Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ০৭ ভাদ্র ১৪২৬, ২০ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

হজ বিষয়ক ভুলভ্রান্তি-১

মাওলানা মুহাম্মাদ ইয়াহইয়া | প্রকাশের সময় : ৩ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০০ এএম

হজই একমাত্র ইবাদত, যার নিয়ত করার সময়ই আল্লাহ তায়ালার নিকট সহজতা ও কবুলের দোয়া করা হয়। অন্যান্য ইবাদত থেকে হজের আমলটি যে কঠিন তা এ থেকেই স্পষ্ট। হজের সঠিক মাসআলার জ্ঞান যেমন জরুরি, তেমনি তা আদায়ের কৌশল এবং পূর্ব অভিজ্ঞতার আলোকে করণীয় বিষয়গুলোর প্রতি পূর্ণ খেয়াল রাখাও জরুরি।

হজে যেসব ভুল হতে দেখা যায় তা সাধারণত উদাসীনতার কারণেই হয়ে থাকে। তাই নিম্নে সচরাচর ঘটে থাকে এমন কিছু ভুল উল্লেখ করা হচ্ছে, যেন হাজীগণ এসব ভুলভ্রান্তি থেকে বেঁচে সুষ্ঠুরূপে হজ আদায়ে সক্ষম হন। আল্লাহ তায়ালা তাওফিক দান করুন।

ইহরামের দুই রাকাত নামাজের জন্য ইহরাম বিলম্বিত করা : ইহরাম বাঁধার আগে দুই রাকাত নামাজ পড়ার নিয়ম আছে। তাই অনেককে দেখা যায়, এ দুই রাকাত নামাজের সুযোগ না পাওয়ার কারণে ইহরাম বিলম্বিত করতে থাকে। এমনকি এ নামাজ পড়তে না পারার কারণে কেউ কেউ ইহরাম ছাড়াই মীকাতের ভেতরে পর্যন্ত চলে যায় অথচ ইহরাম ছাড়া মীকাত অতিক্রম করা জায়েজ নয়।

তারা যেহেতু ইহরামের আগে দুই রাকাত নামাজ আদায়কে জরুরি মনে করে তাই তারা এমনটি করে থাকে। অথচ ইহরামের আগে নামাজ পড়া সকল মাজহাবেই মুস্তাহাব; জরুরি কিছু নয়। পক্ষান্তরে ইহরাম ছাড়া মীকাত অতিক্রম করা নাজায়েজ। সুতরাং ইহরামের আগে নামাজের সুযোগ পেলে তো তা আদায় করা চাই, কিন্তু সুযোগ না পেলে সে কারণে ইহরাম বাঁধাকে বিলম্ব করবে না। -সহিহ মুসলিম ১/৩৭৬।

ইহরাম বাঁধার নিয়ম সংক্রান্ত ভ্রান্তিসমূহ : অনেকে মনে করে থাকে যে, ইহরামের কাপড় পরে নামাজ পড়ার পর নিয়ত করলেই ইহরাম সম্পন্ন হয়ে যায়। এ ধারণা ভুল। এগুলো দ্বারা ইহরাম সম্পন্ন হয় না। নিয়ত আরবীতে করা হোক বা বাংলাতে, সশব্দে করা হোক বা মনে মনে এর দ্বারা ইহরাম সম্পন্ন হয় না; বরং নিয়তের পর তালবিয়া পড়লে ইহরাম পূর্ণ হয়। অতএব বোঝা গেল, ইহরাম সম্পন্ন হয় দুই বস’র সমন্বয়ে : ১. হজ বা উমরার নিয়ত করা ও ২. তালবিয়া পড়া। -জামে তিরমিযী ১/১০২।

মক্কাগামীদের জন্য জিদ্দায় ইহরাম বাঁধা : কেউ কেউ আগে থেকেই ইহরাম বাঁধা ঝামেলা মনে করে এবং ভাবে যে, ইহরাম বেঁধে নিলেই তো ইহরামের নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হয়ে যাবে। বিমান যেহেতু জিদ্দায় অবতরণ করবে, তাই জিদ্দায় ইহরাম বাঁধার ইচ্ছায় ইহরামকে বিলম্বিত করে। অথচ মীকাতের বাইরের হাজীদের জন্য ইহরাম ব্যতীত মীকাত অতিক্রম করা জায়েজ নেই। উপমহাদেশ থেকে গমনকারী হাজীদের জন্য মীকাত হলো কারনুল-মানাজিল ও যাতু ইরক যা অতিক্রম করেই জিদ্দায় যেতে হয়।
যদি কেউ বিনা ইহরামে মীকাত অতিক্রম করে তবে তার জন্য পুনরায় মীকাতে ফিরে এসে ইহরাম বেঁধে যাওয়া জরুরি। যদি তা না করে তবে দম ওয়াজিব হবে। যেহেতু বিমানে থাকা অবস্থায় মীকাতের জায়গা নির্ধারণ করা কঠিন বা ওই সময় ঘুমিয়ে পড়া, অন্যমনস্ক থাকা ইত্যাদি হতে পারে। তাই বিমানে চড়ার আগে কিংবা বিমানে উঠেই ইহরাম বেঁধে নেয়ার কথা বলা হয়। -মুসান্নাফ ইবনে আবী শায়বা হাদিস : ১৫৭০২।



 

Show all comments
  • সৈকত ফকির ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৫ এএম says : 0
    কেউ কেউ মনে করেন যে, মুযদালিফা থেকে কঙ্কর সংগ্রহ করা না হলে কঙ্কর নিক্ষেপ সহিহ হবে না। এ কারণে আপনি দেখবেন যে, তারা মীনাতে পৌঁছার আগে মুযদালিফা থেকে কঙ্কর কুড়াতে গিয়ে ক্লান্ত হচ্ছেন। এটি ভুল ধারণা। বরং কঙ্কর যে কোন স্থান থেকে সংগ্রহ করা যাবে; মুযদালিফা থেকে, মীনা থেকে, কিংবা অন্য যে কোন স্থান থেকে। উদ্দেশ্য হচ্ছে কঙ্কর হওয়া।
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৬ এএম says : 0
    খুবই উপকারী আলোচনা। ধন্যবাদ ইনকিলাবকে।
    Total Reply(0) Reply
  • জিন্নাতারা ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৭ এএম says : 0
    হজই একমাত্র ইবাদত, যার নিয়ত করার সময়ই আল্লাহ তা’আলার কাছে সহজতা ও কবুলের দু’আ করা হয়। অন্যান্য ইবাদত থেকে হজের আমলটি যে কঠিন তা এ থেকেই স্পষ্ট। হজের সঠিক মাসআলার জ্ঞান যেমন জরুরি, তেমনি তা আদায়ের কৌশল এবং পূর্ব অভিজ্ঞতার আলোকে করণীয় বিষয়গুলোর প্রতি পূর্ণ খেয়াল রাখাও জরুরি।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ নাজমুল ইসলাম ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৭ এএম says : 0
    হজে যে সকল ভুল হতে দেখা যায়, তা সাধারণত উদাসীনতার কারণেই হয়ে থাকে।
    Total Reply(0) Reply
  • মনিরুল ইসলাম ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৮ এএম says : 0
    শুকরিয়া, হাজীরা এ সকল ভুল-ভ্রান্তি থেকে বেঁচে সুষ্ঠুভাবে হজ আদায়ে সক্ষম হন। আল্লাহ তা’আলা তাওফিক দান করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • হাদী উজ্জামান ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৮ এএম says : 0
    অনেকে জামাতবদ্ধ হয়ে তাওয়াফ করে এবং জামাতের মধ্যে একজন মুখস্থ বা দেখে দেখে উঁচু আওয়াজে দু’আ পড়েন আর তার সঙ্গে পুরো জামাত সমস্বরে দু’আ পড়তে থাকেন। এ নিয়মে একাধিক আপত্তিকর বিষয় রয়েছে
    Total Reply(0) Reply
  • সোয়েব আহমেদ ৩ আগস্ট, ২০১৯, ২:৪৯ এএম says : 0
    সবুজ দুই পিলারের মধ্যবর্তী স্থানে মধ্যম গতিতে দৌড়ানো পুরুষের জন্য মুস্তাহাব। কিন্তু কোনো কোনো মহিলাও এ স্থান দৌড়ে পার হয়। অথচ মহিলাদের জন্য এখানেও দৌড়ানো নিষেধ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হজ

২২ আগস্ট, ২০১৯
১০ আগস্ট, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ