Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

প্রিয়া সাহা পাগল নাকি ধূর্ত?

ফুয়াদ খন্দকার | প্রকাশের সময় : ২১ জুলাই, ২০১৯, ৬:১২ পিএম

মহিলার নাম প্রিয়া সাহা। বাংলাদেশ হিন্দু -বৌদ্ধ- খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।সম্প্রতি এক মত বিনিময় সভায় ট্রাম্পের কাছে তিনি দাবী করেছেন বাংলাদেশের প্রায় ৩ কোটি ৭০ লক্ষ হিন্দু ধর্মাবলম্বী কে নাকি গুম করা হয়েছে। বাড়ি ঘর দখল করা হয়েছে।বাংলাদেশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য তিনি ট্রাম্পের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন। এ ধরনের একটা অবাস্তব বক্তব্য কোন পাগলের প্রলাপ ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না। পাশা পাশি এ রূপ মন্তব্য রাষ্ট্রদোহিতার ও শামিল। তিনি আসলে ঠিক কি কারণে এরকম মন্তব্য করেছেন তা আসলে তদন্ত করে দেখা দরকার। যে মহিলা ট্রাম্পের সাথে কথা বলতে পারে তিনি নিঃসন্দেহে আর ৮-১০ সাধারণ নারীর মতো সাধারণ কেউ নন। শুধুমাত্র এই ভিডিও টা সবার নজরে আসার কারণে তার এই মিথ্যাচার প্রকাশ পেয়েছে। এ পর্যন্ত তিনি দেশের বিরুদ্ধে আর কি কি ষড়যন্ত্র করেছেন তা ও ক্ষতিয়ে দেখা দরকার।

এক গবেষনায় দেখা গেছে সরকারি চাকরীতে প্রায় ৩৩% দখল করে আছেন অন্য ধর্মাবলম্বীরা৷ যেখানে আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতেই সংখ্যাটা মাত্র ২%। এ থেকেই বোঝা যায় আমাদের দেশে অন্য ধর্মাবলম্বীরা বেশ ভালো আছেন। প্রিয়া সাহার স্বামী নিজেও দুদকের একজন বড় কর্মকর্তা

তবে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খিষ্টান ঐক্য পরিষদ থেকে দাবী করা হয়েছে এ বক্তব্য একান্তই তার ব্যক্তিগত। আমরাও সেটা বিশ্বাস করি। এ দেশের শুধু হিন্দুই নয়, পাশাপাশি সকল ধর্মের মানুষেরাই বেশ শান্তিতে বসবাস করে আসছে। দু একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্যাতনের ঘটনা একে বারে নেই বললেই চলে। সারা বিশ্বেই যখন সাম্প্রদায়িক মুক্ত বাংলাদেশের প্রশংসা চলছে ঠিক সেই সময় একদম বিপরীত মুখি বক্তব্য পেশ করে টক অফ দ্য টাউনে পরিণত হয়েছেন এই প্রিয়া সাহা। শুধু বাংলাদেশ নয়, পাশাপাশি হতবাক হয়েছে গোটা বিশ্ব।

ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহা বেশ ঘটা করে বিচার দিলেও বাংলাদেশে নিযুক্ত আমেরিকান রাষ্ট্রদূত কিন্তু বলছেন একদম ই ভিন্ন কথা। তিনি এ ঘটনা কে মিথ্যা আখ্যায়িত করে সমর্থন দিয়েছেন বাংলাদেশকে। আর প্রিয়া সাহা যে বিরাট মিথ্যাচার করছেন তা ধরার জন্য কিন্তু কোন বোদ্ধা হওয়ার ও প্রয়োজন হয়না। কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর খুজলেই তার মিথ্যাচার বেশ সহজেই ধরা পরে যায়।

তিনি দাবি করেছেন ৩৭ মিলিয়ন (৩ কোটি ৭০ লক্ষ) হিন্দু ধর্মাবলম্বী কে গুম করা হয়েছে । মুসলিম প্রধান এ দেশে অন্য সকল ধর্মের মানুষের সমষ্টি ও তো এত মানুষ হবে না। আর তিনি দাবী করছেন গুম! কত বড় স্পর্ধা হলে নিজের দেশের নামে এভাবে অন্যের কাছে মিথ্যাচার করা যায় আমার জানা নেই নিঃসন্দেহে তিনি একজন পাগল। আর তা না হলে এ ধরনের কাজ তিনি করতে পারতেন না। নয়তো বা তিনি অত্যন্ত ধূর্ত প্রাণী। এর পিছনে তার অন্য কোন উদ্দেশ্য আছে। অন্য কোন পরিকল্পনা আছে। যার অংশ হিসেবে তিনি তার এজেন্ডা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন।

দ্রুত তদন্ত সাপেক্ষে এই প্রিয়া সাহা কে আইনের আওতায় আনা হোক। পাশাপাশি শুধু মাত্র প্রিয়া সাহাকে কেন্দ্র করে হিন্দু ধর্মাবলম্বি ভাই বোনদের নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন তাদের এ ধরনের আচরণ থেকে বিরত থাকা উচিত। একজন মানুষ কে দিয়ে কখনো কোন জাতিকে বিচার করা যায় না।



 

Show all comments
  • ash ২২ জুলাই, ২০১৯, ৬:১২ এএম says : 0
    ..... SHAHA DESH E AKTA OROJAKOTA SRISHTIR CHESHTA KORCHE ! JATE DESHER NAM KHUNNO HOY, OKE OBOSHO E AINER AWTAY ENE JIGGASHA KORA WICHITH, OR JAMAI PASSSAY DUITA LATHI MELER DUDOK THEKE BER KORA WICHITH, DESHER SHARTHE
    Total Reply(0) Reply
  • Nannu chowhan ২২ জুলাই, ২০১৯, ৯:৩৪ এএম says : 0
    Pria shaha oboshshoi dhurtto,she bideshi gerua bahinir karjjo kolaper eai deshio agent tate kono shondeho nai....
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রিয়া সাহা


আরও
আরও পড়ুন