Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

আমার তথ্য বিকৃত করেছেন প্রিয়া সাহা

বিবৃতিতে ড. আবুল বারকাত

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

অর্থনীতিবিদ ড. আবুল বারকাতের নাম উল্লেখ করে প্রিয়া সাহা বিকৃতভাবে তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তার নাম করে যে বক্তব্য প্রিয়া সাহা দিয়েছেন তা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন আবুল বারকাত।

গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি এ দাবি জানান। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সভাপতি ড. আবুল বারকাত বিবৃতিতে বলেছেন, প্রিয়া সাহা বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ পত্র-পত্রিকায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের দেশত্যাগ ও সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আমার নাম উল্লেখ করে কিছু তথ্য-উপাত্ত বিকৃতভাবে উপস্থাপন করেছেন। বিষয়টি আমার নজরে এসেছে।

ড. বারকাত বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহা বলেছেন, ‘বাংলাদেশ থেকে ৩ কোটি ৭০ লাখ সংখ্যালঘু নিখোঁজ রয়েছেন। এরপর ভিডিও সাক্ষাৎকারে তিনি আমার নাম উল্লেখ করে বলেছেন, উল্লেখিত পরিসংখ্যান আমার গবেষণাউদ্ভূত তথ্য-উপাত্তের সঙ্গে মিলে যায় (অথবা একই)। তিনি এও বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে প্রতিদিন ৬৩২ জন লোক হারিয়ে যাচ্ছে। ২০১১ সালে স্যারের সঙ্গে সরাসরি কাজ করেছিলাম, যার কারণে বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবহিত।

আবুল বারকাত বলেন, প্রিয়া সাহার উপরোক্ত বক্তব্যের সঙ্গে আমার গবেষণার তথ্য-উপাত্তের কোনো মিল নেই। আমার গবেষণায় যা আছে, তা হলো- আমার হিসাবে প্রায় ৫ দশকে ১৯৬৪ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত আনুমানিক ১ কোটি ১৩ লাখ হিন্দু ধর্মাবলম্বি মানুষ নিরুদিষ্ট হয়েছেন। (উৎস: আবুল বারকাত বাংলাদেশে কৃষি ভূমি জলা সংস্কারের রাজনৈতিক অর্থনীতি-২০১৬)। অর্থাৎ, আমি কোথাও ৩ কোটি ৩৭ লাখ সংখ্যালঘু নিখোঁজ রয়েছেন আমি বলিনি। উপরন্তু তিনি কোথাও বললেন না, আমার গবেষণা তথ্যটির সময়কাল ৫০ বছর (১৯৬৪ থেকে ২০১৩ সাল)।
তিনি আরো বলেন, প্রিয়া সাহা কখনও আমার সহ-গবেষক, গবেষণা সহযোগী অথবা গবেষণা সহকারী ছিলেন না। ২০১১ সালে সরকারি আদমশুমারি তথ্যের ভিত্তিতে ১৯০১-২০০১ সাল পর্যন্ত ধর্মগোষ্ঠীর আনুপাতিক হার উল্লেখ করেছি মাত্র। একজন সমাজ গবেষক হিসেবে আমি নিশ্চিত হতে চাই যে, প্রিয়া সাহা আমার নাম উল্লেক করে যেসব বিভ্রান্তিমূলক ও নীতি গর্হিত বক্তব্য দিয়েছেন তিনি অতি দ্রæত তা প্রত্যাহার করে নেবেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন