Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০৯ ভাদ্র ১৪২৬, ২২ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

শেরপুর-জামালপুর আঞ্চলিক মহা সড়কে যানচলাচল বন্ধ

শেরপুরে বন্যা পরিস্থিতি আরো অবনতি

শেরপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ জুলাই, ২০১৯, ১০:৫৪ এএম

পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বৃদ্ধি ও পাহাড়ী ঢলের ফলে শেরপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটেছে। শেরপুর সদর, শ্রীবরদী ও নকলা উপজেলার আরো অন্তত ১৫টি গ্রাম নতুনকরে প্লাবিত হয়েছে।
শেরপুর-জামালপুর সড়কের নন্দীর বাজার পোড়ার দোকান কজওয়ের (ডাইভারশন) ওপর দিয়ে প্রায় তিন ফুট উচ্চতায় বন্যার পানি দ্রুতবেগে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে ওই সড়কে শেরপুর সঙ্গে জামালপুর ও উত্তরাঞ্চলের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।
এদিকে ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদী উপজেলায় বন্যার পানিতে ডুবে আরও তিন শিশুসহ ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। জেলায় দুই শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হলেও জেলা ত্রাণ অফিস জানায়, বর্ষণ, পাহাড়ি ঢল ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে সৃষ্ট বন্যায় শেরপুরের ৫ টি উপজেলার ৩৭টি ইউনিয়নের ১৮৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে অন্তত ৬৭ হাজার লোক পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। জেলায় ৫৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি ওঠায় ৭ দিন ধরে পাঠদান বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোকসেদুর রহমান।
বন্যায় জেলার বিভিন্ন পুকুর, জলাশয় এবং খামারের মাছ ভেসে এবং পাড় ভেঙে প্রায় ৫ কোটি ১৮ লাখ টাকার মৎস্য সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। এ ছাড়া জেলায় ১২৫ হেক্টর সবজি ক্ষেত এবং ৭৪৭ হেক্টর রোপা আমন ধানের বীজতলা পানিতের ডুবে গেছে।
এপর্যন্ত বন্যা দুর্গতদের মাঝে ৩৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে এবং নতুন করে ঝিনাইগাতী উপজেলার জন্য ১০ মেট্রিক টন এবং শেরপুর সদর উপজেলার জন্য ১০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ