Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

পল্লবীতে কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে থানায় জিডি

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০০ এএম

নগর পিতাসহ নগরের উন্নয়নে বিভিন্ন সেক্টরে দায়িত্বপ্রাপ্তদের বিরুদ্ধে ‘নগর উন্নয়ন ও নাগারিক সুবিধা নিশ্চিতে’ উদাসীনতা ও দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ বহু পুরনো। এত বছর কেবল মুখে হাক-ডাক দিয়ে অভিযোগ করেই ক্ষান্ত ছিলেন নগরবাসী। তবে এবার একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন এক নগরবাসী।

রাজধানীর পল্লবীতে দীর্ঘদিন ধরে মশার ওষুধ না ছিটানোর অভিযোগে এবং ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কায় স্থানীয় কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে বসেছেন ইউসুফ আহমেদ নামের এক নাগরিক। গতকাল বুধবার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেনের বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় এই জিডি (নং-২৭৬৬) করা হয়। অভিযোগকারী ইউসুফ মিরপুর পল্লবীর ১২ নম্বর সেকশনের বি বøকের বাসিন্দা।
গত তিন বছরে একবারও পল্লবীর এভিনিউ-১ এলাকায় মশার ওষুধ ছিটানো হয়নি উল্লেখ করে ইউসুফ তার জিডিতে বলেন, আমি নিয়মিতভাবে বাড়ির হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধ করে আসছি। সিটি কর্পোরেশনের সব সুবিধা আমার প্রাপ্য। কিন্তু সাজ্জাদ হোসেন কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর গত ৩ বছরে একবারও আমাদের এলাকায় মশার ওষুধ দেয়া হয়নি। একাধিকবার ফোন করলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। বর্তমানে এডিস মশার প্রকোপে আমরা আতঙ্কিত। আমাদের এলাকায় অনেকে এই জ্বরে আক্রান্ত। আমিও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হতে পারি। তাই জনস্বার্থে বিষয়টি থানায় নথিভুক্ত করে রাখলাম। দেখি প্রশাসন সংশ্লিষ্টদের পক্ষ থেকে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়।
অভিযোগের বিষয়ে ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, গত (মঙ্গলবার) ওই ভদ্রলোক আমাকে ফোন করেছিলেন, আমি তাকে কথা দিয়েছি তার এলাকায় ওষুধ দেব। পরবর্তীতে আমি ওষুধ দিয়েছি। তিনি বলেন, আমার এলাকাটি বড়। যার কারণে সব জায়গায় একসাথে ওষুধ ছিটানো যায় না। একেক এলাকায় একেক সময় ছিটানো হয়। সিটি কর্পোরেশন থেকে ওষুধ পাওয়ার পর আমরা ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে ওষুধ ছিটাই। এবার ওষুধ পেয়ে ৭ দিনের মধ্যেই ছিটানো হয়েছে।
এদিকে, জিডির তদন্ত কর্মকর্তা পল্লবী থানার এসআই আসাদুজ্জামান বলেন, জিডির বিষয়ে শুনেছি। এখনো কাগজ হাতে পাইনি। কাগজ হাতে পেলে প্রকৃত ঘটনা খতিয়ে দেখা হবে।
##



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ