Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

কাশ্মীর পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে পুরো বিশ্বকে ভুগতে হবে: ইমরান খান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০১৯, ১১:২৯ এএম

কাশ্মীর সংকটে ভারতকে হুশিয়ারি দিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, বিরোধপূর্ণ অঞ্চলটিতে সামনে উত্তেজনা বাড়লে কেউ-ই জয়ী হবে না। মঙ্গলবার পার্লামেন্টে দেয়া বক্তব্যে তিনি বলেন, যদি ক্রমবর্ধমান ঘটনাবলি সংঘাতের দিকে যায়, তবে কেউ-ই বিজয়ী হবে না। পুরো বিশ্বসহ দুপক্ষই শেষ পর্যন্ত মারাত্মক পরিণতির মুখোমুখি হবে।

ভারতের পদক্ষেপ কাশ্মীরের আগুনে নতুন করে ইন্ধন দেবে বলেও মন্তব্য করেন ইমরান খান। সাবেক এই ক্রিকেট তারকা বলেন, নির্মম বাহিনী কর্তৃক তাদের অনস্বীকার্য অধিকার ও নিশ্চয়তা কেড়ে নেয়ার বিষয়টি তারা পর্যবেক্ষণে রেখেছেন।

পাকিস্তানভিত্তিক পিটিভিকে তিনি বলেন, এতে কাশ্মীরি প্রতিরোধ আরও বেশি উসকে দেবে এবং বিশৃঙ্খলা তৈরি করবে। কাশ্মীরের ঘটনাকে তিনি জাতিসংঘে তুলে ধরার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি অভিযোগ করেন, ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) অধীন দেশটির সংখ্যালঘুদের প্রতি বর্ণবাদী আচরণ করা হচ্ছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে জার্মানিতে নাৎসিদের প্রতি ব্রিটেনের নীতি উল্লেখ করে ইমরান খান বলেন, শান্তির নীতি কার্যকর হবে না-বিষয়টি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বুঝতে হবে। তাই বিশ্বের কাছে আমার আকুল আবেদন, এ বিষয়টিতে নজর দেয়ার।

ভারতের সংবিধানে অধিকৃত কাশ্মীরকে যে বিশেষ মর্যাদা দেয়া হয়েছিল, তা তুলে নেয়ার পর থেকে দেশের অন্যান্য জায়গার সঙ্গে অঞ্চলটির যোগাযোগ একেবারেই বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে।

রোববার সন্ধ্যা থেকে বন্ধ করা ইন্টারনেট ও টেলিফোন নেটওয়ার্ক এখনও সচল হয়নি; উপত্যকাটির বিভিন্ন সড়কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাজার হাজার সদস্যের টহল অব্যাহত আছে।

বিবিসি বলছে, সংবিধানের ওই বিশেষ মর্যাদা বাতিলের ঘটনা কাশ্মীরজুড়ে তুমুল বিক্ষোভ ও প্রতিবাদের বিস্ফোরণ ঘটাবে বলে ধারণা করা হলেও মানুষ সেখানে কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে তার কোনো খবর মিলছে না। স্থানীয় নেতারা এখনও আটকাবস্থাতেই আছেন।

১৯৪৭-এর পর থেকেই ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই হিমালয় অঞ্চলের কাশ্মীরকে নিজেদের বলে দাবি করে এলেও নয়া দিল্লি ও ইসলামাবাদ এখন অঞ্চলটির আলাদা দুটি অংশের নিয়ন্ত্রক।

ভারতশাসিত অংশে দীর্ঘদিন ধরেই বিচ্ছিন্নতাবাদী বিভিন্ন সংগঠনের তৎপরতাও দেখা গেছে, যাতে প্রাণ হারিয়েছে হাজার হাজার লোক।

শ্রীনগরে বিবিসির প্রতিনিধি আমির পীরজাদা সোমবার দিল্লিতে থাকা সহকর্মীদের সঙ্গে টেলিফোনে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন।

ইমরান খান বলেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদসহ বিশ্বের প্রতিটি ফোরামে এই ইস্যু নিয়ে আমরা লড়ব। বিষয়টি তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে নিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব যদি আজ কোনো পদক্ষেপ না নেয়, যদি উন্নত বিশ্ব নিজেদের আইনকেই সমর্থন না জানায়, তা হলে পরিস্থিতি এমন জায়গায় যাবে, যেটার জন্য আমরা দায়ী থাকব না।

‘ভারত যদি কাশ্মীরিদের ধ্বংস করে দিতে চায়, তবে কাশ্মীরিদের কাছ থেকেও তার প্রতিক্রিয়া আসবে। এতে অঞ্চলিক সহিংসতা আরও বাড়বে। যাতে অতীতে দুই পরমাণু অস্ত্রে সমৃদ্ধ প্রতিবেশী দেশ সংঘাতে জড়িয়েছে।’



 

Show all comments
  • kkio ৭ আগস্ট, ২০১৯, ১১:৫৭ এএম says : 0
    Do everything you can to stop the trade war between US and China. Convince China to give in to Donald Trump demand and help US economy at the cost of its own economy. ZulfiKar Bhutto convinced China to build trade relation with US and China benefitted from this relation immensely. Do something like that. You will again reach upper hand over India.
    Total Reply(0) Reply
  • অনর্থক প্যাচাল ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০২ পিএম says : 0
    কাশ্মীর ইস্যুতে মোদিকে সমর্থন করে ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করার তিন ঘন্টার মাথায় সুষমার মৃত্যু! অতএব কাশ্মীর ইস্যুতে মোদিকে সমর্থন করার আগে সবাই অন্তত সাতবার ভাবুন!
    Total Reply(0) Reply
  • RS Rajoanul Saddam ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৩ পিএম says : 0
    সাবাস তুমিই (ইমরান ও এরদোয়ান ) মুসলিম বিশ্বের যোগ্য নেতা। আল্লাহ আপনাদের শক্তি, সামর্থ্য ও মনোবল বাড়িয়ে দিক।
    Total Reply(0) Reply
  • Sazzadul Sohag ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৩ পিএম says : 0
    মানুষ জাতির মধ্যে মুসলমান হলো সবচেয়ে ধৈয্যশীল, শান্তিপ্রিয় , আর সাহসী । কিন্তু সেই ধৈয্যের বাধ যদি ভেঙ্গে যায়, তখন সাহসী রুপ দেখে সারা বিশ্ব বাসীর ঘুম হারাম হয়ে যায়। কারন তারা জানে মুসলমানদের বিজয় নিশ্চিত । হিন্দুস্থান ধংসের শুরু এই কাশ্মীর ইসু নিয়ে । কাশ্মীর স্বাধীন হবে এটা নিশ্চিত, হয়তো সময় একটু বেশি লাগবে।তবে সেই স্বাধীনতা দেখার ভাগ্য কাশ্মীর এর সব জনগন না দেখতে পারলেও সারা বিশ্ব ঠিকই দেখবে।।
    Total Reply(0) Reply
  • Imam Hossain ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৪ পিএম says : 0
    রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য নয়,সমস্ত মুসলিম জাহানকে এক জাতি ও মুসলমানগণ পরস্পর ভাই ভেবে তাদের বিপদে মুসলিম নেতাদের এগিয়ে আসতে হবে।আল্লাহু আকবার.,
    Total Reply(0) Reply
  • Anjum Aysha ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৪ পিএম says : 0
    আমাদের এখন ইন্ডিয়ান পণ্য বর্জন করা উচিত। সৌদী আরব,কাতার,মালেশিয়া,আরব আমিরাত যদি ইন্ডিয়ান পণ্য বর্জন করে আর তাদের শ্রমিক নেওয়া বন্ধ করে দেয় তাহলে 90% ইন্ডিয়ান অর্থনীতি এখানেই ধ্বংস হয়ে যাবে।মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশগুলো যদি ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে এই রকম কোন পদক্ষেপ নেয় তাহলে বাংলাদেশের জন্য মধ্যপ্রাচ্যে নতুন বাজার খুলবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Muhammad Shafiuddin ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৫ পিএম says : 0
    তার সাথে কাশ্মীরের জনগনকে রাইফেল দিন, যাতে তারা গুলির জবাব পাথরে নয়-গুলিতেই দিতে পারে,, বড় অস্ত্রের চেয়ে ক্ষুদ্রাস্ত্রও অনেক কার্যকর হবে, ভারতীয় হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে,,
    Total Reply(0) Reply
  • Shawon Shah ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৫ পিএম says : 0
    আল্লাহু আকবর, এই হলো সত্যিকারের মুসলিম সেনাপতি,মুসলিম মুসলিম ভাই ভাই,এক ভাইয়ের বিপদে আরেক ভাই এগিয়ে আসবেই,,
    Total Reply(0) Reply
  • Mor Tuza Mohammad ৭ আগস্ট, ২০১৯, ২:০৬ পিএম says : 0
    এরদোয়ান,মাহাতি,এমরান কেটে পেলবে চিড়ে পেলবে কিন্তু বাস্তবে তারা কাজের কাজ কিছু দেখাতে পারছে? কথা কম বলে কাজে নেমে পরলে তো হয়
    Total Reply(0) Reply
  • abdul mozid ৭ আগস্ট, ২০১৯, ৭:৪৩ পিএম says : 0
    allah taala bolechen tomora iahudi o nasara totha bidhormider bondhu vebona
    Total Reply(0) Reply
  • Rina Ali Afsari ৮ আগস্ট, ২০১৯, ১০:৪৮ পিএম says : 0
    ভারতের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব গনতন্ত্রকে ধ্বংস করে ভারতীয় জাতীয় ঐক্য কে নস্যাৎ করার জন্য, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রবাবু একাই যথেষ্ট। সংখ্যা লঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের নির্মম নির্যাতনের মধ্যে দিয়ে তার শুভ সুচনা হল মাত্র। সেই দিন আর বেশি দূরে নয়, যেই দিন ভারত ১৭ টি ভাগে বিভক্ত হবে, ভারতের মানচিত্রে স্বাধীন মুসলিম রাষ্ট্রের ঘোষণা আসবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Rina Ali Afsari ৮ আগস্ট, ২০১৯, ১০:৪৮ পিএম says : 0
    ভারতের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব গনতন্ত্রকে ধ্বংস করে ভারতীয় জাতীয় ঐক্য কে নস্যাৎ করার জন্য, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রবাবু একাই যথেষ্ট। সংখ্যা লঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের নির্মম নির্যাতনের মধ্যে দিয়ে তার শুভ সুচনা হল মাত্র। সেই দিন আর বেশি দূরে নয়, যেই দিন ভারত ১৭ টি ভাগে বিভক্ত হবে, ভারতের মানচিত্রে স্বাধীন মুসলিম রাষ্ট্রের ঘোষণা আসবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Mustafizur Rahman Ansari ১১ আগস্ট, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
    Good Decision,Appreciate My Brother IMRAN KHAN and All Muslim Leaders.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান

২৯ নভেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ