Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৯ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

সাপ্তাহিক হাটে ৭লাখ টাকার ফল বিক্রি হিমাগার না থাকায় মীরসরাইয়ের চাষিরা বিপাকে

প্রকাশের সময় : ৬ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

আমিনুল হক, মীরসরাই (চট্টগ্রাম) থেকে

রসালো ফলের মৌ মৌ ঘ্রাণে মাতোয়ারা মীরসরাইয়ের হাট-বাজারগুলো। আম, লিচু, কাঁঠাল, আনারস, গোলাপ জামসহ ফলের সমারহে আকৃষ্ট হয়ে উঠছে ক্রেতারা। বিভিন্ন হাটবাজারে এখন মিষ্টি ফলের সুবাস। এরই মধ্যে মীরসরাইয়ের করেরহাট, বারইয়ারহাট, জোরারগঞ্জ, মিঠাছরা, মীরসরাই, আবুতোরাব, বড়তাকিয়া, নিজামপুর, বড়দারোগারহাটসহ বিভিন্ন বাজারে আসতে শুরু করেছে মধুমাসের নানা জাতের ফল। মীরসরাইয়ের মৌসুমি ফলের জন্য বিখ্যাত করেরহাট বাজার। এখানে প্রায় মৌসুমি ভিত্তিক সব ফল পাওয়া যায়। করেরহাট বাজারের পূর্বের এলাকা কয়লা, হেঁয়াকো, ভাঙ্গাটাওয়ার, রামগড়, ফটিকছড়ি, খাগড়াছড়ি ইত্যাদি স্থান থেকে প্রতি দিন বিশেষ করে সপ্তাহের দুই দিন রবি ও বুধবার প্রচুর পরিমাণ মৌসুমী ফল আসে। ফলগুলোর মধ্যে কাঁঠাল, আম, আনারস, লিচু ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও ঋতুভিত্তিক সব ফল এখানে পাওয়া যায়। খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা এখান থেকে মৌসুমী ফল ক্রয় করে দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি করে। নিজস্ব চাহিদা পূরণ করে এসব ফল ফেনী, চট্টগ্রাম, ঢাকা ইত্যাদি অঞ্চলে প্রেরণ করা হয়। এতে করে বিক্রেতারা তাদের ন্যায্য দাম পাচ্ছে এবং ব্যবসায়িরাও স্বাবলম্বী হচ্ছে। করেরহাট বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন স্থান থেকে ফল চাষিরা মৌসুমী ফল আম, কাঁঠাল, লিচু ও আনারসের পসরা সাজিয়ে বসে আছেন। মীরসরাই উপজেলা, ফেনী, চট্টগ্রাম ও ঢাকা থেকে বিভিন্ন আড়তদার, ক্ষুদে ব্যবসায়ীরা মৌসুমী ফল কিনতে এসেছেন। এখানে দেশি আম প্রতিকেজি ৩০-৪০ টাকা, আনারসে জোড়া ৩৫-৪০ টাকা, লিচু প্রতি শত ১০০-১৫০টাকা, প্রমাণ সাইজের একটি কাঁঠাল ৬০-৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। করেরহাটের কয়েকজন ফল চাষিরা জানান, এই মধুমাসে মৌসুমী রসালো ফল বিক্রি করে আমাদের জীবন জীবিকা চলে। তবে হিমাগার না থাকায় বেশি দিন রাখা যায় না এসব মৌসুমী ফল। ফলে অল্প সময়ে স্বল্প মূল্যে বিক্রয়ের কারণে লাভটাও তেমন বেশি হয় না বলে জানান তারা। তবে গরমে ফলের চাহিদা বেশি হওয়ায় দূর-দূরাš থেকে আগত ক্রেতাদের কাছে এসব ভাল মানের ফলগুলো ভাল দামে বিক্রয় করা হয় বলে জানান কয়েকজন স্থানীয় চাষি। করেরহাট বাজারে মৌসুমী ফল কিনতে আসা ক্রেতা রিপন দাশ ও ওমর ফারুক জানান, রামগড় ও খাগড়াছড়ি থেকে আসা পাহাড়ে চাষ হওয়া কাঁঠাল, আম ও লিচু এখানে খুবই জনপ্রিয়। তবে কিছু আম ও কাঁঠাল পরিপক্ব হওয়ার আগেই কৃত্রিমভাবে ইথিলিন দিয়ে পাকিয়ে এবং ফরমালিন ব্যবহার করে বাজারে বিক্রি করছেন অধিক মুনাফা লোভী কিছু খামারি। এসব ফল খেলে স্বাস্থ্যের খুব ক্ষতি হয়। তাই আমরা দেখে শুনে ফল কেনার চেষ্টা করছি। সবাই সচেতন হলে এ বিষমুক্তি সম্ভব বলেও জানান তারা। করেরহাট বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম জানান, প্রতি সাপ্তাহিক বাজারে প্রায় ছয় থেকে সাত লক্ষ টাকার ফল বিক্রি হয় এখানে। বাজারের সার্বিক পরিস্থিতি এবং ফল চাষের অনুকূল পরিবেশ এর কারণে এখানে ফল এর এত বিরাট বাজার গড়ে উঠেছে। বাজারে বিষমুক্ত মৌসুমী ফল বাজার জাতকরণে আমরা নজরদারী করছি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ