Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার , ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

প্রিয়াঙ্কা গান্ধী যোগীরাজ্যে আটক

হত্যাকান্ডের প্রতিবাদের জের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্য কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে আটক করেছে পুলিশ। বিজেপি শাসিত রাজ্যটির মূখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। গতকাল শুক্রবার প্রিয়াঙ্কার নেতৃত্বে কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দল মির্জাপুরের সোনভদ্রে সংঘর্ষে নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন। মাঝপথেই তাদেরকে বাধা দেয়া হয়। বাধা পেয়েই রাস্তার উপর সদলবলে বসে পড়েন তিনি। সেই সময় তাকে আটক করে পুলিশ।

গত বুধবার উত্তরপ্রদেশের ওই গ্রামে ৩৬ একর জমি নিয়ে বিবাদকে কেন্দ্র করে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। বিরোধের জেরে বুধবার ১০ জনকে গুলি করে হত্যা করে গ্রামপ্রধান ইয়াগি দত্ত ও তার সহযোগিরা। কয়েক প্রজন্ম ধরে বসবাস করা ভ‚মি দখলদারদের ছেড়ে দিতে রাজি ছিলেন না বলে তাদেরকে গুলি করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, ইয়াগি দত্ত ৩২টি ট্রাক্টরে করে ২০০ লোক নিয়ে আসেন জমি দখল করতে। কিন্তু স্থানীয় উপজাতীয়রা নিজেদের ভ‚মি ছাড়তে অস্বীকার করেন। তখন গ্রামপ্রধানের লোকজন আধঘণ্টা ধরে তাদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকেন। এতে ভারতের সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় একটি অভিজাত পরিবারের কাছ থেকে বছর দশেক আগে ওই ভ‚মি কেনার দাবি করে হত্যাকারী ইয়াগি।

গতকাল সকালে বারাণসীতে যান প্রিয়াঙ্কা। সেখানে সোনভদ্রের ঘটনায় আহতদের সঙ্গে দেখা করেন। তার পর তিনি নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে ওই গ্রামের উদ্দেশে রওনা দেন। কিন্তু পুলিশি বাধার মুখে পড়তে হয় তাকে। গ্রামে কোনও রকম জটলা করা যাবে না এই নির্দেশিকা আগেই জারি করেছিল প্রশাসন। প্রিয়াঙ্কা যেতেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

কেন তাকে বাধা দেওয়া হল এই প্রশ্ন তুলে ক্ষোভ উগরে দেন প্রিয়াঙ্কা। সাংবাদিকদের এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘পীড়িত পরিবারগুলোর সঙ্গে শুধু দেখা করতে চেয়েছিলাম। আমার ছেলের বয়সী একটি ছেলে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছে।’ এর পরই তার প্রশ্ন, কোন আইনের ভিত্তিতে আমাকে গ্রামে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না? এ বিষয়ে নির্দেশিকাও দেখতে চান তিনি। রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে বলেও যোগী আদিত্যনাথের সরকারকেও তীব্র আক্রমণ করেন প্রিয়াঙ্কা। তিনি বলেন, ‘বিজেপি শাসিত এই রাজ্যে অপরাধীদের আত্মবিশ্বাস বেড়ে গিয়েছে। দিনেদুপুরে হত্যা করছে। আর এটা ঘটেই চলেছে। সোনভদ্রের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ রকম নৈরাজ্য দেখেও প্রশাসন ও মুখ্যমন্ত্রী ঘুমোচ্ছেন। এটা কি রাজ্যকে অপরাধমুক্ত করার নমুনা?’

এরপর যখন তাকে সরকারি গাড়িতে তুলে নেয়া হচ্ছিল, তখন তিনি বলেন, ‘আমি জানি না, তারা আমাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে। এখন যেকোনো জায়গায় যেতে আমি রাজি আছি।’ এদিকে বোনকে আটকের নিন্দা জানিয়েছেন কংগ্রেসের বিদায়ী সভাপতি রাহুল গান্ধী।

যদিও রাজ্যে মাফিয়াদের প্রভাব বিস্তারের জন্য কংগ্রেসকেই পাল্টা দায়ী করেছেন যোগী আদিত্যনাথ। তিনি বলেন, কংগ্রেস সরকারই মাফিয়াদের রক্ষা করত। সোনভদ্রের ঘটনা তার জলজ্যান্ত উদাহরণ। সূত্র : এনডিটিভি।



 

Show all comments
  • Prodip Kumar ২০ জুলাই, ২০১৯, ১:২৫ এএম says : 0
    Good news
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Matin ২০ জুলাই, ২০১৯, ১:২৫ এএম says : 0
    তার মানে মতলব খারাপ
    Total Reply(0) Reply
  • Alhaj Abul Bashar ২০ জুলাই, ২০১৯, ১:২৬ এএম says : 0
    Only Claim The Muslim Support
    Total Reply(0) Reply
  • Mahbur Rahman Mahbub ২০ জুলাই, ২০১৯, ১:২৬ এএম says : 0
    procced as like bd
    Total Reply(0) Reply
  • Naser Uddin Ahammed ২০ জুলাই, ২০১৯, ১:২৬ এএম says : 0
    বাকশাল ওপারে শুরু হয়েগেছে
    Total Reply(0) Reply
  • Khurshed Alam ২০ জুলাই, ২০১৯, ১:২৭ এএম says : 0
    ভালোইতো কংগ্রেস যেভাবে বাংলাদেশে অত্যাচার নির্যাতন করার পথ শিখিয়েছে এখন পদেপদে কিছুটা হলেও তাদের বেলায় ঘটছে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন