Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০৯ ভাদ্র ১৪২৬, ২২ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

ইউএনওর বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ

শিবপুরে বাজার ইজারার শর্ত ভঙ্গ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৫ এএম


সরকার আদম আলী, নরসিংদী থেকে : ইজারার শর্ত ভঙ্গ করায় শিবপুর কলেজ গেট বাজারের ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে টাকা আদায়সহ দরপত্র আহŸানের সকল কার্যক্রমের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে হাইকোর্ট।

শেখ কামাল হোসেন নামে একজন ঠিকাদার বাজারের ইজারাদার মাহবুবুর রহমান রিকাবদার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দাখিলকৃত রিট পিটিশনের পরিপেক্ষিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। কিন্তু হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী না করায় শিবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে কেন আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করা হবে না মর্মে নোটিশ দিয়েছে সংশ্লিষ্ট আইনজীবী। বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও ইউএনও হুমায়ুন কবিরকে ব্যাখ্যা প্রদানের নোটিশ দেওয়া হয়েছে।
জানা গেছে, চলতি বছরের ২৪ ফেব্রæয়ারি শিবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে শিবপুর কলেজ গেট বাজার ইজারা বন্দোবস্ত দেয়ার টেন্ডার আহŸান করা হয়। এতে মোট তিনজন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশগ্রহণ করেন। এরমধ্যে ১৭ লাখ ১১ হাজার টাকা দরপত্র দিয়ে, সর্বোচ্চ দরদাতা নির্বাচিত হন মাহবুবুর রহমান রিকাবদার। ১৪ লাখ ৫৪ হাজার টাকার দরপত্র দাখিল করে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতা নির্বাচিত হন শেখ কামাল হোসেন। সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির গত ২৮ ফেব্রæয়ারি ঠিকাদার মাহবুবুর রহমান রিকাবদারকে ইজারদার নিয়োগ করেন। নিয়োগপত্রে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে ৭৫ ভাগ ইজারার টাকা, ৫ ভাগ জামানতের টাকা, ৫ ভাগ আয়কর এবং ১৫ ভাগ ভ্যাট সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। সে অনুযায়ী ৭ মার্চের মধ্যে উল্লেখিত অংকের টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু ইজারাদার মাহবুবুর রহমান রিকাবদার নির্ধারিত সময়ে সরকারি কোষাগারে টাকা জমা না দিয়েই বাজার থেকে খাজনার টাকা আদায় শুরু করেন।

এই অবস্থায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতা শেখ কামাল হোসেন স্থানীয় প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করে ব্যর্থ হয়ে হাইকোর্টে রিট পিটিশন দাখিল করেন। হাইকোর্ট রিট পিটিশনের ওপর শুনানি শেষে বাজার থেকে খাজনা আদায়সহ ইউনি অফিস থেকে আহŸানকৃত টেন্ডার কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। এ নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার পরও খাজনা আদায় বন্ধ না করায় শেখ কামাল হোসেনের পক্ষ থেকে তার আইনজীবী, আদালত অবমাননার অভিযোগে ইউএনও হুমায়ুন কবির কেন মামলা দায়ের করা হবে না মর্মে একটি লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ঠিকাদার শেখ কামাল হোসেন সাংবাদিকদেরকে বলেন, হাট বাজার ইজারা শর্ত ভঙ্গ করা হলে স্বাভাবিকভাবেই ইজারা বাতিল হয়ে যায়। নিয়ম অনুযায়ী নতুন করে টেন্ডার আহবান করে বাজার বন্দোবস্ত দিতে হয় নতুবা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতাকে বন্দোবস্ত দেয়ার বিধান রয়েছে। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির পরোক্ষভাবে ঠিকাদার মাহবুবুর রহমান রিকাবদারের পক্ষপাতিত্ব করছেন। যার ফলে আমি হাইকোর্টের আশ্রয় নিয়েছি।

এ ব্যাপারে ইউএনও হুমায়ুন কবির সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, চিঠিটি ২৮ ফেব্রæয়ারী ইস্যু করা হলেও ইজারাদার চিঠিটি পেয়েছেন ৫ মার্চ। তিনি টাকা জমা দিয়েছেন ১৩ মার্চ। এতে সরকারি নিয়মে কোন ব্যত্যয় ঘটেনি। তবু আমরা হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা যথাসময় কার্যকর করেছি। ইজারাদার মাহবুবুর রহমান রিকাবদার বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার পর ইউএনও অফিস থেকে একটি জবাবও দেয়া হয়েছে। এছাড়া গত শুক্রবার থেকে বাজারের খাজনা আদায় বন্ধ রাখা হয়েছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ