Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

মাঝারি গরুতে চাহিদা বেশি

চট্টগ্রাম ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ১১ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০০ এএম

শেষ মুহূর্তে বন্দরনগরীসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামে কোরবানির পশুহাট জমজমাট হয়ে উঠেছে। ক্রেতা সমাগম বেড়েছে। বন্দরনগরীর পশুহাটগুলোতে বড়, মাঝারি, ছোট সব ধরনের দেশি গরুর বিপুল সমাহার। এরমধ্যে মাঝারি সাইজের গরুর প্রতি নগরীর মধ্যবিত্ত মানুষের কেনার আগ্রহ লক্ষ্য করা গেছে। ৫০ হাজার টাকার নিচে গরু নেই।

সবচেয়ে ছোট গরু ৫০ এর নিচে। মাঝারি সাইজের গরু ৭০ থেকে ৯০ হাজার টাকা। বড় এবং ঢাউস সাইজের গরুর দাম এক লাখ, সোয়া লাখ টাকা থেকে ৫ লাখ, ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত। পশুহাটগুলোতে গরু ছাড়াও খাসি, মহিষও বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রচুর এসেছে।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নগরীর বিভিন্ন স্থানে ৮টি পশুহাট ইজারা দিয়েছে। তন্মধ্যে ২টি স্থায়ী ও ৬টি অস্থায়ী পশুহাট রয়েছে। স্থায়ী পশুহাটগুলোর মধ্যে সাগরিকা গরুর বাজার ও বিবির হাট গরুর বাজার। অস্থায়ী পশুহাটগুলোর মধ্যে বাকলিয়া নুর নগর হাউজিং এস্টেট, কাটগড় গরুর বাজার, সল্টগোলা গরুর বাজার, স্টীল মিল গরুর বাজার, কমল মহাজন গরুর বাজার ও পোস্তারপাড় ছাগল বাজার। আজ রোববার পর্যন্ত এসব হাটে কোরবানি পশু বেচা-কেনা চলবে।

চট্টগ্রাম ছাড়াও তিন পার্বত্য জেলা, কক্সবাজার জেলা থেকেও অনেক গরু-ছাগল এসেছে। আরও বেশ গরু এসেছে মিয়ানমার থেকে। ভাল দাম পাওয়ার আশায় উত্তরবঙ্গের জেলাসমূহ ফরিদপুর, কুষ্টিয়া, পাবনা, মাদারিপুর, কুমিল্লা থেকেও অনেক গরু এসেছে। গতকাল সকাল থেকে দীর্ঘক্ষণ মাঝারি ও ভারী বৃষ্টির কারণে গরুর বাজার কাদায় নাকাল হয়েছে। তবে দুপুরে ছলছলে রোদের মাঝে ক্রেতারা স্বস্তিতে ছিলেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মাঝারি গরু
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ