Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী

বুরকিনির জন্য আমেরিকার মুসলিম নারীদের লড়াই

হাফিংটন পোস্ট | প্রকাশের সময় : ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৭ এএম

২০১৭ সালের গ্রীষ্মের কথা। নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডের রুহি কাপাডিয়া তার ১২ বছরের মেয়েকে স্থানীয় সুইমিং পুলে নিয়ে গিয়েছিলেন। স্কুল বন্ধ থাকায় এই গ্রীষ্মের বন্ধে প্রাণভরে সাতাঁর কাটতে পারবে। আর সে আনন্দে উচ্ছ¡সিত হয়ে উঠেছিল মেয়েটি।
কিন্তু আনন্দ পাওয়ার ব্যাপারটা হলো না। ইকো পার্ক পুলের কর্মচারীরা বললেন, তাকে সাঁতার কাটতে দেয়া হবে না। তার কারণ তার পোশাক। মেয়েটি সাঁতারের স্যুটের উপর একটি পাজামা পরেছিল, গায়ে ছিল টি-শার্ট। তারা বললেন, এগুলো সাঁতারের উপযুক্ত পোশাক নয়।

৩৯ বছর বয়স্কা রুহি কাপাডিয়া যখন যুক্তি দেয়ার চেষ্টা করলেন তখন তারা বললেন যে তাদের এ ব্যাপারে কিছু করার নেই। তারা স্থানীয় ওয়েস্ট হেম্পস্টিড কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে দেখতে পারেন। রুহি তাই করলেন।
হেম্পস্টিড শহর নিউইয়র্কের উপকন্ঠে। একশ বছরেরও বেশি সময় ধরে রিপাবলিকানরা শহরটি শাসন করছে। তিনি সাক্ষাত করলেন টাউন সুপারভাইজার হিসেবে প্রতিদ্ব›িদ্বতাকারিণী লরা জিলেনের সাথে। তার নির্বাচিত হওয়ার সময় আসা তখনো অনেক দেরী। তবে তিনি প্রতিশ্রæতি দিলেন যে যদি তিনি নির্বাচিত হতে পারেন তাহলে রুহি কাপাডিয়ার সমস্যাটা দেখবেন।

গত এক দশক ধরেই বিশ^ব্যাপী মুসলিম নারীরা সাঁতারের সময় সাঁতারের পোশাকের চেয়ে বেশি কিছু পরলেই ক্রমবর্ধমান ভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। মাত্র গত সপ্তাহেই ফ্রান্সে এসব নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে মুসলিম নারীরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। ফ্রান্সের কয়েকটি শহরে বুরকিনি (বিকিনির উপর বোরকা) পরিধান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যদিও এ রকম কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। সারা দেশব্যাপী মুসলিম নারীরা বলছেন, তারা মাঝারি ধরনের সাঁতারের পোশাক পরার কারণে সমালোচিত হচ্ছেন। আবার স্থানীয় পুলগুলোতে তাদের প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

২০১৮ সালে জিলেন নির্বাচনে জয়ী হন। তিনি হাফিংটন পোস্টকে বলেন, তিনি তার নতুন দায়িত্বে সহিষ্ণুতা ও স্বচ্ছতা বৃদ্ধি করতে চান। তাই এই গ্রীষ্মে স্থানীয় পুলগুলোতে নতুন নোটিশ লাগানো হয়েছে যে, ধর্মীয় প্রথাকে সম্মান প্রদর্শন করুন। বুরকিনি পরে সাঁতার কাটা যাবে।

গত ৪ জুলাই সপ্তাহান্তে ইকো পার্ক পুলে গিয়ে লিখিত এই ঘোষণাটি দেখে রুহি ও তারা মেয়ে আনন্দিত হন। কাপাডিয়া হাফিংটন পোস্টকে বলেন, দিনটিকে স্বপ্ন মনে হচ্ছিল। সত্যিই এটা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা আর নেই। আমি চাই শুধু আমার মেয়ে নয়, প্রতিটি মেয়েই নিজের মত অনুভব করুক। কেউ যেন কারো চেয়ে বঞ্চিত না হয়।

ডালাসের ২১ বছর বয়স্কা তরুণী আলা ইয়ামুত বলেন, তিনি সেসব শহরের প্রশংসা করে যেগুলোতে সুস্পষ্ট ভাবে মুসলিম মেয়েদের তাদের নিজের মত সাঁতারের পোশাক পরার আনুমতি দেয়া হয়েছে। কারণ এ নীতি হয়রানির ইতি ঘটিয়েছে যার সম্মুখীন তিনি হয়েছিলেন। গত গ্রীষ্মে ইয়ামুত তার ভাইয়ের মেয়ে ও ননদকে নিয়ে পাশর্^বর্তী একটি সুইমিং পুলে গেলে এক লোক তাদের উদ্দেশ্যে অপমানজনক কথা বলে।
ইয়ামুত বলেন, লোকটি একটি টি-শার্ট ও একটি শর্টস পরে সাঁতার কাটছিল। সে তাদের বলে যে তাদের সাঁতারের পোশাক এ শহরের বাড়ি মালিক সমিতির প্রতিষ্ঠিত আইনের লঙ্ঘন। তারা যখন বলেন যে তাদের পোশাক পানিতে সাঁতার কাটার উপযোগী করেই তৈরি, তখন পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। লোকটি তাদের বলে যে তারা আমেরিকান নয়, তাদের নিজ দেশে ফিরে যাওয়া উচিত।

এ ঘটনায় বিব্রত ও বিস্মিত ইয়ামুত ঘটনাটি জানিয়ে বাড়ি মালিক সমিতির কাছে ইমেইল প্রেরণ করেন এবং বুরকিনি বিষয়ে তাদের নিয়ম জানতে চান। হাফিংটন পোস্ট ইমেইলটি দেখেছে। পরদিন একজন কর্মকর্তা ইয়ামুতকে জানান যে লোকটি অন্যায় করেছে এবং তাদের পোশাক ওই পুলে অনুমোদিত ছিল। আসলে সুইমিং পুলের গেটে একটি বিজ্ঞপ্তি আছে যাতে বুরকিনি অনুমোদিত বলা হয়েছে।

উভয় নারীই জানান যে তাদের পক্ষে আইন হওয়ার ফলে পরিস্থিতি এখন সহজ হয়েছে। সারাদেশে বুরকিনিকে সাঁতারের স্বাভাবিক পোশাক হিসেবে স্পষ্ট ভাবে অনুমোদন দেয়া উচিত। যদি তা না হয় তাহলে মুসলমানদের প্রতি তারা ব্যবস্থা নেয়ার আহŸান জানান।

রুহি কাপাডিয়া বলেন, বসা ও কথা বলা সহজ। তিনি সরকারি কর্মকর্তাদের এ কথা বলার জন্য সবাইকে উৎসাহিত করেন যে, আমরা এ সমাজে বাস করি। আমরা সমান। অন্যদের যা তা আমাদেরও। সুতরাং আমরা কম সুবিধা পাব কেন?

 

 



 

Show all comments
  • Hasan Mohammad Akram ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১১:২০ এএম says : 1
    আশা করি এই লড়াইয়ে তার জিতবেন
    Total Reply(0) Reply
  • Omar Tarek Chowdhury ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১১:২১ এএম says : 1
    স্বাস্থ্যঝুঁকির যে অজুহাত দেখানো হচ্ছে, তার কোনোই কারণ নেই।এটা ডুবে যাওয়ার কোনো কারণ তৈরি করে না, ভেসে থাকতে অসুবিধা করে না। চর্মরোগ হয় না্ কাজেই অসুবিধাটি কোথায়?
    Total Reply(0) Reply
  • Lipa ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১১:২৫ এএম says : 1
    Amio Burkini porte chai
    Total Reply(0) Reply
  • Rima Sarmin ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১১:২৭ এএম says : 1
    মাশাল্লাহ, এগিয়ে যাও তোমরাই পারবে অন্ধকার থেকে বের হতে।
    Total Reply(0) Reply
  • Kader Mazumdar ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১১:২৯ এএম says : 1
    কে কি কাপড় পড়বে সেটা তার ব্যাক্তিগত ব্যাপার এই খানে আমি মনে করি কার নাক না গলানোই ভাল।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মুসলিম


আরও
আরও পড়ুন