Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ২২ আষাঢ় ১৪২৭, ১৪ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

গোবিন্দগঞ্জে শিশু অপহরণকারীকে গণধোলাই, পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা)উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৮ জুলাই, ২০১৯, ৮:১২ পিএম

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে কওমী মাদ্রাসার ছাত্র শিশুকে অপহরন করে মুক্তিপন আদায়ের চেষ্টাকালে অপহরনকারী দুই যুবককে জনতা আটক করে গণধোলাই দিয়েছে। উত্তেজিত জনতার কবল থেকে অপহরনকারীদের উদ্ধারে পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে জনতাকে ছত্রভঙ্গ করে। অপহৃত ছাত্র উদ্ধার সহ এ ঘটনায় থানায় একটি অপহরন মামলা দায়ের হয়েছে।
জানাগেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের দরবস্ত (কোনপাড়া) গ্রামের মৃত দুদু মিয়ার পুত্র গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার ঝিলপাড়া দারুল উলুম কওমী মাদ্রাসার হেফজ ও ৫ শ্রেণীর ছাত্র সিয়াম ইসলাম (১২) বৃহস্পতিবার সকাল ০৭.৩০ টায় শিশু সিয়াম (১৩) পিং দুদু সাং কোমরপুর থানা গোবিন্দগঞ্জ তার ফুলাহার গ্রামের দুলাভাইয়ের বাড়ী হতে কাওকে না বলে ঢাকা যাবার জন্য কাটাখালী বালুয়া বাজারে সৈকত কাউন্টারে যায়। কাউন্টার মাষ্টার সৌরভ শিশু সিয়ামকে ঢাকায় পাঠানোর কথা বলে টিকিটের জন্য ৪৭০টাকা ও একটি মোবাইল ফোন সেট নিয়ে নেয়। এরপর সৌরভ তার আরো ৫ সহযোগী খবরদেয় এবং তারা কাউন্টারে আসলে সকলে মিলে আলোচনা করে শিশু সিয়ামের দুলাভাইয়ের মোবাইলে ফোন দিয়ে সিয়াম তাদের হেফাজতে আছে বলে ৫ লাখ টাকা দাবি করে।তারপর অপহরনকারীরা সিয়াম কে নিয়ে দুই মোটরসাইকেল যোগে বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করতে থাকে এবং তার দুলাভাইয়ের সাথে দর কষাকষি করে শেষ পর্যন্ত ১০ হাজার টাকা বিকাশে দিতে বলে। এর এক পর্যায়ে অপহরনকারীরা সিয়াম কে নিয়ে কাটামোড় হতে মোটরসাইকেলে করে গোবিন্দগঞ্জ আসার পথে সিয়ামের দুলাভাই ও বোন খোজাখুজির এক পর্যায়ে তাদেরকে দেখে ফেলে চিৎকার করলে কামারপাড়া এলাকায় লোকজন সিয়ামকে বহনকারী মোটরসাইকেল সহ দুই অপহরণকারীকে আটক করে এবং অপর ৪ অপহরণকারী মোটরসাইকেল সহ পালিয়ে যায়। এরপর উত্তেজিত এলাকাবাসী দুই অপহরণকারী কে গণপিটুনি দেয়ার সময় পুলিশ ৬ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে জনগণকে ছত্রভঙ্গ করে অপহরণকারী দুই যুবককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে । আটককৃতরা হল, একই উপজেলার সাপগাছী হাতিয়াদহ গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে সৈকত (২৬) ও নুনদহ গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে মামুন মিয়া (২২) বলে জানা গেছে। গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মেহেদী হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এব্যাপারে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে ৬ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আটক


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ