Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

‘ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার ফ্যাসিস্টদের হাতে’

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ৭:২০ পিএম

ভারতের পরমাণু অস্ত্রসম্ভারের দায়িত্ব এখন ফ্যাসিস্ট, হিন্দু আধিপত্যবাদী নরেন্দ্র মোদি সরকারের হাতে। এক টুইট বার্তায় এই মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক দুনিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তিনি।

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তার টুইটে বলেছেন, ‘ভারতের পরমাণু অস্ত্রসম্ভারের নিরাপত্তার দায়িত্ব এখন ফ্যাসিস্ট, বর্ণবাদী, হিন্দু আধিপত্যবাদী নরেন্দ্র মোদি সরকারের হাতে। এ ব্যাপারে সারা পৃথিবীর নজর দেওয়া উচিত। এ এমন একটা বিষয় যার প্রতিক্রিয়া শুধু এ অঞ্চলে সীমাবদ্ধ নয়, সমগ্র বিশ্ব জুড়ে।’

ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার ইমরান সরকারের শীর্ষ স্তরের মন্ত্রী, অফিসার ও উচ্চপদস্থ সেনাকর্তাদের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়। তার পরেই যৌথ সাংবাদিক সম্মেলন করেন পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি ও সেনবাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর। সেখানে গফুর বলেন, ‘এই ব্যাপারে আমাদের সন্দেহটা হালে খুবই জোরালো হয়েছে যে, কাশ্মীর থেকে গোটা বিশ্বের নজর ঘোরাতে বড়সড় পরমাণু হানাদারি চালাতে পারে ভারত। তবে তার জন্য আমরা পুরোদস্তুর তৈরি রয়েছি।’ মেজর জেনারেল গফুর এও জানান, ভারত জোর করেই যুদ্ধ বাধিয়ে দিতে পারে। সেই আশঙ্কার কথা মাথায় রেখেই কাশ্মীর সীমান্তের নিয়ন্ত্রণরেখায় প্রচুর সেনা মোতায়েন করেছে পাকিস্তান।

পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী কুরেশি জানান, কাশ্মীর পরিস্থিতির উপর কড়া নজর রাখতে পররাষ্ট্র মন্ত্রলায়ে বিশেষ কাশ্মীর সেল খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কুরেশি বলেন, ‘কাশ্মীর পরিস্থিতি সম্পর্কে গোটা বিশ্বকে ওয়াকিবহাল করতে যে সব দেশে পাক দূতাবাস রয়েছে, তার প্রত্যেকটিতেই জনাকয়েক বিশেষ দূত নিয়োগ করা হবে।’

গত ৫ আগস্ট কাশ্মীর অবরুদ্ধ করে সব ধরণের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করার পর এই নিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয়বার ভারত প্রসঙ্গে পৃ্থিবীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ইমরান খান। এর আগে ইমরান বলেছিলেন, ‘জার্মানিকে যেমন নাৎসিরা অধিকার করে নিয়েছিল, তেমনভাবেই ভারত এখন ফ্যাসিস্ট, বর্ণবাদী, হিন্দু আধিপত্যবাদী আদর্শ ও তার নেতৃত্বের দখলে চলে গিয়েছে। এর ফলে দু সপ্তাহ ধরে ৯০ লক্ষ কাশ্মীরি কার্যত আটক রয়েছেন। এ ঘটনা সারা দুনিয়ায় বিপদঘণ্টি বাজানো উচিত, একই সঙ্গে জাতিসংঘের উচিত এখানে পরিদর্শক পাঠানো।’

আর এস এস নিয়ে বলতে গিয়ে ইমরান খান বলেন, ‘যে কেউ গুগল করে দেখে নিতে পারেন বিজেপি-আরএসএসের আদর্শের সঙ্গে নাৎসিদের মিল কোথায়।’ তিনি বলেন, “‘তিমধ্যেই ৪০ লক্ষ ভারতীয় মুসলিমকে ডিটেনশন ক্যাম্পে পাঠানো হয়েছি এবং তাদের নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়েছে। দুনিয়ার জানা উচিত দৈত্য এখন বোতলের বাইরে বেরিয়ে পড়েছে এবং যদি আন্তর্জাতিক দুনিয়া এ অবস্থা বন্ধ করতে পদক্ষেপ না নেয় তাহলে আরএসএসের গুণ্ডারা ঘৃণা ও গণহত্যার মতবাদ ছড়িয়ে দেবে।’

প্রসঙ্গত, গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মধ্য দিয়ে কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার ও বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয় বিজেপি নেতৃত্বাধীন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এর প্রতিবাদে ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক হ্রাস করাসহ ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনারকে বহিষ্কার করেছে পাকিস্তান। দুই দেশের সীমান্তে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। কাশ্মীর সীমান্তে চলছে টানটান উত্তেজনা। একইসঙ্গে সব ধরনের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য চুক্তি স্থগিত ও ভারতের স্বাধীনতা দিবসকে কালো দিবস হিসেবে পালন করেছে পাকিস্তান।



 

Show all comments
  • মুহাম্মাদ নাঈমুল ইসলাম ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ৯:১৪ পিএম says : 1
    ভারত মোকাবিলায় সকল রাষ্ট্রকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত
    Total Reply(1) Reply
    • kuli ১৯ আগস্ট, ২০১৯, ১০:১২ পিএম says : 0
      পাকিস্থান একাই পারবে যদি ওদের সেনাপ্রধান গুলো সাহসী হয়।আইউব খানের জন্যই কাশ্মীর আজ পরাধিন।ওই কাপুরুষটা কাশ্মীর যুদ্ধের সময় আমেরিকার ভয়ে যুদ্ধ বন্ধ করসে।চিন্তা করে দেখেন তালিবানদের কাসে কি আসে?ওরা সুপার পাওয়ার রাশিয়া/আমেরিকার সাথে যুদ্ধ করে জিতসে।ওদের না আসে ট্যাঙ্ক,প্লেন,পারমানবিক বোম।পাকিস্থানের এই সবই আসে।দরকার শুধু সাহস।
  • মোঃ আককাছ আলী মোল্লা ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ১০:০৫ পিএম says : 1
    কাশ্মীরি ভাই বোনকে বাঁচাতে সব মুসলিম রাষ্ট্র এক হয়ে ভারত ভর্তা করা করা উচিৎ।
    Total Reply(0) Reply
  • Suruj ali ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ১১:৩৩ পিএম says : 1
    পাকিস্তান জিন্দাবাদ ইন্ডিয়া মুর্দাবাদ ইন্ডিয়া ধ্বংস হোক মুসলিমদের জয় হোক আমরা অবশ্যই ইন্ডিয়াকে ধ্বংস করব ইনশাল্লাহ যারা মুসলিমদের কে ধ্বংস করতে চায়
    Total Reply(0) Reply
  • kkio ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ১০:৪১ পিএম says : 0
    And say, "Truth has come, and falsehood has departed. Indeed is falsehood, [by nature], ever bound to depart." Quran Ch. 17, Vr. 81. Falsehood is vanishing by its nature and the whole world is blaming Islam for that just to restore their respective Falsehoods in their respective lands. But we see "Say: "The Truth has arrived, and Falsehood neither creates anything new, nor restores anything."" Quran Ch. 34, Vr. 49. So you cannot restore falsehood. Where is the way out for India and the world except to kill all muslim or to become all muslim?
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইমরান খান


আরও
আরও পড়ুন