Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

রাজাপুর বিষখালী নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষ আতংকিত

রাজাপুর ( ঝালকাঠি) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৮ আগস্ট, ২০১৯, ৩:৩১ পিএম

লঘুচাপের প্রভাবে ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার বিষখালী নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের তুলনায় ৯০ থেকে ১২২ সেঃমিঃপানি বৃদ্ধি পাওয়া বিষখালী নদীর তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।বিষখালী নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষ আতংকিত। বুধবার সকাল থেকে বিভিন্ন এলাকায় নদীর পানি ঢুকতে শুরু করেছে। রাজাপুরে ভেড়ি বাঁধ না থাকায় বিষখালী নদীর পানিতে তলিয়ে গেছে ফসলের ক্ষেত ও পুকুর জলাশয়। বন্যা আতঙ্কে রয়েছে নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ।
জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম আতাউর রহমান জানান, সুগন্ধা ও বিষখালী নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩/৪ ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। মঠবাড়ি ইউপি চেয়্যারম্যান মোঃ মোঃ মোস্তফা কামাল সিকদার,বলেন - মানকি,সুন্দর বাদুরতলা, পুখরীজনা গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।পুকুর ও বীজ তলা পানিতে ডুবে গেছে। রাজাপুরের বড়ইয়া ইউপি চেয়্যারম্যান মোঃ শাহ আলম মন্টু বলেন- বড়ইয়ার দক্ষিনাঞ্চল সমস্ত বাড়ি উঠান ডুবে গেছে, স্বাভাবিক জোয়ারের তুলনায় ৩-৪ ঠুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে, পালট,নিজামিয়া, দঃ পালট, উত্তর পালট,উত্তর পালট, উঃ বড়ইয়া বীজতলা, মাছের ঘের,পুকুর তলিয়ে গেছে। রাজাপুর কৃষিকর্মকর্তা রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর বলেন- লঘু চাপের প্রভাবে ৯০ থেকে ১২২ সেঃমিঃ পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।উপজেলার নিম্নাঞ্চল এলাকা আমনের বীজতলা পানির নিচে তলিয়ে গেছে। বিজতলা র এখন পর্যন্ত কোন ক্ষতি হয়নি,পানিটা আর ৪/৫ দিন স্থায়ী হলে বিজতলার ক্ষতির আশংকা রয়েছে।তবে পানি নেমে যেতে পারে ২ /৩ দিনের মধ্যে।বিষখালীর তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা আতংকে রয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্যা পরিস্থিতি


আরও
আরও পড়ুন