Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ০৬ জুন ২০২০, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১৩ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

আমরা চাই মানুষ যেন ডেঙ্গুর চিকিৎসায় হয়রানি না হন : হাইকোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩০ জুলাই, ২০১৯, ১২:০০ এএম

ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলোকে কোনোভাবেই পাঁচ তারকা হোটেল হতে দেয়া যাবে না। যেসব বেসরকারি হাসপাতালে ফাইভ স্টার মানের বিল আদায় করা হচ্ছে তাদের সেবার মানও যেন ‘পাঁচ তারকা ’র মতো হয়। আমরা চাই মানুষ ডেঙ্গুর চিকিৎসা করতে হয়রানির শিকার না হোন। এ কথা বলেছেন হাইকোর্ট। গতকাল সোমবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান এবং বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের ডিভিশন বেঞ্চ এ মন্তব্য করেন। মন্তব্যের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো ডেঙ্গু পরীক্ষায় সরকার নির্ধারিত ৫শ’ টাকার বেশি আদায় করছে কিনা- সেটি মনিটর করার নির্দেশ দিয়েছেন। রোগীদের পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হচ্ছে কিনা তাও দেখতে বলেন আদালত। এ ছাড়া সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি হাসাপাতালেও প্যারাসিটামল ও ডেঙ্গু রোগীর স্যালাইন সরবরাহ করার পরামর্শ দেন হাইকোর্ট। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালককে এ আদেশ পালন করে আগামী ১ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত ২৫ জুলাই ‘ ডেঙ্গু পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি’ আদায় করা হচ্ছে-মর্মে সংবাদ মাধ্যমে তথ্য আসে। বিষয়টি আদালতের দৃষ্টিতে আনলে স্ব-প্রণোদিত হয়ে উপরোক্ত আদেশ। এর আগে বেসরকারি মেডিকেল, হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া শনাক্ত করার জন্য পরীক্ষার ফি নির্ধারণ এবং তা সবার সাধ্যের মধ্যে রাখার ব্যবস্থা নিতে স্বাস্থ্য অধিদফতরকে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। গতকাল এ বিষয়ে সরকার গৃহিত হালনাগাদ তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রাইভেট হাসপাতালের প্রত্যেক প্রতিনিধিদের নিয়ে মিটিং করা হয়েছে। সব হাসপাতালকে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য অগ্রাধিকার সেবার মান, বেড বৃদ্ধি এবং সরকার নির্ধারিত পরীক্ষার ফি নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদন হাতে পেয়ে আদালত বলেন, আমরাও চাই রোগীরা যেন অতিরিক্ত ফি আদায়ের নামে হয়রানির শিকার না হয়।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হাইকোর্ট


আরও
আরও পড়ুন