Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

পাঠ্যপুস্তক ছাপা বন্ধ করছে পিয়ারসন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৬:০৭ পিএম

কাগজে বই ছাপা বন্ধ করতে এই প্রথম বড় পদক্ষেপ নিল বৃটিশ প্রকাশনা সংস্থা ‘পিয়ারসন’। শিক্ষামূলক বই প্রকাশনায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই প্রতিষ্ঠান তাদের সমস্ত শিক্ষা প্রকাশনা ‘ডিজিটাল ফার্স্ট’ নীতিতে অনলাইনে প্রকাশের উপর জোড় দিচ্ছে। এজন্য শিক্ষার্থীরা তাদের ছাপা বই আর কিনতে পারবে না, শুধুমাত্র ভাড়া নিতে পারবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। খবর বিবিসি।

পিয়ারসন আশা করছে, এই পদক্ষেপে শিক্ষার্থীরা আরো বেশী উৎসাহিত হবে তাদের ই-পাঠ্যপুস্তক কিনতে। কারণ এগুলো দ্রুত এবং নিয়মিত হালনাগাদ করা হবে। ছাপানো বই সবসময় হালনাগাদ করা সম্ভব হয়না।

প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী জন ফেলন বলেন, ‘আমরা বর্তমানে ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করেছি।’ তিনি জানান, ‘আমাদের বার্ষিক আয়ের অর্ধেকের বেশী আসে অনলাইনে বিক্রি থেকে। সেজন্য আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সংবাদপত্র থেকে আমাদের মতো অন্যান্য যে প্রতিষ্ঠানগুলো আছে তাদের জন্য এখন সময় পণ্য তৈরীর আগের পদ্ধতি থেকে বেরিয়ে আসা।’

প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক আয়ের ২০ শতাংশ আসে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠ্যপুস্তক বিক্রি করে। কিন্তু টাকা বাচানোর জন্য নতুন বই কেনার বদলে পুরানো বই ভাড়া করার প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়ায় প্রতিষ্ঠানটি সমস্যায় পড়ছে। এ কারণে পিয়ারসন তিন বছর পর পর তাদের পাঠ্যপুস্তকের নতুন সংস্কার আনা বন্ধ করবে বলে জানিয়েছেন ফেলন। এই পদ্ধতির মাধ্যমে তারা ৪০ বছর ধরে প্রকাশনা ব্যবসায় আধিপত্য ধরে রেখেছিল।

২০১৮ সালের আগের এক বছর বিক্রি কমায় ক্রমাগত ক্ষতির মুখে পড়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৯ সালের প্রথম তিন মাসেই তাদের বিক্রি ২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠানটি আশংকা করছে চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে তাদের প্রবৃদ্ধি ৫ শতাংশ কমে যেতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইংল্যান্ড


আরও
আরও পড়ুন