প্রকাশ করে।

গত সোমবার মেশিনারি পানিতে ডুবে যাওয়ার সংবাদটি কাপ্তাই চিপার হাউজ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মবকর্তা সালেহীন সুমন, উধর্বতন কর্তৃপক্ষকে জানালে তিনি তা সরেজমিনে দেখতে আসে। এবং ডুবে যাওয়া কোটি টাকার যন্ত্রাশং পানির নিচ থেকে উদ্ধারে চেষ্টা করে। কয়েক ঘন্টা চেষ্টা করেও উদ্ধার করতে ব্যার্থ হয়ে তিনি ফিরে যায়।

এদিকে চন্দ্রঘোনা-কাপ্তাই চিপার হাউজ দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-প্রধান রসায়নবিধ রেজা শরিফ কামালের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, একদিন পূর্বেও কাপ্তাই চিপার হাউজের ডুবে যাওয়া মেশিনটি ভাল দেখেছেন বলে জানান। তবে রাতে বর্ষণের ফলে প্লান্ট বোর্ডে পানি ডুকে রাতা-রাতি মেশিনারি ডুবে যাওয়ার সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, পানির নিচ থেকে উঠানোর পর এ মেশিনগুলো মেরামত করলে ঠিক হবে বলে উল্লেখ করেন। এক প্রশ্নের জবাবে ক্ষতির পরিমান জানতে চাইলে তিনি বলেন, ক্ষতির পরিমান প্রায় দশ হাজার টাকা হবে বলে মন্তব্য করেন। তবে কবে নাগাদ পানির নিচ হতে এ মেশিন উদ্বার বা মেরামত করা হবে কোন কিছুই না বলে চেয়ার থেকে উঠে যান। গত দু’দিনেও ডুবে যাওয়া কোটি টাকার মেশিন উদ্ধার করতে পারেনি। এ মেশিন পানি হতে উঠানো বা মেরামত না করা পযন্ত চিপিং কার্যক্রম উৎপাদন একেবারে বন্ধ রয়েছে। এদিকে কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি, অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও অবহেলার ফলে দিনের পর দিন কেপিএমের বিভিন্ন যন্ত্রাশং নষ্ট হয়ে পড়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন