Inqilab Logo

বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ০২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৮ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

কাশ্মীর নিয়ে মধ্যস্থতার প্রস্তাব মমতার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ আগস্ট, ২০১৯, ২:৩৫ পিএম

সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপের পরিস্থিতিতে কাশ্মীর নিয়ে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার তিনি বলেছেন, আমাকে কাশ্মীর পাঠানো হোক, কথা বলে মীমাংসা করে দেব। ৩৭০ ধারা ভাল কি মন্দ তা নিয়ে কিছু বলতে চাই, যে পদ্ধতিতে এটা করা হয়েছে তা মোটেই ঠিক হয় নি। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, সংসদে যেদিন ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রস্তাব করা হয়েছিল তার আগের দিন জম্মু ও কাশ্মীরের এক সাবেক মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে ফোন করেছিলেন। বলেছিলেন, আমরা ভয়ের মধ্যে রয়েছি। তাদের বিপদের দিনে আমি তাদের পাশে থাকব কিনা। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত আমি তাদের পাশে সংহতি জানাতে পারিনি সেই সময়। তবে শারীরিকভাবে তাদের পাশে দাঁড়াতে না পারলেও তাদের সঙ্গে আছি।

তবে মমতা কোন সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফোন করেছিলেন তা বলেন নি। তিনি বলেছেন, সরকার বলছে কাশ্মীর ভাল রয়েছে। আমি আবারও বলতে চাই, যে পদ্ধতিতে এটা করা হয়েছে তা ঠিক হয়নি। রাজ্যের তিন সাবেক মুখ্যমন্ত্রীদের তা জানার অধিকার ছিল। মমতা এও বলেছেন, কাশ্মীরে কি হচ্ছে সে সম্পর্কে সেখানকার মানুষ সম্পূর্ণ অন্ধকারে। একথা বলার জন্য হয়তো আমাকে ইডি, সিবিআই দিয়ে ভয় দেখানো হবে। তবে কেউ যদি কাশ্মীরে যেতে না চায়, আমি যেতে রাজি রয়েছি।

আমাকে সেখানে পাঠানো হোক। আমি সেখানকার মানুষের সঙ্গে কথা বলব। শান্তিপূর্ণ আলোচনা সম্ভব। কিন্তু সরকার কোনও আলোচনা না করেই বিল এনেছেন। মমতা এদিন প্রশ্ন করেছেন, জম্মু ও কাশ্মীরের তিনজন মুখ্যমন্ত্রীর খবর জানার অধিকার কি আমার নেই। তারা তো জণগণ দ্বারা নির্বাচিত হয়েছিলেন। গত ৮-১০ দিন ধরে দেশের মানুষ জানেন না তারা কোথায় রয়েছেন। এসব প্রশ্ন করার জন্য আমাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি, সব দলের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে শান্তিপূর্ণ আলোচনা করা যেতো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ